সিবিএন ডেস্ক:
ইরানের বিশিষ্ট আলেম আয়াতুল্লাহ মোওয়াহ্‌হেদি কেরমানি বলেছেন, মার্কিন সরকার ১৬ বছর ধরে প্রতিদিন ইরাকের দশ লাখ ব্যারেলেরও বেশি জ্বালানি তেল যুদ্ধের ক্ষতিপূরণের নামে লুট করছে। এমনকি ইরানের অর্থনৈতিক সংকটের অন্যতম প্রধান কারণ হিসেবেও তিনি যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করেন।

আয়াতুল্লাহ মোওয়াহ্‌হেদি কেরমানি শুক্রবার তেহরানের জুমা নামাজের খুতবায় এসব তথ্য জানান। ইরানি সংবাদমাধ্যম পার্স টুডে এ খবর জানিয়েছে।

তেহরানের জুমা নামাজের অস্থায়ী এই খতিব জানান, শত্রুরা এ অঞ্চলের দেশগুলোতে গণআন্দোলনের নামে দাঙ্গা-হাঙ্গামা বাঁধিয়ে এর অপব্যবহারের চেষ্টা করছে। এ প্রসঙ্গে আয়াতুল্লাহ মোওয়াহ্‌হেদি কেরমানি দাবি করেন, ইরাকে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত প্রকাশ্যেই সহিংসতাকে মদদ দিচ্ছেন এবং সহিংসতা নিয়ন্ত্রণ না করতে ইরাকি পুলিশ বাহিনীর প্রতি আবেদন জানাচ্ছেন।

ইরানি এই আলেম আরো বলেন, ‘পশ্চিমাদের মদদপুষ্ট কোনো কোনো রাজনৈতিক গোষ্ঠি কারবালা ও বসরায় অপরাধযজ্ঞ চালিয়েছে। ইরাকের জনগণের উচিত এই অপরাধীদের থেকে দূরে থাকা।’

ইরাকে সংকট সমাধানে বৈধ পন্থার আশ্রয় নেওয়ার ওপর গুরুত্ব দিয়ে আয়াতুল্লাহ মোওয়াহ্‌হেদি কেরমানি জানান, ইরাকের জনগণ ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ ও বৈধ সরকারের তত্ত্বাবধানে সমস্যাগুলো সমাধান করতে সক্ষম।

এ ছাড়া লেবাননের সাম্প্রতিক ঘটনা প্রসঙ্গে আয়াতুল্লাহ মোওয়াহ্‌হেদি কেরমানি বলেন, জনগণের জীবন-যাত্রা ও রুটি-রুজির সমস্যার প্রতি সরকারের উদাসীনতাই লেবাননের গণবিক্ষোভের মূল কারণ।

তিনি বলেন, ‘লেবাননের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ থেকে বোঝা যায় দেশটির কোনো কোনো রাজনৈতিক গোষ্ঠি ইসরায়েল, মার্কিন ও কোনো কোনো আরব শাসকগোষ্ঠির স্বার্থকে জনগণের স্বার্থের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •