সিবিএন ডেস্ক :

১৫ অক্টোবর দুপুরে গুলশানের আমিশে জুয়েলারি শপ-এ মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশের ক্রাউন উন্মোচন করা হয়েছে। এটি করেন আয়োজনটির বিচারক তাহসান খান, কানিজ আলমাস, আমিশের বিজনেস প্রধান রোকেয়া সুলতানা, মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশের চেয়ারম্যান রিজওয়ান বিন ফারুক। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন এবারের শীর্ষ ১০ প্রতিযোগী।
আয়োজক সূত্রে জানা গেছে, এই মুকুট ৭৫০টি হীরাখচিত আছে। এ কারণে এর বাজারমূল্য আনুমানিক ২০ লাখ টাকা। শৈল্পিক এই ক্রাউনটি তৈরি করেছে আমিশে।


ক্রাউন উন্মোচন অনুষ্ঠানে আয়োজক ও সেরা ১০ প্রতিযোগী

আগামী ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে প্রথম মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশের সুন্দরী প্রতিযোগিতার গ্র্যান্ড ফিনালে।

বিজয়ীকে ক্রাউন পরিয়ে দেবেন ১৯৯৪ এর মিস ইউনিভার্স বিজয়ী ও বলিউড অভিনেত্রী সুস্মিতা সেন।
এটি অনুষ্ঠিত হবে বসুন্ধরা আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে।
‘মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ’ প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান রেজওয়ান বিন ফারুক বলেন, ‘আয়োজনের দিন সকালে ঢাকায় এসে পৌঁছাবেন সুস্মিতা সেন। আমরা খুব চমৎকারভাবে এই অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য সব রকম চেষ্টা করব।’

এদিকে, নানা নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে ২০১৭ সালের মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ হিসেবে জেসিয়া ইসলামের নাম ঘোষণা করা হয়েছিল। এরপর ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে চীনে যান তিনি।
মজার বিষয় হলো, এবার মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ-২০১৯ প্রতিযোগিতাতেও আছেন জেসিয়া। প্রায় দেড় হাজার প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে তিনি এখন অবস্থান করছেন শীর্ষ ১০-এ।
বিষয়টি বাংলা গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ।
অন্য প্রতিযোগীদের মধ্যে আছেন শিরিন শিলা, তামান্না ইশরাত সোহানী, মারিয়া মুমু, সানোয়ার তায়েফা, আফলা আরমান, ইরানা ইশরাত, স্মৃতি আকতার, আলিশা ইসলাম ও তোশিবা আনিতা ইসলাম।
আয়োজকদের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘কেউ অন্য প্রতিযোগিতায় অংশ নিলেও মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশে অংশ নিতে বাধা নেই। জেসিয়া স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় নিবন্ধন করে এতে অংশ নেন। আর বিষয়টি আমরা জানতে পারি সেরা ৫০ জনের তালিকা হওয়ার পর। তারপর তিনি সেরা ১০-এ স্থান করে নিয়েছেন নিজ যোগ্যতায়। তবে সেরা হওয়ার জন্য এখনও অনেক পথ বাকি আছে। দেখা যাক কী হয়।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •