আবুল কালাম, চট্টগ্রাম:

বাণিজ্যিক রাজধানী খ্যাত চট্টগ্রাম বন্দরে ৪ প্রতিষ্ঠানের ৩ হাজার মেট্রিক টন আমদানি করা পেঁয়াজ এসে পোচাল। এসব পেঁয়াজ চার দেশ থেকে আমদানি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) চট্টগ্রাম বন্দরে পেঁয়াজের এ চালানগুলো পৌঁছেছে।

আমদানি করা দেশ গুলো হল তুরস্ক, চীন,পাকিস্তান ও মিশর।

সিটি গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রামের এম হাসান এন্ড কোম্পানী তুরষ্ক থেকে আনা ২৫০০ টন, চট্টগ্রামের আর এইচ ট্রেডিং চীন থেকে আনা ৮৭ টন, ঢাকার এস এ ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল চীন থেকে ১৪৫ টন, চট্টগ্রামে ফরহাদ ট্রেডিং চীন থেকে দুটি চালানে ৫৮ টন করে ১১৬ টন, ঢাকার মেসার্স মিতা এন্টারপ্রাইজ মিশর থেকে ৮৪ টন পেঁয়াজ খালাস নিতে সিএন্ডএফ এজেন্টদের মাধ্যমে বিল অব এন্ট্রি দাখিল করে।

এছাড়া মায়ানমার থেকে আমদানি করা পেঁয়াজের ২০টি ট্রাক ঢুকেছে খাতুনগঞ্জে। প্রতি ট্রাকে পেঁয়াজ ছিল ১৪ টন করে। এর বাইরে চীন, মিশর ও তুরস্কের পেঁয়াজের সরবরাহও বেড়েছে পাইকারি বাজারে। এতে চট্টগ্রামের পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম নিম্নমুখী।

সমুদ্র বন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-পরিচালক ড. আসাদুজ্জামান বুলবুল জানান, এবার সংকট শুরুর পর থেকে বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) পর্যন্ত ১ লাখ ১ হাজার ৭৪৬ টন পেঁয়াজ আমদানির অনুমতিপত্র (আইপি) ইস্যু করা হয়েছে। এর বিপরীতে ১৪ হাজার ৮৯ টন পেঁয়াজ খালাস হয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে। এর মধ্যে মিশর থেকে এসেছে ৫ হাজার ৮২৭ টন, চীনের ৩ হাজার ৬০৩ টন, মিয়ানমারের ১ হাজার ৩৪২ টন, তুরস্কের ২ হাজার ৩৬৬ টন, সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) ৪৩৭ টন ও পাকিস্তানের ৫১৪ টন পেঁয়াজ রয়েছে। বাকি পেঁয়াজগুলো আসার পথে রয়েছে। বৃহস্পতিবার একদিনেই এসেছে প্রায় ৩ হাজার টন পেঁয়াজ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •