বাংলা ট্রিবিউন:
ঢাকার পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন জেলাতেও খোলা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি করছে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। টিসিবির এ পেঁয়াজ ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন ডিলাররা। দাম কম হওয়ায় সবখানেই ক্রেতাদের ভিড় দেখা যাচ্ছে। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে তারা পেঁয়াজ কিনছেন। একজন ক্রেতার কাছে এক কেজির বেশি পেঁয়াজ বিক্রি করা হচ্ছে না। টিসিবির এই পেঁয়াজ বিক্রির বিষয়ে বিভিন্ন জেলা থেকে বাংলা ট্রিবিউনের প্রতিনিধিরা বিস্তারিত জানাচ্ছেন।
খুলনা প্রতিনিধি জানান, বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) থেকে খুলনার পাঁচটি পয়েন্টে ৪৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে টিসিবি। টিসিবি সূত্রে জানা গেছে, এ পেঁয়াজ জনপ্রতি এক কেজি কিনতে পারবেন। মহানগরীর টুটপাড়া কবরস্থান মোড় সংলগ্ন, জেলা প্রশাসকের অফিসের সামনে, শান্তিধাম মোড়, ময়লাপোতা মোড় এবং দৌলতপুর ও খালিশপুর এলাকায় এ পেঁয়াজ বিক্রি করা হচ্ছে। খুলনার বিভিন্ন স্থানে এ পেঁয়াজের ক্রেতাদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে।

টিসিবি খুলনা আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান রবিউল মোর্শেদ বলেন, ‘খোলাবাজারে বিক্রির জন্য বুধবার এক ট্রাক পেঁয়াজ খুলনায় পৌঁছেছে। এরপর বৃহস্পতিবার থেকে মহানগরীতে পাঁচটি ট্রাকের মাধ্যমে এ পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করা হয়। টিসিবির এ পেঁয়াজ বিক্রি অব্যাহত থাকবে। বাজার নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত ৪৫ টাকা দরে পেঁয়াজ বিক্রি চলবে।’

টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি প্রসঙ্গে জেলখানা ঘাট এলাকার বাসিন্দা শামসুর রহমান বলেন, ‘খুলনায় ৪৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হওয়ায় নগরবাসীর মাঝে স্বস্তি এসেছে। এ কাজটি আরও আগে করতে পারলে বাজারে পেঁয়াজ নিয়ে নৈরাজ্য সৃষ্টি করতে পারতো না ব্যবসায়ীরা।’

বরিশাল প্রতিনিধি জানান, সকাল ৯টা থেকে লাইন ধরে বরিশাল নগরীর পাঁচটি পয়েন্ট থেকে ৪৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ ক্রয় করছেন নগরবাসী। একজনকে এক কেজি করে পেঁয়াজ দেওয়া হচ্ছে। এজন্য কোনও কোনও পরিবারের তিন থেকে চার সদস্যকে লাইনে দাঁড়িয়ে পেঁয়াজ কিনতে দেখা গেছে। এছাড়া খাবার হোটেলের একাধিক কর্মচারীও লাইন ধরে পেঁয়াজ কিনেছেন মালিকের ব্যবসার সুবিধার জন্য।

বরিশালে ক্রেতাদের দীর্ঘ লাইনবুধবারবার সকাল থেকে জেলা প্রশাসন কার্যালয় সংলগ্ন এলাকা, নগর ভবনের সামনে, জজ কোর্ট চত্বর, চৌমাথা বাজার এবং আমতলার মোড় এলাকায় এ পেঁয়াজ বিক্রি করেছে টিসিবি। কম দামে পেঁয়াজ কিনতে পেরে খুশি ক্রেতারা। এক কেজির বেশি পেঁয়াজ না দেওয়ায় একই পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে এবং নগরীর খাবার হোটেলের কর্মচারীদের লাইন দিয়ে পেঁয়াজ কিনতে দেখা গেছে।

টিসিবি ডিলার মাসুদ রানা জানান, টিসিবি থেকে তাদের এক টন করে পেঁয়াজ দেওয়া হয়েছে। টিসিবি যতদিন সরবরাহ করবে, ততদিন তারা ক্রেতাদের মাঝে ন্যায্য মূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি করবেন। তবে একই পরিবারে একাধিক সদস্য এবং হোটেলের কর্মচারীদের বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে পেঁয়াজ কেনার বিষয়ে তাদের কিছু করার নেই বলে জানান তিনি। তারা মাথাপিছু এক কেজি করে পেঁয়াজ দিচ্ছেন। তবে কেউ একই পয়েন্ট থেকে দুবার নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে না। সে বিষয়টি তারা নজরে রাখছেন।

টিসিবি বরিশালের অফিস প্রধান আনিছুর রহমান জানান, খোলা বাজারে বিক্রির জন্য প্রথম চালানে মিয়ানমার থেকে আমদানি করা ১০ টন পেঁয়াজ বরিশাল এসেছে। আরও পেঁয়াজ আসছে। খোলা বাজারে বিক্রির ফলে পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে আসবে।

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি জানান,মহানগরীর চারটি পয়েন্টে পিকআপের সামনে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে ভোক্তারা পেঁয়াজ কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। সরকারের এই উদ্যোগে খুশি সাধারন মানুষ। ক্রেতারা জানান,আরও কয়েকদিন আাগে থেকে টিসিবির মাধ্যমে খোলা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি করা হলে আকাশচুম্বী দর হতো না।

টিসিবির ডিলারের প্রতিনিধি কামরুল ইসলাম জানান, মিয়ানমার থেকে আমদানি করা এক মেট্রিক টন করে পেঁয়াজ প্রত্যেক ডিলারকে বিক্রির জন্য দেওয়া হয়েছে। সকাল থেকেই ভোক্তার ভিড় বেশি এবং এক কেজি করে তাদের পেঁয়াজ দেওয়া হচ্ছে। তিনি বরাদ্দ বাড়ানোর দাবি করেছেন।

জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমান জানান, বাজার দর নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত পেঁয়াজ বিক্রি চলবে।

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি জানান, বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে ৪৫ টাকা কেজি দরে মৌলভীবাজার শহরে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হয়েছে। শহরের কোর্ট রোড এলাকায় পেঁয়াজ নিয়ে টিসিবির ট্রাক আসা মাত্র ক্রেতাদের ভিড় জমে যায়। কম দামে পেঁয়াজ পেয়ে দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে পেঁয়াজ কিনছেন ক্রেতারা।

খুচরা বাজারে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা প্রতি কেজির বদলে ৪৫ টাকা দরে কিনতে পেরে আনন্দিত ক্রেতারা। এ কার্যক্রম অব্যাহত রাখার দাবি তাদের।

টিসিবির পরিবেশক তাজ এন্টারপ্রাইজের মোস্তফা মিয়া জানান, বৃহস্পতিবার দুটি ট্রাকে দুই হাজার কেজি পেঁয়াজ বিক্রি করা হয়েছে। একজন ক্রেতা এক কেজি পেঁয়াজ কিনতে পারবেন। সরবরাহ যতদিন থাকবে শুক্রবার ছাড়া সপ্তাহে ছয় দিন পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে।

শহরের কোর্ট রোডের শহীদ মিনার সংলগ্ন এবং কোর্ট এলাকায় দুটি ট্রাকে পেঁয়াজ বিক্রি করা হয়েছে।

টিসিবি মৌলভীবাজারের শেরপুরে আঞ্চলিক কার্যালয়ের পরিচালক মো. ইসমাঈল মজুমদার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মৌলভীবাজারে দুজন ডিলারের মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হয়েছে। আপাতত সপ্তাহে দুদিন পেঁয়াজ বিক্রি হবে। কারণ বর্তমানে পেঁয়াজ নেই, পেঁয়াজ তিন-চার দিন পর আসলে সপ্তাহে ছয় দিন বিক্রি হবে।’

অপরদিকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে থেকে পেঁয়াজ ক্রেতা সুমন দেব ও রিপন মিয়া জানান,পেঁয়াজ তুলনামূলক ভালো না। তারপরও ৪৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ খুবই খুশি।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •