সিবিএন ডেস্ক:
আফ্রিকার দেশ ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব দ্য কঙ্গোর (ডিআর কঙ্গো) পূর্বাঞ্চলীয় বেনি শহরের কাছে নতুন করে হামলা চালিয়েছে বিদ্রোহীরা। বুধবার বিদ্রোহী গোষ্ঠী অ্যালাইড ডেমোক্র্যাটিক ফোর্সের (এডিএফ) সশস্ত্র সদস্যদের চালানো হামলায় নিহত হয়েছে অন্তত ১৯ জন। বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষায় জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের ব্যর্থতা নিয়ে স্থানীয়দের ক্ষোভ বাড়তে থাকার মধ্যে নতুন করে এই হামলার ঘটনা ঘটলো।

গত ২৪ নভেম্বর (রবিবার) রাতে বেনি শহরে বিদ্রোহীদের চালানো হামলায় আট বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হয়। হামলার জন্য এডিএফ দায়ী বলে ধারণার কথা জানায় সেখানকার পুলিশ। ওই ঘটনার পর জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশন হামলা ঠেকাতে ব্যর্থ হয়েছে বলে অভিযোগ তুলে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে সেখানকার বাসিন্দারা। পরদিন ওই শহরে থাকা জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনের কার্যালয়ে হামলা চালায় বিক্ষোভকারীরা। বেশ কয়েকটি কার্যালয় ও গাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার পাশাপাশি লুটপাটও চালানো হয়। হামলার শিকার হয় স্থানীয় মেয়রের কার্যালয়ও। বুধবারও সেখানে বিক্ষোভ চলেছে।

বুধবার বেনি শহর থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে একটি গ্রামে ঢুকে পড়ে এডিএফ সদস্যরা। বেনি অঞ্চলের প্রশাসক ডোনাট কিবওয়ানা বলেছেন, প্রাথমিক অনুসন্ধানে ১৯টি মরদেহ পাওয়া গেছে। এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। নতুন করে হামলার আশঙ্কায় আক্রান্ত পরিবারের সদস্যরা ঘটনাস্থলে ফিরে যেতে ভয় পাচ্ছে। ওই অঞ্চলে সেনা উপস্থিতি বাড়ানো হয়েছে জানিয়ে তিনি বাসিন্দাদের শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।

১৯৯৯ সাল থেকে ডিআর কঙ্গোয় মোতায়েন রয়েছে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশন। বাংলাদেশসহ বহু দেশের সেনা সদস্যদের নিয়ে গঠিত ওই মিশন সেখানে নিয়োজিত রয়েছে। বিশ্বের অন্যতম বড় এই শান্তিরক্ষা মিশনে প্রায় সাড়ে ১৬ হাজার সেনা সদস্য ও পর্যবেক্ষক, ১৩ হাজার পুলিশ ও অন্তত চার হাজার বেসামরিক কর্মকর্তা রয়েছে।

তবে বিক্ষোভকারীরা বলছেন, সরকার ও জাতিসংঘ বাহিনী তাদের সুরক্ষা দিতে ব্যর্থ হয়েছে। জোনাস ক্যামবেলে নামে এক বিক্ষোভকারী বলেন, ‘তাদের (শান্তিরক্ষা মিশন) হয় আমাদের নিরাপত্তা দিতে হবে নয় আমাদের দেশ ত্যাগ করতে হবে। আমরা মারা যাচ্ছি, আর তারা শুধু দেখছে। তারা এখানে আছে কী করতে’?

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •