ফারুক আহমদ, উখিয়া :
উখিয়ার ক্রাইম জোন হিসেবে খ্যাত দরগাহ বিল ও হাতিমুড়া এলাকায় সন্ত্রাসীদের হাতে নির্মমভাবে খুন হওয়া মাহবুল আলম হত্যার সাত দিন পার হলেও কোনো আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। উল্টো হত্যাকারীরা প্রকাশ্যে নিহতের পরিবারকে হুমকি দিচ্ছে বলে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে।
জানা যায়, উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের দরগাহ বিল গ্রামের সৌদি প্রবাসী গুরা মিয়ার একমাত্র পুত্র মাহবুবুল আলম (২৫) গত ৩০ নভেম্বর রাতে হাতিমুরা দরবার শরীফে বার্ষিক ওরস মাহফিলের উদ্দেশ্য ঘর থেকে বের হন আর বাড়িতে ফেরেন লাশ হয়ে। রাতেই সন্ত্রাসীদের হাতে নির্মমভাবে খুন হন তিনি।
পিতা গুরা মিয়া জানান ঐদিন রাতে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা আমার ছেলেকে পথিমধ্যে থেকে অপহরণ করে হাতিমুড়া ব্রিজের পশ্চিম পাশে ধানী জমিতে নিয়ে যায়। গলায় শ্বাসরুদ্ধ করে ও লাঠি দিয়ে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে মাহবুবকে হত্যা করে পালিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে মা রাবেয়া বেগম বাদী হয়ে কুখ্যাত সন্ত্রাসী বেলাল বাহিনীর প্রধান বেলালকে ১ নম্বর আসামি করে ৭ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নম্বর ১ তারিখ ১/১২/ ২০১৯।
পরিবারের পক্ষে অভিযোগ করে বলা হয়েছে হত্যার ঘটনার ৭দিন পার হলেও পুলিশ এখনো পর্যন্ত কোন আসামীকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। হত্যাকারীর নেতৃত্বদানকারী বেলাল বাহিনীর সদস্যদের প্রতিনিয়ত হুমকি-ধমকি কারণে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতেছে।
স্থানীয় সচেতন নাগরিক সমাজের দাবি চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে একজন টগবগে যুবক মাহবুবুল আলম হত্যা করার পরও পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে না পারায় জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তাদের দাবি আসামিদের অবস্থান নিশ্চিত হয়ে আন্তরিকতা সহিত অভিযান পরিচালনা করলে কেউ পুলিশের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার কথা নয়।
উখিয়া থানার এস আই ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান আসামিদের কে গ্রেপ্তার করার জন্য একাধিকবার বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালানো হয়েছে এবং এখনও অব্যাহত রয়েছে। আমরা আপ্রাণ চেষ্টা করছি হত্যাকারীদের কে খুঁজে বের করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দিতে।
রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী জানান মাহবুবুল আলম হত্যাকারীরা যতই শক্তিশালী হোক না কেন অপরাধীকে ছাড় দেওয়া হবে না। তবে এলাকাবাসীকে আসামিদের খোঁজখবর ও অবস্থান পুলিশকে জানানোর আহ্বান জানান তিনি।
এদিকে এলাকাবাসীর সাথে বলে জানা গেছে, বাহিনীর প্রধান বেলাল একজন দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী। তার নেতৃত্বে এলাকায় সন্ত্রাসী চাঁদাবাজি ছিনতাই খুন অপহরণ থেকে শুরু করে যেকোনো ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড সংঘটিত হয়। বলতে গেলে বেলাল বাহিনীর নিকট বৃহত্তর পূর্বাঞ্চলের শান্তিপ্রিয় জনগণ জিম্মি অবস্থায় দিনযাপন করছে।
থানা সূত্রে জানা গেছে বেলাল বাহিনীর প্রধান বেলালের বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। তৎমধ্যে জিআর ২২৩/১৯, জিআর ৫৩/১৫, জিআর ২১০/১৫, জিআর১৬৭/১১, জিআর ৭৩/১২, জিআর ১৩৮/২০০১ সহ নারী ও নির্যাতন দমন আইনের মামলা রয়েছে। গ্রামবাসীরা অবিলম্বে মাহবুবুল আলম হত্যাকারীর প্রধান আসামি বেলাল বাহিনীর প্রধান ও বহু মামলার পলাতক আসামি বেলাল সহ অন্যান্য আসামিদেরকে গ্রেপ্তার করার জন্য জেলা পুলিশ সুপার সহ অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিকট দাবি জানিয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •