হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ :
টেকনাফের হ্নীলা নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে দু’দল ডাকাতের মধ্যে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক ডাকাত নিহত ও অপর এক ডাকাত গুলিবিদ্ধ হয়েছে। ৭ ডিসেম্বর রাত নয়টার দিকে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। রোহিঙ্গা ডাকাত জকির গ্রæপ ও ইতিপূর্বে আইনশৃংখলা বাহিনীর সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত শীর্ষ ডাকাত নুরুল আলমের অনুসারীদের মধ্যে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে বলে রোহিঙ্গারা জানিয়েছে।
রোহিঙ্গারা জানান, ৭ ডিসেম্বর রাত নয়টার দিকে রোহিঙ্গা ডাকাত জকির গ্রæপ ও ইতিপূর্বে আইনশৃংখলা বাহিনীর সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত শীর্ষ ডাকাত নুরুল আলমের অনুসারীদের মধ্যে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে। বন্দুক যুদ্ধের ঘটনায় নুরুল আলম ডাকাতে ছোট ভাই শামসুল আলম গুলিবিদ্ধ হয় এবং প্রতিপক্ষ জকির গ্রæপের এক ডাকাত নিহত হয়। তবে নিহত ডাকাতের পরিচয় এখনো সনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। এই ঘটনায় অপর এক শিশু পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়। আহত ডাকাত শামসুল আলম এইচ বøক ৬৭৭ নং শেডের ৬নং রুমের বাসিন্দা মৃত মোঃ হোসাইন প্রকাশ লাল বুইজ্জার ছেলে ও ডাকাত নুরুল আলমের ছোট ভাই এবং গুলিবিদ্ধ শিশু এইচ বøকের কমিটি আরেফা বেগমের ১১ বছরের সন্তান।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘রাত ৯টার দিকে গোলাগুলির শব্দ শুনেছি। তবে বিস্তারিত তাৎক্ষণিকভাবে জানা সম্ভব হয়নি। রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সংলগ্ন পাহাড়। এখানে প্রায় সময় গোলাগুলির ঘটনা ঘটে’।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •