চ্যানেল আই :   আর্থিক দুর্নীতি ও নৈতিক স্খলনের অভিযোগে ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরকে পদত্যাগের আহ্বান জানিয়েছেন জিএস গোলাম রাব্বানী।

পদত্যাগ না করলে ডাকসু থেকে নুরকে বহিষ্কার করতে ডাকসুর সভাপতি ও ঢাবির উপাচাযের্র প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ডাকসু সদস্যরা।

তবে ভিপি নুর জানিয়েছেন: ছাত্রলীগের কথায় পদত্যাগ নয়, অভিযোগ প্রমাণ করতে পারলে বলার আগেই পদত্যাগ করবেন তিনি।

রোববার সকালে সংবাদ সম্মেলনে ডাকসুর ২৫ জন সদস্যের মধ্যে ২৩ জন উপস্থিত ছিলেন।

এসময় গোলাম রাব্বানী বলেন: ডাকসুর সর্বোচ্চ পদকে বিতর্কিত ও কলঙ্কিত করেছেন ভিপি নুর। আমরা ডাকসু পরিবার এই দায়ভার নেবো না। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানাচ্ছি। একইসঙ্গে পদ থেকে নুর যেন পদত্যাগ করে সেই দাবি আমরা জানাচ্ছি। ঘটনার তদন্ত করে ভিপি নুরুল হক নুরকে বহিষ্কার করা হোক।

ওই সংবাদ সম্মেলনে প্রথমে কথা বলেন ডাকসু এজিএস সাদ্দাম হোসেন। এরপর লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করা হয়। সেখানে ভিপি নুরের বিরুদ্ধে ১৩ কোটি টাকার টেন্ডারবাজির অভিযোগ আনা হয়।

ছাত্রলীগ প্যানেল থেকে নির্বাচিত ডাকসু নেতারা বলেন: নির্বাচনের পর তিনি শিক্ষার্থীদের জন্য কোনো কাজই করেননি। এর মধ্যে তিনি নৈতিক স্খলনজনিত কারণে ওই পদে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন। এরপরও পদত্যাগ না করলে তাকে ভিপি পদ থেকে বহিস্কার করা হোক।

এসময় ভিপি নুরের আর্থিক লেনদেন তদন্ত করার জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনের কাছে আবেদন করেন ডাকসু সদস্যরা।

বেসরকারি একটি টিভি চ্যানেলে সম্প্রতি ভিপি নুরের ফোনালাপের অডিওক্লিপ প্রচার করা হয়। এরপর আরও কয়েকটি টেলিভিশনসহ বিভিন্ন অনলাইনে বিষয়টি প্রচার হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিপি নুরের সেই অডিওক্লিপ ভাইরাল হয়ে যায়।

ওই অডিওক্লিপের ভয়েস যে তার, তা ইতোমধ্যে স্বীকার করেছেন ভিপি নুর। তবে কয়েকটি কয়েকটি ফোনালাপ এডিট করে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে বিভ্রান্তি ছড়ানোর জন্য এই ক্লিপ প্রচার করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •