বার্তা পরিবেশক :

সাংবাদিকদের চাকরির নিশ্চয়তাসহ আইনী সুরক্ষা দেবে সরকার-এমন ঘোষণা দিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি। ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রি. শুক্রবার রাতে চট্টগ্রাম নগরীর জিইসি মোড়স্থ কে. স্কোয়ার কনভেনশন মিলনায়তনে টিভি ক্যামেরা জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন (টিসিজেএ), চট্টগ্রামের ১ যুগপূর্তি উপলক্ষে সাংবাদিক সম্মাননা, বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড, বেস্ট ডকুমেন্টারি অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বক্তব্যে এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, আইনের মাধ্যমে সরকার সাংবাদিকদের চাকরির নিশ্চয়তাসহ আইনী সুরক্ষা দেবে। তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বাস্তবতার নিরিখে সাংবাদিকদের জন্য যা যা করা দরকার সব করবে সরকার। তথ্যমন্ত্রী বলেন, গণমাধ্যম সমাজের দর্পণ ও রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। তিনি চট্টগ্রামের টেলিভিশন সাংবাদিকদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের ঘোষণাও দেন। টিসিজেএ’র সভাপতি শফিক আহমেদ সাজীবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দিন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের অব্যাহত সহযোগিতা প্রদানের ঘোষণা দিয়ে সিটি মেয়র বলেন, বর্তমান সরকার পেশাজীবী বান্ধব সরকার। সাংবাদিকদের সাহসিকতাপূর্ণ অবদানের কথা স্বীকার করে উন্নয়নে সাংবাদিকদের আরও ভূমিকা রাখতে তিনি অনুরোধ জানান। ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান অনুপম শীলের সঞ্চালনায় অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নাজিম উদ্দিন শ্যামল, সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, টিভি জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি নাসির উদ্দিন তোতা, সাধারণ সম্পাদক লতিফা আনসারী রুনা, টিভি ক্যামেরা জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন ঢাকার সাধারণ সম্পাদক ফারুক বিপ্লব, টিসিজেএ সাবেক সভাপতি এনামুল হক, যুগপূর্তি উৎসব উদ্যাপন কমিটির আহ্বায়ক রনি দাশ। অনুষ্ঠানে সাংবাদিক সম্মাননা প্রদান করা হয় সাংবাদিক এজাজ মাহমুদ ও খ্যাতিমান ক্যামেরাপার্সন সৌমেন গুহকে। বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ডে প্রথমস্থান অর্জন করেন জলদস্যূ সংবাদের জন্য চ্যানেল টোয়েন্টিফোর এর আকরাম হোসেন (রির্পোটার) ও আবু জাহেদ (ক্যামেরাপার্সন)। দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেন যৌথভাবে রেলওয়ের সম্পদ চুরির সংবাদের জন্য চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের বিশেষ প্রতিনিধি ফখরুল ইসলাম (রিপোর্টার) ও সেলিম উল্লাহ (ক্যামেরাপার্সন), হরিজন সম্প্রদায় সংবাদের জন্য যমুনা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার মোঃ শোয়েব রহমান (রিপোর্টার) ও দীপঙ্কর দাশ (ক্যামেরাপার্সন)। তৃতীয় স্থান অর্জন করেন কর্ণফুলী নদীর সংবাদের জন্য একাত্তর টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার প্রণবেশ চক্রবর্তী (রিপোর্টার) ও বাবুন পাল (ক্যামেরাপার্সন)। বেস্ট ডকুমেন্টারি অ্যাওয়ার্ডে প্রথম স্থান অর্জন করেন যৌথভাবে নেপথ্য মানুষের গল্পের জন্য এনটিভির স্টাফ ক্যামেরাপার্সন এনামুল হক ও বহুবর্ণের চট্টগ্রাম গল্পের জন্য চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের স্টাফ ক্যামেরাপার্সন আবু জাহেদ। দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেন যৌথভাবে শুটকির গল্পের জন্য এসএ টিভির স্টাফ ক্যামেরাপার্সন অমিত দাশ ও প্রকৃতির মায়া গল্পের জন্য চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের ক্যামেরাপার্সন সেলিম উল্লাহ। তৃতীয় স্থান অর্জন করেন মাজার ও কচ্ছপের গল্পের জন্য মাছরাঙা টেলিভিশনের স্টাফ ক্যামেরাপার্সন সনজীব দে বাবু। চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের আঞ্চলিক সম্পাদক কামাল পারভেজ কে প্রধান, দেশ রুপান্তর পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি ও ব্যুরো প্রধান ফারুক ইকবাল, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষক সুবির মহাজন ও মাছরাঙা টেলিভিশনের চট্টগ্রামের ব্যুরো প্রধান তাজুল ইসলাম কে সদস্য করে ৪ সদস্য বিশিষ্ট বেস্ট রিপোর্টিং ও বেস্ট ডকুমেন্টারি অ্যাওয়ার্ড নির্বাচন জুরীবোর্ড গঠিত হয়। জুরী বোর্ডের সদস্যদের পক্ষে দেশ রুপান্তর পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি ও ব্যুরো প্রধান ফারুক ইকবাল রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড ও বেস্ট ডকুমেন্টারি অ্যাওয়ার্ডের ফলাফল ঘোষণা করেন। অ্যাওয়ার্ড প্রদান শেষে টিসিজেএ’র সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম বাবু, অর্থ সম্পাদক দীপঙ্কর দাশ বাবু, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সুমন গোস্বামীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠন ও টিসিজেএ সদস্যদের পরিবারের মধ্যে লাকী কুপন ড্র। এতে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের আঞ্চলিক সম্পাদক কামাল পারভেজ, তরুণ সমাজ সেবক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ। যুগপূর্তি অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিএমইউজে এর সভাপতি শামসুল হক হায়দরী, বৈশাখী টিভির ব্যুরো প্রধান মহসিন চৌধুরী, সিইউজে টিভি ইউনিট প্রধান অনিন্দ্য টিটু, একুশে পত্রকিা সম্পাদক আজাদ তালুকদার, টিসিজেএ’র আজীবন দাতা সদস্য প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, হাজী মুহাম্মদ সাহাবুদ্দিন, শরফুদ্দিন চৌধুরী রাজু, কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, ফরিদ মাহমুদ, কাউন্সিল মোঃ গিয়াস উদ্দিন, কাউন্সলির আবদুল কাদরে, বএিনপি নতো আবু সুফয়িান, , আরশেদুল আলম বাচ্চু, আজিজুর রহমান, সাজেদুল আলম চৌধুরী মিল্টন,যুবদল নগর সভাপতি মােশাররফ হােসনে দীপ্তি প্রমুখ।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •