আবদুর রশিদ, নাইক্ষ্যংছড়ি:
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের ছাদোঅং মার্মা পাড়া সংলগ্ন ধাবনখালী ছড়ার উপর একটি ব্রীজ নির্মান হলে পাল্টে যাবে কয়েকটি গ্রামের জীবন চিত্র।
বর্তমানে ঝুকিপুর্ন যে পায়ে চলাচলের ছোট ব্রীজটি রয়েছে তাহাও যে কোন মুহুর্তে ধ্বসে বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশংকা রয়েছে।
স্থানীয় ছাদোঅং মার্মা পাড়ার বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা বাবু ধুংছাই মারমা জানান এই ব্রীজটি দীর্ঘকাল যাবৎ ঝুকিপুর্ন অবস্থায় রয়েছে। প্রতিদিন এই ব্রীজ দিয়ে শত শত পাহাড়ী বাংগালীর পারাপার করে ক্ষেত খামার, চাষাবাদ, রাবার বগান,ও কয়েকটি গ্রামে চলাচল করে থাকে। পাশাপাশি স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা ও পারাপার করে থাকে। বর্তমানে ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় দূর্ঘটনার আশংকা রয়েছে।
স্থানীয় বাসিন্দা শফিউল আলম জানান ঝুঁকিপূর্ণ ব্রীজটি দীর্ঘদিন এ অবস্থায় রয়েছে। তাছাড়া ব্রীজটি পায়ে চলাচল ছাড়া আর কিছুই সম্ভব নয়। কোন প্রকার যানবাহন ও চলাচল করতে পারেনা। যার ফলে কয়েক গ্রামের হাজারো মানুষের চরম দূর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।
সরজমিনে দেখা যায় দীর্ঘকাল যাবৎ ব্রীজটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এরই উপর দিয়ে পারা পার করছে মানুষ, গরু,ছাগল, পাহাড়ে উৎপাদিত পন্য সামগ্রী।
বর্ষা মৌসুমে পাহাড়ী ছড়াটি খরস্রোতে পরিনত হয়। পারাপার হওয়ার সময় ভেসে যায় দ্রব্যসামগ্রীর পাশাপাশি গরু,ছাগল ও। ব্রীজটির ওপারে রয়েছে ৩ টি গ্রাম, কয়েকশত একর আবাদি জমি, রাবার বাগান, বিভিন্ন ফলজ ও বনজ বাগান। দৈনিক যাতায়াতকারী ও খুব বেশী।
ধাবন খালীর এই ছড়াটি বর্ষা মৌসুমে পাহাড়ী ঢলের পানি, আর শুকনো মৌসুমে বোরো আবাদের জন্য বাধ দিয়ে থাকে কৃষকেরা যার ফলে চরম দুর্ভোগ জনসাধারনের।
তাই ব্রীজটি নির্মান হলে দূঃখ দূর্দশা থেকে মুক্তিপাবে হাজারো মানুষ।
এবিষয়ে ইউপি মোঃ,আলম কোম্পানি বলেন, ধাবনখালি ছড়ার উপর ব্রীজ নির্মানের ব্যাপারে তিনি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে ইতিমধ্যে অবগত করেছেন।
আগামী বরাদ্বে উক্তস্থানে একটি পি আই ও ব্রীজ নির্মানের পরিকল্পনা রয়েছে।
স্থানীয়রা ব্রীজটি নির্মানের জন্য জেলা প্রশাসক সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •