পেকুয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের জালিয়াকাটা এলাকার বাদশা মিয়ার মেয়ে হাজেরা বেগম (২০)।

দুই বছর অাগে বিয়ে হয় পেকুয়া সদর ইউনিয়নের বকসু চকিদার পাড়ার অাবদু রহিমের ছেলে মুহাম্মদ খোকনের সাথে।

শনিবার (২৬অক্টোবর) দুপুরে রিক্সা চালক স্বামী ও তার পরিবারের লোকজনের মারধরের অপমান সইতে না পেরে অাত্মহত্যা করেন।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, স্বামীর কাছ থেকে খরচের টাকা খোঁজেন স্ত্রী হাজেরা বেগম। টাকা না দেওয়ায় স্বামীর সাথে বাকবিতন্ডা হয়। একপর্যায়ে স্বামী মারধর করেন স্ত্রীকে।

মারধরের অপমান সইতে না পেরে গলায় গামছা পেঁচিয়ে অাত্মহত্যা করলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করেন। পরে পুলিশে খবর দেন। পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।তবে মেয়ের পিতার দাবী তাকে হত্যা করা হয়েছ।

মেয়ের পিতা বাদশা মিয়া বলেন, অামার মেয়েকে মারধর করেছে স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন। মারধরে গুরুতর অাহত হলে তারাই মেয়েকে হাসপাতালে নিয়ে অাসেন। চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করলে স্বামী ও অাত্বীয় স্বজন সবার অগোচরে তাকে বাড়িতে নিয়ে গলায় গামছা পেঁচিয়ে ঝুলিয়ে রাখে। নাটক করতে স্থানীয়দের ডেকে অানেন তারা। অামরা বিষয়টি প্রশাসনকে অবগত করেছি এবং মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

এদিকে স্ত্রী মারা যাওয়ার পর স্বামী ও তার পিতাসহ অাত্বীয় স্বজন বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েও তাদের কাউকে পায়নি।

পেকুয়া থানার ওসি কামরুল অাজম বলেন, পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। যেহেতু স্বামীর পরিবার পালিয়ে গেছে তাই মামলাটি গভীরভাবে তদন্ত করা হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •