ইফতেখার শাহজীদ, কুতুবদিয়া :

কুতুবদিয়ায় আদালতের আদেশ অমান্য করে এক অসহায় পরিবারের জমি জোর পূর্বক দখলে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে আবদুল করিম প্রকাশ আবদুল্লাহ নামে এক প্রভাবশালী ভুমিদস্যুর বিরুদ্ধে। দখলবাজির এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে। ফলে যে কোন মুহুর্তে সংঘাতের ঘটনা ঘটতে পারে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

জানা গেছে, বড়ঘোপ ইউনিয়নের দক্ষিণ আমজাখালী (৪নং ওয়ার্ড) গ্রামের আলী আহমদের মৃত্যুর পর তার ছেলে নুর কালাম ও ৬ ভাইবোন মিলে পৈত্রিক সূত্রে বি,এস ৭৬৬৮ দাগের বি,এস ৪৯৫ নং খতিয়ানের ০৮ শতক জমি পেয়েছে। অসহায় এ পরিবারটি টাকার অভাবে জমির সংস্কার কাজ করতে পারেনি। রাস্তার পার্শ্ববর্তী হওয়ায় একই এলাকার মৃত আবুল কাশেমের ছেলে আবদুল করিম প্রকাশ আবদুল্লাহর লোলুপ দৃষ্টি পড়ে ওই জমিতে।

এ পরিবারের অসহায়ত্বের সুযোগে নামমাত্র ভাড়ার মৌখিক চুক্তিতে ৬ টি আধাপাকা দোকান ঘর নির্মাণ করেন আবদুল্লাহ। ভাড়ার টাকায় সাচ্ছন্দে চলছিল দিনমজুর নুর কালামের সংসার। এরই ফাঁকে একসময় ওই জমির ভুঁয়া কাগজপত্র তৈরি করে নেন আবদুল্লাহ।

মাস শেষে নুর কালাম ভাড়া চাইতে গেলে টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানান। দাবী করেন এ জমি তিনি ভাড়া নেননি বরং কিনেই দখলে নিয়েছেন। মিথ্যা তথ্য দিয়ে জমির প্রকৃত মালিক নুর কালাম গংদের বিবাদী করে কক্সবাজার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১৪৪ ধারায় একটি মামলা (মামলা নং এম আর ৩০৭/২০১৮) দায়ের করেন। এরই ধারাবাহিকতায় কুতুবদিয়া থানার তৎকালীন এ.এস.আই জাহেদুল আলমের মাধ্যমে বিবাদীদের কাছে নোটিশ পাঠান। কোন প্রকার মালিকানা বা জমির আশা ছেড়ে না দিলে এম আর মামলাসহ বিভিন্ন জটিল মামলায় ফাঁসিয়ে দেবেন বলে জঘন্যভাবে হুমকিও দেন আবদুল্লাহ।

এ নিয়ে গেল বছর দু‘পক্ষের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ বাঁধে। এতে নুর কালামের বোন সোফাইদা গুরুতর আহত হয়। এ ঘটনায় আবদুল্লাহকে আসামী করে কুতুবদিয়া জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা (মামলা নং-সি আর ১৫৮/২০১৮) রুজু হয়। মামলাটিতে তার বিরুদ্ধে দন্ডবিধি ৩২৪ ধারায় অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত গত ৭ এপ্রিল ৩ বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত করেন। কিছুদিন কারাভোগের পর উচ্চ আদালতে আপিল করে জামিনে মুক্ত হন আবদুল্লাহ।

এদিকে জমি ফেরত পেতে নুর কালাম গং বাদী হয়ে কক্সবাজার সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে আবদুল করিম প্রকাশ আবদুল্লাহর বিরুদ্ধে দেওয়ানী কার্যবিধি আইনের অর্ডার ৩৯ রুল ১/২ ও ১৫১ ধারা মতে একটি মামলা (মামলা নং-২৯/২০১৮) রুজু করেন। এর প্রেক্ষিতে আদালত গত ৯ সেপ্টেম্বর ন্যায় বিচারের স্বার্থে মুল মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত দখলবাজ আবদুল্লাহকে ওই জমিতে নির্মিত দোকানঘর জোর পূর্বক দখল ও ভাড়া আদায় না করতে আদেশ দেন।

প্রতিপক্ষ প্রভাবশালী হওয়ায় আদালতের আদেশ থাকা সত্ত্বেও এখনো জমি ফেরত পায়নি অসহায় নুর কালামের পরিবার। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তভোগী ও দ্বীপের সচেতন মহল।