মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

উখিয়া উপজেলার রত্নাপালং ইউনিয়নের পূর্ব রত্নাপালং বড়ুয়া পাড়ায় গত ২৫ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত্রে সংগঠিত চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ডে নিহত ৪ জনের অভিভাবক রোকেন বড়ুয়া আপাতত বিয়ে করছেননা। নতুন করে বিয়ে করতে যাচ্ছেন কিনা-এমন প্রশ্নের জবাবে রোকেন বড়ুয়া সিবিএন-কে বলেন, আপাতত বিয়ে করার কোন চিন্তা করছি না। মামলার প্রকৃত খুনীরা সনাক্ত হলে হয়ত বিয়ে এবং কুয়েত যাওয়ার চিন্তা করবো। জরুরী প্রয়োজনে কুয়েত যেতে হলেও খুব অল্প সময়ের জন্য গিয়ে আবার দেশে চলে আসবো। আপনার নিহত স্ত্রী মিলা বড়ুয়া’র কথা কি আপনার মনে পড়ে কিনা-এ প্রশ্নের জবাবে রোকেন বড়ুয়া সিবিএন-কে বলেন-আমার স্ত্রী মিলা বড়ুয়া একজন সুদর্শনা, সংরক্ষণশীল মেয়ে ছিলো। তাকে, আমার মাকে, আমার পুত্র রবিনকে আমি জীবনেও ভুলতে পারবোনা। আপনিতো তো পরিবারের সবাইকে হারিয়ে এখন নিঃসঙ্গ হয়ে পড়েছেন, সংসার কিভাবে চালাবেন অথবা বিদেশ গেলে বাড়িতে কাকে রেখে যাবেন এই প্রশ্নের উত্তরে রোকেন বড়ুয়া একটু থেমে বলেন, সংসার আর ভালো লাগছেনা। সময়ে যদি বাধ্য করে, সংসারে যদি সংকট দেখা দেয়, তাহলে হয়ত চিন্তা করে দেখবো, কি করা যায়।
উল্লেখ্য, স্বজনহারা রোকেন বড়ুয়া বিয়ে করছেন বলে গত ১০/১২ দিন উখিয়াতে চাউর হয়ে যায়।

উখিয়া উপজেলার রত্নাপালং ইউনিয়নের পূর্ব রত্নাপালং বড়ুয়া পাড়ায় প্রবাসী রোকেন বড়ুয়ার বাড়ীতে গত ২৫ সেপ্টেম্বর বুধবার দিবাগত রাত্রে রোকন বড়ুয়ার মা সুখী বালা বড়ুয়া (৬৫), সহধর্মিণী মিলা বড়ুয়া (২৫), একমাত্র পুত্র রবিন বড়ুয়া (৫) ও ভাইজি সনি বড়ুয়া (৬)কে কে বা কারা জবাই করে হত্যা করে। এরমধ্যে, নিহত রবিন বড়ুয়া রুমখা সয়েরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক প্রাথমিক শ্রেণির ছাত্র ছিলো।
এবিষয়ে ২৬ সেপ্টেম্বর উখিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নম্বর ৪৭/২০১৯, যার জিআর মামলা নম্বর : ৪৭৮/২০১৯ (উখিয়া) ধারা : ফৌজদারি দন্ড বিধি : ৩০২ ও ৩৪। মামলায় নিহত মিলা বড়ুয়ার পিতা ও রোকেন বড়ুয়ার শ্বশুর শশাংক বড়ুয়া বাদী হয়েছেন। মামলার এজাহারে সুনির্দিষ্ট কাউকে আসামী করা হয়নি, আসামী অজ্ঞাত হিসাবে এজাহারে উল্লেখ রয়েছে।
প্রসংগত, গত ২৫ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাতে ৪ জনকে জবাই করে হত্যার ঘটনায় ২ জনকে কক্সবাজার জেলা পুলিশ সন্দেহজনকভাবে গত ৯ অক্টোবর গ্রেফতার করে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো-শিপু বড়ুয়ার স্ত্রী রিপু বড়ুয়া (২৮) ও অপরজন হলো রোমেল বড়ুয়ার পুত্র উজ্জ্বল বড়ুয়া (২৪)। গ্রেপ্তারকৃত ২ জনই রোকেন বড়ুয়ার নিকটাত্মীয়। তারমধ্যে, রিপু বড়ুয়া হচ্ছে-প্রবাসী স্বজনহারা রোকেন বড়ুয়ার সেজ ভাই শিপু বড়ুয়ার স্ত্রী এবং ফোর মার্ডারে নিহত সনী বড়ুয়ার (৬) মা। অপর আসামি হলো রোকেন বড়ুয়ার ভাগ্নি জামাই উজ্জ্বল বড়ুয়া। উজ্জ্বল বড়ুয়ার বাড়ি রামু উপজেলার রাজারকুল ইউনিয়নের রামকোট এলাকায় অবস্থিত। উজ্জ্বল বড়ুয়াকে গত মঙ্গলবার ৮ অক্টোবর দিবাগত রাত সাড়ে ১০ টার দিকে তার শ্বশুরবাড়ি উখিয়া উপজেলার কুতুপালং থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। একই সময়ে রিপু বড়ুয়াকে তার স্বামীর বাড়ি পূর্ব রত্নাপালং এর বড়ুয়া পাড়া থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ হত্যাকান্ডের তদন্তকাজ আরো জোরদার করে খুনীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবীতে শুক্রবার ১৫ নভেম্বর বিকেলে উখিয়ার কোর্ট বাজারে সম্মিলিত উখিয়াবাসীর ব্যানারে বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •