ফারুক আহমদ, উখিয়া:
উখিয়া ইনানী বনবিভাগে মামলা দিয়ে মোটা অংকের বাণিজ্য আদায়ের গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। আর এসবের খলনায়ক হচ্ছে দক্ষিণ বন বিভাগের স্পেশাল টহল দলের ওসি। তার বিরুদ্ধে রয়েছে পাহাড় সমান অভিযোগ। এহেন গর্হিত ঘটনায় জনমনে চরম অসন্তোষ সহ মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।
গত ৩০ নভেম্বর সকালে কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের স্পেশাল টহল দলের ওসি তরিকুল ইসলামের নেতৃত্বে বনকর্মীরা টেকনাফের শাপলাপুর বাজার হতে একটি খালি ডাম্পার আটক করে। ওই সময় জালিয়াপালং ইউনিয়নের পাইন্যাশিয়া জুম্মাপাড়া গ্রামের মনজুর আলমের ছেলে মোহাম্মদ রিফাতকে আটক করে।
পিতা মনজুর অভিযোগ করে বলেন তার ছেলেকে বিনা অপরাধে মারধর করে কক্সবাজার বনবিভাগ অফিসে নিয়ে যায় এবং মামলার হুমকি দিয়ে মোটা অংকের টাকা দাবি করে। গাড়ি ও ড্রাইভারকে ছেড়ে দেয়ার কথা বলে গাড়ির মালিক হতে দু দফায় এক লক্ষ আদায় করে। পরিবারের পক্ষে অভিযোগ চাপ প্রয়োগ ও জিম্মি করে টাকা নেওয়ার পরও ভিন্ন একটি মামলায় ড্রাইভার রিফাত কে আসামি করা হয়।
এ ব্যপারে জানতে চাইলে ইনানী বিটের ফরেষ্টার ও মামলার বাদী ম্যাকলিট চাকমা বলেন, আটক বা ঘটনা সম্পর্কে কিছুই জানিনা। স্পেশাল টহল দলের ওসি তারেকুল ইসলামের কথা মতে মামলাটি করা হয়েছে।
এধরনের পরস্পর বিরোধী বক্তব্য খোদ মামলার বাদীর অসহায়ত্ব এবং দায়িত্বহীনতা নিয়েই নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
খোজ খবর নিয়ে জানা গেছে, সকাল ১০ টায় নিদানিয়া মেরিন ড্রাইভ সড়ক হতে একটি বালু ভর্তি ডাম্পার ( নম্বর চট্টমেট্টো য় ৩২৯) জব্দ ও মোহাম্মদ আলী নামক ড্রাইভারকে আটক করে স্পেশাল টহল দলের ওসি। অভিযোগেে প্রকাশ মোটা অংকের টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় বন আইনে মামলা করেন ইনানী বিট কর্মকর্তা। যার মামলা নং হচ্ছে পিওআর ০৫ /ইবি তারিখ ৩০/১১/২০১৯। আর ওই মামলায় আসামি করা হয়েছে নিরপরাধ রিফাতকে। তবে বালুগুলো বৈধ ছিল বলে জানা গেছে।
যোগাযোগ করা হলে স্পেশাল টহল দলের ওসি তারেকুল ইসলাম কারো কাছ থেকে টাকা আদায়ের কথা অস্বীকার করে বলেন কেউ হয়ত ভুল তথ্য দিয়েছে। স্হানীয় সচেতন জনগন অভিযোগ করে বলেন বন বিভাগের টহল স্পেশালের ওসির বিরুদ্ধে পাহাড় সমান অভিযোগ রয়েছে। নানা হুমকি দিয়ে মোটা অংকের মামলা বাণিজ্য করে আসছেন। জালিয়া পালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন ডাম্পার গাড়ি জব্দ ও ড্রাইভার হেলপারকে আটকের নামে জিম্মি করে এক লক্ষ টাকার মামলা বাণিজ্য করা খুবই দুঃক জনক। তিনি এ ধরনের চরম গর্হিত ঘটনার উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত দাবি করেন।
এ দিকে উখিয়া ও ইনানী রেঞ্জর আওতাধীন বিট ফরেষ্টার গন স্পেশাল টহল দলের ওসির অনৈতিক কর্মকান্ড নিয়ে বিব্রত। এহেন গর্হিত কর্মকান্ড নিয়ে বন বিভাগের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে।
এ ব্যয়পারে কক্সবাজার দক্ষিণ বিভাগীয় বন কর্মকর্তা হুমায়ুন কবিরের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে অপরপ্রান্ত হতে মিটিংয়ে আছেন বলা হয়।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, টেকনাফের শাপলাপুর বাজারে কাচা মাছ পরিবহনের জন্য অপেক্ষামান অবস্থায় স্পেশাল টহল দল ডাম্পারের ( নম্বর চট্টমেট্টো য় ৫১৩) ড্রাইভার মোহাম্মদ রিফাতকে মারধর ও নির্যাতন চালিয়ে অহেতুক আটক করেছে। প্রায় সময় তিনি এ ধরনের অপতৎপরতা চালিয়ে যাওয়ায় স্হানীয় বাসিন্দারা অতিষ্ট হয়ে পড়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •