লবণের দাম বৃদ্ধির ‘তুঘলকি কান্ড’ দেশজুড়ে চলছে এ্যাকশন

শাহেদ মিজান, সিবিএন:

পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির ধকল কাটতে না কাটতেই দেশের বিভিন্ন স্থানে লবণের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির চেষ্টা করছে একটি চক্র। এই চক্রটি কৃত্রিম সংকটের দোহাই তুলে উচ্চতর দাম বাড়ানোর চেষ্টা করছে। এক্ষেত্রে তিন দিনেরও জন্য সফলও হয়েছে। ১৬, ১৭ ও ১৮ নভেম্বর আকস্মিক সংকটের গুজব ছড়িয়ে ওই ৩০ টাকা লবণের প্যাকেট ১১০ থেকে ১২০ টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নিয়েছে। এর প্রভাবে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে তাই লবণ কিনতে মানুষের ভিড় বেড়েছে। লবণ কেনার ধুম পড়েছে, চলছে এক হুলুস্থুল কান্ড। আর এতে তৈরি হচ্ছে নানা বিশৃঙ্খলা। তবে এর মধ্যে এ্যাকশন শুরু করেছে সরকার। সারাদেশে ভ্রাম্যমান আদালত দিয়ে অভিযান চালিয়ে দায়ীদের শাস্তি দেয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, গত তিন থেকে চার ধরে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হঠাৎ প্যাকেটজাত লবণের দাম বাড়িয়ে ব্যবসায়ীরা। কারণ হিসেবে লবণ সংকটের কথা বলে। এভাবে আকস্মিক কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে এক লাফে ৩০ টাকার কেজি প্যাকেট লবণ বিক্রি করে ১১০ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত। শুধু তাই নয়; আরো অনেক দাম বাড়ার গুজব ছড়ানো হয়। এই পরিস্থিতি ১১০ থেকে ১৫০ টাকা মূল্য দিয়ে ক্রেতারা মজুদের জন্য অগ্রিমও লবণ কিনতে শুরু করে। বিষয়টি দুদিন পরে গণমাধ্যমের নজরে আসে। এই নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হলেও নড়েচড়ে বসে সরকার। কারণ বাংলাদেশ একমাত্র লবণ উৎপানকারী জেলা কক্সবাজারে পড়ে রয়েছে বিপুল পরিমাণ লবণ। এসব লবণ দিয়ে আরো দুই মাস চালানো যাবে। ফলে নজরে আসা মাত্র সরকার প্রশাসনিক অ্যাকশন শুরু করে। সারা দেশে একযোগে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে কৃত্রিম দাম বৃদ্ধির কারসাজির সাথে জড়িতের খুঁজে খুঁজে জেল-জরিমানা করছে।

এদিকে কক্সবাজারে লবণ সংশ্লিষ্টরাও বলছেন, দেশে পাইকারী লবণের দাম স্বাভাবিক রয়েছে। লবণেরও কোন ধরনের ঘাটতি নাই। বর্তমান যে পরিমাণ লবণ উদ্বৃত্ত রয়েছে তা দিয়ে আরো অন্তত দুই মাস চলবে। একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী লবণের সংকট দেখিয়ে দাম বৃদ্ধির অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। ইতিমধ্যে একটা কুচক্রিমহল লবণের কেজি ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বলে অপপ্রচার চালিয়েছে। তারা মূলত এ শিল্পকে ধ্বংস করতে চাচ্ছে। অপপ্রচারকারীদের চিহ্নিত করে দ্রæত আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে।
তারা জানান, দেশের বাজারে লবণের কোন সংকট নেই। অথচ সোমবার (১৮ নভেম্বর) সন্ধ্যা রাতে এই লবণ নিয়ে ঘটে গেছে তুঘলকি কান্ড। সিলেট বিভাগজুড়েই একটি অসাধু ব্যবসায়ী চক্র অসৎ উদ্দেশ্যে গুজব ছড়িয়ে ফায়দা লুটার চেষ্টা করছে। সাধারণ মানুষকে বোকা বানিয়ে ফায়দা লুটছে একটি চক্র। তবে রাতেই ওই চক্রকে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। সাধারণ ক্রেতাদের বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানানো হয়েছে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে। মাঠে ও মিলে পড়ে রয়েছে অন্তত ৬ লাখ মেট্রিকটন অবিক্রিত লবণ। কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে কালো বাজারিদের লবণ আমদানির কারণে দেশীয় লবণ খাত মাথা উচু করে দাঁড়াতে পারছে না। পিছিয়ে যাচ্ছে দেশের এই গুরুত্বপূর্ণ খাত। চলমান দরপতন অব্যাহত থাকলে লবণশিল্পকে রক্ষা সম্ভব হবে না। লবণ মিল মালিক, ব্যবসায়ী, চাষিসহ সংশ্লিষ্টদের দাবী, দেশীয় লবণশিল্প বাঁচাতে সমস্ত লবণ আমদানি বন্ধ করতে হবে। ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে না পারলে মাঠে ফেরানো যাবেনা চাষিদের। পরনির্ভর হবে দেশ। বাড়বে বেকারত্ব।

লবণ মিল মালিকদের একটি সুত্র জানায়, অপরিশোধিত লবণ পরিশোধিত তথা খাবার উপযুক্ত ও বাজারজাত করতে কেজিতে সর্বোচ্চ ১ থেকে দেড় টাকা খরচ পড়বে। সে হিসেবে এক কেজি লবণের দাম হওয়ার কথা সাড়ে ৫ টাকার নীচে। কিন্তু বাজারে ভোক্তারা কিনছে প্রায় ৪০ টাকা। লবণ চাষিদের অবহেলা, রাঘববোয়াল ও শিল্প কারখানার মালিকদের প্রতি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ‘দরদি মনোভাব’-এর কারণে এমনটি হচ্ছে বলে ধারণা সাধারণ মানুষের।

নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু হয়েছে লবণের মৌসুম। ইতোমধ্যে উপকূলীয় এলাকাগুলোতে লবণ উৎপাদন হচ্ছে। গেল মৌসুমেও অন্তত ৬ লাখ মে.টন লবণ উদ্বৃত্ত ছিল। সব মিলিয়ে দেশে কোন সংকট পড়বে না লবণের।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) কক্সবাজারের লবণ শিল্প উন্নয়ন প্রকল্প কার্যালয় সূত্র জানায়, ২০১৯-২০ মৌসুমে বিসিকের চাহিদা ১৮ লাখ ৪৯ হাজার মে.টন। লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৮ লাখ ৫০ হাজার মে.টন। ২০১৮-১৯ মৌসুমে কক্সবাজার জেলায় উৎপাদনযোগ্য লবণ জমির পরিমাণ ছিল ৬০ হাজার ৫৯৬ একর। চাষির সংখ্যা ২৯ হাজার ২৮৭ জন। এই মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৮ লাখ মে. টন। বিপরীতে উৎপাদন হয়েছে ১৮ লাখ ২৪ হাজার মে.টন। যা বিগত ৫৮ বছরের লবণ উৎপাদনের রেকর্ড ছাড়িয়েছে।

 

সর্বশেষ সংবাদ

পেকুয়ায় তাফসীরুল কোরআন মাহফিল, দুইজনের ইসলাম গ্রহণ

আমরা চাঁদাবাজ-দুর্নীতিমুক্ত নেতা নির্বাচন করব -ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ

মহেশখালী হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

গোমাতলীর হাজী ফজলের ইন্তেকাল, বাদ আছর জানাজা

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বাড়ছে অপরাধ, মারধরে গুরুতর আহত রোহিঙ্গা দম্পতি

চট্টগ্রাম শাহ আমানতে ২১৬ কার্টন সিগারেটসহ যাত্রী আটক

এস.কে ইন্টারন্যাশনাল গ্রামার স্কুলে শিক্ষক আবশ্যক

কাশ্মীরের মানুষের হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট বাতিল

‌ হয়ে গেল সৃ‌জিত-‌মি‌থিলার বিয়ে

অমুসলিমরা ভারতে ৫ বছর থাকলেই নাগরিকত্ব

পুঁজিবাদ : আজকের দুনিয়ার অধিকাংশ সমস্যার মূল উৎস

কক্সবাজার জেলার এসএসসি ৯৭ ব্যাচ এর মতবিনিময় সভা

কক্সবাজারে বেড়েই চলছে বাড়ি ভাড়া, নেই কোনও তদারকি

কুড়িয়ে পাওয়া মোবাইলের মালিক খোঁজে অস্থির যে হকার!

পেঁয়াজ সিন্ডিকেটের অনিয়ম কারসাজি প্রমাণিত হলে কঠোর ব্যবস্থা : এডিএম

দুর্নীতিমুক্ত ও আন্তরিকতার সহিত সেবা দিয়ে যাচ্ছি : এ.ডি আবু নাঈম

রাতের বেলায় শীতার্তদের খোঁজে জেলা প্রশাসক, নিজের হাতে পরিয়ে দিলেন শীতবস্ত্র

জমকালো আয়োজনে ০৭০৯’র কক্সিয়ান মিলন মেলা অনুষ্ঠিত

নতুন অফিস ব্লাড ডোনার’স সোসাইটির ফুটবল টুর্ণামেন্টের ২য় সেমিফাইনাল

চকরিয়ায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি মেধাবৃত্তি পেল ৭৯ শিক্ষার্থী