শীতের শুরুতে ঠান্ডাজনিত রোগের কবলে বৃদ্ধ ও শিশুরা

মোহাম্মদ ফারুক:

শীতের শুরুতে জেলার বিভিন্ন স্থানে ঠান্ডাজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। ইতিমধ্যে জেলাসহ উপজেলার বিভিন্ন হাসপাতালে রোগীর ভিড় বেড়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে শিশু ও বৃদ্ধই বেশি।

শীতকালীন সময়ে সব বয়সী মানুষের মাঝে বিভিন্ন ধরনের রোগব্যাধি দেখা দেয়। এর মধ্যে সর্দি-কাশি,নিউমোনিয়া, ডায়রিয়া, হাঁপানি, টনসিলাটাইসিস, সাইনোসাইটিস অন্যতম। তবে শিশু ও বৃদ্ধদের ক্ষেত্রে এ রোগের প্রবণতা দেখা দেয় বেশি, আর ঝুঁকিও রয়েছে তাদের।

কোনো শিশু আবার আক্রান্ত হচ্ছে ডায়রিয়ায়। মৌসুমি এসব রোগ শিশু আর বৃদ্ধদের বেশি হয়। শীতের শুরুতেই ঠান্ডাসহ বিভিন্ন ধরনের ভাইরাসের কারণেই বেড়েছে ঠান্ডাজনিত রোগের প্রকোপ।

কক্সবাজার সদর হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ঘুরে এবং অভিভাবক ও চিকিৎসকের সাথে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে জ¦র, হাঁপানি, ডাুয়রিয়া ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ১৫ দিন বয়সের শিশু থেকে শুরু করে প্রায় বৃদ্ধসহ শত শত রোগি চিকিৎসারত আছেন।

কর্তব্যরত নার্সরা জানান, শীতের শুরু থেকে প্রতিদিন বিভিন্ন ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে ২০-২৫ জন করে শুধু শিশু ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে। এছাড়াও হাসপাতাল ছাড়াও শহরের বেসরকারী ক্লিনিকগুলোতে ভর্তি করানো হচ্ছে।

সদর হাসপাতালের ৩য় তলায় শিশু ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গেছে, সদর হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে নির্দিষ্ট সীটের তুলনায় অধিক রোগী বৃদ্ধি রয়েছে। রোগীদের সীট দিতে না পারায় একটি সীটে ২জন করে রোগী রেখেছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষরা। এতে শিশু ওয়ার্ডে ৪১ জন শিশুই ছিল ঠান্ডা ও নিউমোনিয়া জনিত রোগে আক্রান্ত। ডায়েরিয়া ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায় ৪৫ জন শিশু ওই ওয়ার্ডে ভর্তি আছে। বৃদ্ধ রোগী আছে ৭ জন,

সদর হাসপাতালে শিশুকন্যাকে নিয়ে ভর্তি আছেন ঝিলংজা থেকে আসা হাসিনা। তিনি জানান, তিন মাস বয়সী তারঁ শিশুকন্যার ৪ দিন আগে প্রচন্ড শ^াসকষ্ট বেড়ে যাওয়ার কারণে সদর হাসপাতালে তিনি শিশুটিকে নিয়ে আসেন। এখন মোটামুটি সুস্থ।

কক্সবাজারের শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আশীষ কুমার দে জানান, শীতকালীন সময়ে ঠান্ডাজনিত সর্দি-কাশি, নিউমোনিয়া, ডায়েরিয়া, এলার্জির প্রকোপ বাড়ে। শীতের কারণে বিভিন্ন রোগ দেখা দিতে পারে। তার মধ্যে শ্বাসকষ্টও চামড়ার রোগও বেড়ে যায়। বিশেষ করে বাচ্চাদের মধ্যে ডায়রিয়া দেখা দেয়। ডায়রিয়া হয় ভাইরাসের কারণে।

তিনি আরো বলেন, এই সময়ে খুব বেশি পরিস্কার পরিচন্ন থাকা দরকার। বিশেষ করে শিশু এবং মায়েদের হাত পরিস্কার রাখতে হবে।

এই ব্যাপারে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও প্রশাসন) ডা. নোবেল কুমার বড়–য়া জানান, শীতের শুরুতে আবহাওয়া পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে শিশু ও নবজাতকরা ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়। এ সময়ে শিশুর সর্দি-জ্বরের সঙ্গে কাশি , ডায়রিয়া,ধুলা বালির কারণে এজমা, নিউমোনিয়ার কারণে শ্বাসকষ্ট হয়। শিশুদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বড়দের তুলনায় কম। তিনি আরো বলেন, প্রতিদিন শিশুসহ অনেক রোগি ভর্তি হয়ে নিচ্ছেন আমরা সাধ্যমত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি রোগিদের দ্রুত চিকিৎসা দিতে।

সর্বশেষ সংবাদ

টেকনাফে “কামসো মেধা অন্বেষণ’ বৃত্তি পরীক্ষা

‘দৈনিক সংগ্রামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে’

লামা স্বপ্নকানন বিদ্যাপীঠের যাত্রা শুরু

বিএনপিকে কী বার্তা দেবেন খালেদা জিয়া

পতন থেকে বের হতে পারছে না দেশের শেয়ারবাজার

বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

ভারতের নাগরিকত্ব আইন পর্যবেক্ষণ করছে বাংলাদেশ

মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসের কলঙ্কিত দিন আজ

রামুতে ১৫ ডিসেম্বর থেকে ৭ দিনব্যাপি মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা শুরু

টেকনাফে বন্দুকযুদ্ধে দুইজন নিহত

‘রোহিঙ্গা শিশুদের শিক্ষার দায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের’

মুর্শিদাবাদে বিক্ষোভ, রেল স্টেশন ভাঙচুর

ইসলামাবাদে কবরস্থানের সীমানা প্রাচীর ভাংচুর- জনমনে ক্ষোভ

চার শতাধিক অসহায়কে শীতবস্ত্র দিলেন কুতুবদিয়া ইউএনও জিয়াউল হক মীর

চট্টগ্রামে নোয়াখালীর নুরুল আলম ছুরিকাঘাতে নিহত

কালারমারছড়ায় একরে আড়াই কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ মূল্যের দাবিতে সভা

স্বপ্নজালের উদ্যোগে নাজিরারটেকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিষয়ক কর্মশালা

শনিবার শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস

ব্রাজিল্টিনা মিনিবার গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন

রামুর ফতেখাঁরকুলে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ৪