মোঃ নিজাম উদ্দিন, চকরিয়া:
চকরিয়ার কোরালখালী পাইল্যাপাড়া এলাকায় আবদুল হাকিম ছোটন (২৭) নামের এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার পর চিংড়ি প্রজেক্টের খালে লাশ ভাসিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। নিহত ছোটন উপজেলার শাহারবিল ইউনিয়নের (৯নং ওয়ার্ড) কোরালখালী পাইল্যাপাড়ার দেলোয়ার হোসেনের ছেলে। এ ঘটনায় রেজাউল করিম (২৫) নামের একজনকে আটক করেছে পুলিশ।
সোমবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে এ ঘটনা সংঘটিত হয়। নিহত ছোটন চিংড়ি প্রজেক্টের পাহারদারের কাজ করতেন বলে জানা গেছে।
পরিবার সূত্র জানায়, সোমবার রাতে আবদুল হাকিম ছোটনকে তার নিজ বাড়ির অদুরে একটি চিংড়ী প্রজেক্টের কিনারায় সন্ত্রাসীরা দা দিয়ে উপর্যুপরি কুপিয়ে হত্যা করেছে। পরে লাশ প্রজেক্টের খালে ভাসিয়ে দিয়ে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।
নিহত ছোটনের এক চাচাতো ভাই জানান, হত্যাকাণ্ডটি ঘটার আগ পর্যন্ত আবদুল হাকিম ছোটনের সাথে মোবাইলে কথা বলছিলেন। কথা বলার একপর্যায়ে হঠাৎ ছোটনের আর্তচিৎকার শোনা যায়। পরে মোবাইল বন্ধ হয়ে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এ ঘটনা ছোটনের স্বজনদের জানানো হলে তারা খোঁজাখুঁজি করে ওই এলাকার খালে ভাসমান অবস্থায় তার মরদেহ দেখতে পান। সেখান থেকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।
চকরিয়া থানার ওসি মোঃ হাবিবুর রহমান বলেন, কোরালখালীর সাবেক ইউপি সদস্য জামালের ভাই জয়নাল আবেদীনের মেয়ের সঙ্গে একই এলাকার নুরুল আলমের ছেলে শহীদুল্লাহর বিয়ের কথা ছিল। কিন্তু আগে থেকে সম্পর্ক থাকার কারণে এক সপ্তাহ আগে ছোটনের সঙ্গে ওই মেয়ের বিয়ে হয়ে যায়।
এই বিয়ের কারণে শহীদুল্লাহ ক্ষিপ্ত হয়ে এ হত্যাকাণ্ডটি ঘটাতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন একজনকে আটক করা হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।