নিজস্ব প্রতিবেদক:

কক্সবাজার সদরের খুরুশকুল তেতৈয়া এলাকায় নিজের মালিকানাধীন খতিয়ানভুক্ত টিলা জমির মাটি কাটতে বাধা দেয়ায় দানু মিয়া নামে এক ব্যক্তির উপর হামলা চালিয়েছে মাটি লুটকারীরা। ১৩ ডিসেম্বর (শুক্রবার) সকাল সাড়ে ৬ টার দিকে এঘটনা ঘটে। এতে দানু মিয়া ও ধস্তাধস্তিতে নিজেরদের দায়ের আঘাত লেগে মাটি লুটকারী জিয়াবুল হক নামের একজনেরও আঙুলে জখম হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, খুরুশ্কুল তেতৈয়া সওদাগর পাড়ায় জিয়াবুল হক ও এরশাদের নেতৃত্বে দীর্ঘদিন ধরে একই এলাকার আবুল হোসেনের পুত্র দানু মিয়ার মালিকানাধীন খতিয়ানভুক্ত টিলা জমির মাটি জোর কেটে নিয়ে বিক্রি করছিলো একটি চক্র। একা হওয়ায় তাতে বাধা দিতে পারেনি দানু মিয়া। তবে প্রতিকার পেতে খুরুশ্কুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দীনের গ্রাম আদালতে অভিযোগ দায়ে করে দানু মিয়া। চেয়ারম্যান মাটি লুটকারীদের কয়েকবার নোটিশ দিয়ে ডাকলেও তারা আসেনি। এছাড়াও এলাকার সব গণমান্য ব্যক্তিদের কাছে নালিশ করেন ভুক্তভোগী দানু মিয়া। কিন্তু কারো বিচারের আহ্বানে সাড়া দেয়নি মাটি লুটকারী জিয়াবুল হক ও এরশাদসহ অন্যারা। এভাবে তারা দীর্ঘদিন বিপুল মাটি লুট করে বিক্রি করে দিয়েছে। এসব মাটি বিক্রি করে তারা লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

ভুক্তভোগী দানুমিয়া অভিযোগ করে বলেন, ‘জিয়াবুল হক ও এরশাদসহ কয়েকজন মিলে আমার অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে আমার জমির বিপুল মাটি লুট করে বিক্রি করে দেয়। বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ দিলেও তারা এতে সাড়া নেয় না। তাই বাধ্য হয়ে শুক্রবার সকালে মাটি কাটতে গেলে আমি তাদের বাধা দিই। বাধা দিলে তারা দা’ ও লাঠিসহ আমাকে মারতে আসে। এসময় তারা লাঠি দিয়ে আমাকে ব্যাপক মারধর করে। দা নিয়ে আঘাত করতে গেলে আমি দা’ ধরে ফেলার চেষ্টা করি। এতে ধস্তাধস্তিতে দায়ের আঘাত লেগে জিয়াবুল হকের এক আঙুলে সামান্য কাটা যায়। আমাকে ফাঁসানোর জন্য সেটাকে বড় ঘটনা সাজিয়ে হাসপাতালে ভর্তি এবং পত্রিকায় সাজানো সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে। তারপরও প্রকৃত ঘটনা জানার জন্য এলাকায় এসে তদন্ত করার জন্য আমি প্রশাসনকে অনুরোধ করছি। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছে জিয়াবুল হক।

এ ব্যাপারে খুরুশ্কুল ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ জসিম উদ্দীন বলেন, ‘তার জমির মাটি কেটে লুট করার অভিযোগে দানু মিয়া পরিষদের গ্রাম আদালতে অভিযোগ দায়ের করেছিলো। অভিযোগের ভিত্তিতে আমি জিয়াবুল হক ও এরশাদসহ অন্যদের নোটিশ করে ডেকেছি। কিন্তু তারা তাতে সাড়া দেয়নি।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •