রাজারবাগ আক্রমণের মাধ্যমে হায়েনারা এদেশে আঘাত শুরু করেছিল : এড. জহিরুল ইসলাম

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালো রাত্রিতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী রাজারবাগ পুলিশ সদর দপ্তরে ঘুমন্ত অবস্থায় এদেশের পুলিশ বাহিনীকে বর্বরোচিত আক্রমণ করে সর্বপ্রথম আঘাত হেনেছিল। সেই ভয়ংকর আক্রমণ প্রতিরোধ করতে গিয়ে শহীদ হয়েছিল বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর গর্বিত অনেক সদস্য। মুক্তিযুদ্ধের দীর্ঘদিন পর অনেক মুক্তিযুদ্ধা আজ আমাদের মাঝে নেই। আমরা যাঁরা এখনো বেঁচে আছি তাঁরা সকলকে এক সামিয়ানার নীচে এসে জানার ও দেখার সুযোগ করে দিয়েছে, সেই গর্বিত বাহিনীর কক্সবাজার জেলা পুলিশ।

বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে প্রথম দিনে রোববার ১ ডিসেম্বর সকালে কক্সবাজার পুলিশ লাইনে মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রত্যক্ষযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মহান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা, প্রদেশিক পরিষদের সাবেক সদস্য, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবী এডভোকেট জহিরুল ইসলাম একথা বলেন।
কক্সবাজারবাসীর গর্বের ধন এডভোকেট জহিরুল ইসলাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় ৪ নেতা, মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে বলেন, জীবনযুদ্ধে ক্লান্ত, পরিশ্রান্ত মুক্তিযোদ্ধা ভাই বোনদের এ সম্বর্ধনা নতুন করে প্রেরণা ও উৎসাহ যোগাবে। ১৯৭১ সালে জীবনবাজি রেখে হানাদার বাহিনীর সাথে যাঁরা যুদ্ধ করেছিলো, সেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী দল ক্ষমতায় আছে বলে কক্সবাজারে রেললাইন, কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র, অর্থনৈতিক অঞ্চল, মেডিকেল কলেজ সহ বিভিন্ন মেগা প্রকল্পের কাজ চলছে। যা প্রিয় কক্সবাজারকে অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে যাবে। কক্সবাজারের সাবেক জেলা গভর্নর এডভোকেট জহিরুল ইসলাম তাঁর বক্তব্যে, জীবন সায়াহ্নে এসে আপনাদের সকলের সাথে মিলিত হওয়ার সুযোগ করে দেওয়ায় মুক্তিযুদ্ধাদের পক্ষে কক্সবাজার জেলা পুলিশকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন তাঁর বক্তব্যে, মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এবং চেতনা কক্সবাজারের নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, বাংলো, হিলটপ ও হিলডাউন সার্কিট হাউজের প্রবেশপথে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্ভাসিত ম্যুরাল নির্মাণ, বধ্যভূমি সংরক্ষণ সহ জেলা প্রশাসন, কক্সবাজারের বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষকে নতুনভাবে সজ্জিত করে শহীদ এটিএম জাফর আলম সিএসপি’র নামে নামকরণ করা হয়েছে। যিনি মরণোত্তর স্বাধীনতা পদক পেয়েছেন।

জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রদত্ত এই বর্ণাঢ্য সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে পুলিশ সুপার এ.বি.এম মাসুদ হোসেন তাঁর বক্তব্যে, “স্বাধীনতা তুমি স্বপ্নের ভুবন শ্যামল পরিবেশ, স্বাধীনতা তুমি সকলে মিলে সাজাই এই দেশ” কবির এই অমিয়বাণী উল্লেখ করে বলেন, অতীতের কোন সরকার মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানীদের যথার্থ মূল্যায়ন করেনি। অথচ এই বীর সন্তানদের কারণেই জাতি একটি স্বাধীন দেশ, একটি ভূখন্ড, একটি পতাকা পেয়েছে। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসে অবহেলিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বীরোচিত মর্যাদা দিয়েছেন। সর্বক্ষেত্রেই তাঁদের মূল্যায়ন করছে সরকার। আগে তাঁরা সম্পূর্ণ অবহেলিত ছিল। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান প্রদর্শন ও যথাযথ মূল্যায়নের মাধ্যমে জাতি, দেশ ও প্রতিটি নাগরিক আজ গর্ববোধ করছে। একটি স্বাধীন, সার্বভৌম দেশ হিসাবে বিশ্ব পরিমন্ডলে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বেড়েছে।

সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে কক্সবাজার জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন বলেন, প্রত্যক্ষযুদ্ধে অংশগ্রহণ করা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হয়ে কক্সবাজার জেলার জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের সম্বর্ধিত করতে পেরে জেলা পুলিশের একজন সদস্য হিসাবে গর্ববোধ করছি। আজ সবার মাঝে আমার বাবা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা শওকত আলী মাস্টারের প্রতিচ্ছবি দেখতে পাচ্ছি। আজ এই দিনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সান্নিধ্য পেয়ে আমার শ্রদ্ধেয় বাবাকে বেশী বেশী মনে পড়ছে। এডিশনাল এসপি মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন উপস্থিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) রেজওয়ান আহমেদ এর সঞ্চালনায় উক্ত সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার-২ ও ৩ আসনের সংসদ সদস্য যথাক্রমে আশেক উল্লাহ রফিক ও আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল, মহিলা সংসদ সদস্য (সংরক্ষিত আসন) কানিজ ফাতেমা আহমেদ , কক্সবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ চৌধুরী, কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উখিয়া সার্কেল) নিহাদ আদনান তাইয়ান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোঃ আদিবুল ইসলাম, মুক্তিযুদ্ধকালীন কক্সবাজারে জয়বাংলা বাহিনীর প্রধান আলহাজ্ব কামাল হোসেন চৌধুরী, জেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাবেক পৌর চেয়ারম্যান নুরুল আবছার, মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী, মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ শাহজাহান প্রমুখ।

সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে ১৭৬ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যরা, দু’শতাধিক আমন্ত্রিত অতিথি অংশ নেন। অনুষ্ঠানের শুরুতেই বীর মুক্তিযোদ্ধাদের এবং আমন্ত্রিত অতিথিদেরকে কক্সবাজার জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। পরে যাঁদের আত্মত্যাগ ও বীরত্বে আমরা পেয়েছি আমাদের মুক্তি, আমাদের স্বাধীনতার লাল সূর্য এবং যাঁদের বুকের তাজা রক্তের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি একটি লাল-সবুজের পতাকা সেই সকল বীর শহীদদের আত্মার মাগফিরাতের কথা স্মরণ করে অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলে দাঁড়িয়ে ১ মিনিটি নীরবতা পালন করেন। বীর মুক্তিযোদ্ধারা তাঁদের বক্তব্যে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের বেদনাদায়ক করুণ কাহিনী বর্ণনা করেন। সভাপতি এসপি এ.বি.এম মাসুদ হোসেন বিপিএম তাঁর বক্তব্যে, মহান মুক্তিযোদ্ধে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগ ও উদার বীরত্বের জন্য শহীদ মুক্তিযোদ্ধাসহ সকল মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মান ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানান। সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানের শেষে সকলকে মধ্যাহ্নভোজে আপ্যায়িত করা হয়।

 

সর্বশেষ সংবাদ

দ্বীপবাসীর সুবিধার্থে নৌএ্যাম্বুলেন্স চালুর পরিকল্পনা রয়েছে

হোয়ানকে হোপ ফাউন্ডেশনের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প সম্পন্ন

কলাতলী জোন এখন পরিচ্ছন্ন, সবার আরো সহযোগিতা দরকার

ঈদগাহ্ রিপোর্টার্স সোসাইটির শীতবস্ত্র বিতরণ

গর্জনিয়ায় দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা দিলো বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ

ইট ভাটায় মাটি কাটতে কৃষি জমিতে পানি সরবরাহ বন্ধ

উকিল কমিশন যাওয়ার আগেই অর্ধশত বছরের ফোরকানিয়া মাদরাসা নিশ্চিহ্ন

মহেশখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক ত্রুীড়া সাহিত্য-সাংস্কৃতির পুরস্কার

ডা. অনুপম বড়ুয়াকে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ নিয়োগ

কক্সবাজার জেলা পিকআপ ও মিনি ট্রাক চালক সমিতির মিলনমেলা ও বনভোজন অনুষ্ঠিত

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রেসক্লাবের মাসিক সভা

টেকনাফে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস পালিত

ঘরকাটা ইঁদুরেরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে -হাসানুল হক ইনু

কক্সবাজার সাহিত্য একাডেমির সভা

চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায়

নতুন স্বপ্নযাত্রায় জয়ী হতে হবে -পুলিশ সুপার

হাটহাজারীতে ফুলকপি চাষে বাম্পার ফলন

স্থায়ী বাসিন্দার সনদ পাচ্ছে পাহাড়ীরা

কক্সবাজারে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ স্থগিত করেছে হাইকোর্ট

মিয়ানমার থেকে টেকনাফে ফিরেছে ৩২ জেলে