অবশেষে টেকনাফ-শাহপরীরদ্বীপের বিলিন হওয়া সড়কের পুনঃনির্মাণ শুরু

মুহাম্মদ জুবাইর, টেকনাফ:

ভাগ্য খুলছে শাহপরীর দ্বীপ বাসীর। অবশেষে টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপের বিলীন হয়ে যাওয়া প্রধান সড়ক সংস্কার কাজ শুরু হচ্ছে শীগ্রই। সড়কটি সংস্কার হলে দীর্ঘ ৭ বছরে ভোগান্তি শেষ হবে। ২০১২ সালের জুলাইতে পশ্চিম বঙ্গোপ সাগরের বেঁড়িবাধ বিলিন হয়ে সাগরের পানি চলাচলে প্রধান সড়কটি বিলিন হয়ে যায়।

অবশেষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি সভায় টেকনাফ শাহ পরীর দ্বীপ সড়কের সংস্কার কাজের জন্য সাবরাং ইউনিয়নের হারিয়াখালী থেকে শাহপরীর দ্বীপ জেটিঘাট পর্যন্ত ৫.১৫ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের জন্য ৬৭.৭৮ কোটি টাকার একটি প্রকল্প একনেকে সভায় অনুমোদন দেয়। প্রকল্প অনুমোদনের শেষে দরপত্র আহ্বান ছাড়াও নানা জটিলতায় সড়ক সংস্কার প্রকল্প বাস্তবায়নে এক প্রকার অনিশ্চয়তার সৃষ্টি হয়েছিণ। এতে শাহপরীর দ্বীপের ৩৫/৪০ হাজার মানুষের ভাগ্য এক প্রকার অনিশ্চিত হয়ে দোলতে থাকে। অবশেষে সব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের খবর পেয়ে অনন্দে ভাসছে স্থানীয় বাসিন্দারা।

কক্সবাজার সড়ক ও জনপথ বিভাগ সওজ সূত্রে জানা যায়, সীমাহীন দুর্ভোগের পর গেল ২০১৮ সালের ৪ নভেম্বর

শাহ পরীর দ্বীপ সড়ক সংস্কারের প্রকল্পটি দরপত্র আহ্বান করলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জে কে এন্টারপ্রাইজ প্রকল্পটির কাজ পায়। উক্ত প্রতিষ্ঠান নির্ধারিত শিডিউল মতে প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে বলে জানান। কক্সবাজার সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী পিন্টু চাকমা বলেন, হারিয়াখালী থেকে শাহ পরীর দ্বীপ পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার সড়কটি ৬৭ কোটি টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়ন করা হবে। চেষ্টা করছি যেন সড়কের কাজটি দ্রুত সময়ের মধ্যে শুরু করা যায়। সড়কটির বাস্তবায়ন হয়ে গেলে এটি হবে টেকনাফ উপজেলার মধ্যে অন্যতম একটি দৃষ্টিনন্দন সড়ক।

১ ডিসেম্বর রবিবার সকালে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জে কে এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী ও চন্দনাইশ উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বার চৌধুরী ও প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা শাহপরীর দ্বীপের ভাঙ্গা সড়ক সরেজমিনে পরিদর্শন করছেন।

পরিদর্শনকালে প্রতিষ্ঠানের সত্ত্বাধিকারী আব্দুল জব্বার চৌধুরী জানান, চলতি ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। চেষ্ঠা করবো নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রকল্পের কাজটি শেষ করে যেন শাহপরীরদ্বীপের বাসিন্দাদের কষ্ট দূর হয়ে যাই। অবশেষে সড়কের কাজটি শুরু হতে যাচ্ছে শুনে দ্বীপবাসী খুবই আনন্দিত।

সাবরাং ইউনিয়নের ৭,৮,৯নং ওয়ার্ডের নির্বাচিত মহিলা মেম্বার, ছেনোয়ারা বেগম বলেন, টেকনাফ-শাহপরীর দ্বীপ সড়কটির ১৩ দশমিক সাত কিলোমিটারের মধ্যে পাঁচ কিলোমিটার সড়ক ও জনপথ বিভাগের অংশ ক্ষতবিক্ষত হয়ে পড়েছে। যার ফলে গেল ৭ বছর এলাকার লোকজনকে নৌকা নিয়ে পারাপার হয়ে উপজেলার মূল শহর টেকনাফে যাতায়াত করতে হচ্ছে।

শাহপরীর দ্বীপের সামাজিক সংগঠন “সত্যের ডাক’’ এর সভাপতি হাফেজ মাওঃ রাহামত উল্লাহ বলেন, ভাঙ্গা বেড়িবাঁধের কারণে জোয়ারের পানি ঢুকে প্রতিনিয়ত প্লাবিত হচ্ছে সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপের অধিকাংশ ঘরবাড়ি, লবণ, কৃষিজমি, ফসলি জমি ও বিভিন্ন সড়ক। অনেকে ঘরবাড়ি ছেড়ে টেকনাফসহ বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে বসবাস করছে। সরকার ভাঙ্গা সড়ক মেরামত করার জন্য ৬৭.৭৮কোটি টাকার একটি বরাদ্দ দিয়েছে শুনে আমরা খুবই আনন্দিত।

শাহপরীর দ্বীপের ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান, জামিয়া আহমদিয়া বাহরুল উলুম বড় মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাওঃ নুরুল হক বলেন আমরা শাহপরীর দ্বীপের অধিকাংশ গ্রামের মানুষ প্রতিনিয়ত জোয়ারভাটায় বসবাস করছি। বিশেষ করে বর্ষার সময় জোয়ারের পানির তোড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে বসতবাড়ি ও ফসলি জমি। যোগাযোগের একমাত্র চলাচলের সড়কটি পানিতে নিমজ্জিত হয়ে আছে। এই সড়ক দিয়ে স্থানীয় জনসাধারণ নৌকা নিয়ে চলাচল করে আসছে। ফলে ৩৫ হাজার দ্বীপবাসীর দুর্ভোগের শেষ নেই। মাননীয় প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ দৃষ্টির কারনে শাহপরীর দ্বীপের বিলিন হয়ে যাওয়া সড়ক সংস্কারের জন্য গেল বছর ৬৭.৭৮ কোটি টাকার অনুমোদন দিয়েছে জেনে আমরা মহান রবের কাছে শুকরিয়া আদায় এবং দোয়া করছি আল্লাহ তাঁকে নেক হায়াত দান করুক, আমিন।

উল্লেখিত ২০১২ সালের ২২ জুলাই জোয়ারে শাহপরীর দ্বীপ পশ্চিমপাড়া বাঁধ ভেঙ্গে মসজিদসহ কয়েকশ’ বসতভিটা সাগরে বিলীন হয়ে যায়। এ ভাঙ্গন দিয়ে সাগরের পানি প্রবেশ করে লোকালয় গ্রাস করছে। শাহপরীর দ্বীপের একমাত্র সড়কটিও ভেঙ্গে মূল ভূখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে টেকনাফ মূল শহরের সাথে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। বর্তমানে সড়ক ক্ষতবিক্ষত হয়ে পড়েছে। ফলে জনসাধারণ চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। তারা ঝুঁকি নিয়ে বর্ষা মৌসুমে কেনো রকমে নৌকায় করে টেকনাফে আসে। কিন্তু’ শুষ্ক মৌসুমে পানি না থাকায় ওই এলাকার মানুষকে চরম দুভোর্গ পোহাতে হয়। তবে বেঁড়িবাধ দিয়ে শুল্ক মৌসুমে সিএনজি যাতায়াত করলেও সামান্য বৃষ্ঠিতে আবার বন্ধ হয়ে পড়ে।

বিলিন হয়ে যাওয়া গ্রামের অনেক পরিবার বিভিন্ন এলাকায় বসবাস করছে।

সর্বশেষ সংবাদ

টেকনাফে র‌্যাবের হাতে আটক বার্মাইয়া নুর হাফিজ ও সহযোগী সোহেল বন্দুকযুদ্ধে নিহত

টেকনাফে “কামসো মেধা অন্বেষণ’ বৃত্তি পরীক্ষা

‘দৈনিক সংগ্রামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে’

লামা স্বপ্নকানন বিদ্যাপীঠের যাত্রা শুরু

বিএনপিকে কী বার্তা দেবেন খালেদা জিয়া

পতন থেকে বের হতে পারছে না দেশের শেয়ারবাজার

বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

ভারতের নাগরিকত্ব আইন পর্যবেক্ষণ করছে বাংলাদেশ

মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসের কলঙ্কিত দিন আজ

রামুতে ১৫ ডিসেম্বর থেকে ৭ দিনব্যাপি মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা শুরু

টেকনাফে বন্দুকযুদ্ধে দুইজন নিহত

‘রোহিঙ্গা শিশুদের শিক্ষার দায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের’

মুর্শিদাবাদে বিক্ষোভ, রেল স্টেশন ভাঙচুর

ইসলামাবাদে কবরস্থানের সীমানা প্রাচীর ভাংচুর- জনমনে ক্ষোভ

চার শতাধিক অসহায়কে শীতবস্ত্র দিলেন কুতুবদিয়া ইউএনও জিয়াউল হক মীর

চট্টগ্রামে নোয়াখালীর নুরুল আলম ছুরিকাঘাতে নিহত

কালারমারছড়ায় একরে আড়াই কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ মূল্যের দাবিতে সভা

স্বপ্নজালের উদ্যোগে নাজিরারটেকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিষয়ক কর্মশালা

শনিবার শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস

ব্রাজিল্টিনা মিনিবার গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন