মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু, নাইক্ষ্যংছড়ি
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা সদর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে অবস্থিত রূপনগর মসজিদে দীর্ঘদিন পর প্রথম জুমার খুৎবা ও নামাজ আদায়ে অবশেষে গ্রামবাসীর স্বপ্ন পূরণ হলো। শুক্রবার (৪ আগষ্ট) প্রথম জুমার নামায আদয় করেন কয়েকশ মুসল্লি। তাই দীর্ঘদিন পরে এ মসজিদটি জামে মসজিদে রূপান্তরিত হল।

জুমার নামাজের পূর্বে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় প্রধান অথিতির বক্তব্যে নাইক্ষ্যংছড়ি সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ ও.আ.ম. রফিকুল ইসলাম বলেন, নিজের ছেলে-মেয়েকে উচ্চ শিক্ষার পাশাপাশি দ্বীনি শিক্ষা দিয়ে নামাজ পড়ার তাগিদ দিন। তাহলে ইহকাল ও পরকালের মঙ্গল হবে। পাশাপাশি আলোকিত হবে সমাজ। তিনি আরো বলেন আপনার সন্তান দৈনিক কয় ঘন্টা লেখা পড়া করছে আর কয় ঘন্টা ঘুরাফেরা করছে সেদিকে আপনাদের খেয়াল রাখতে হবে। নাহলে তাদের কাছে ভাল কিছু আশা করা সম্ভব নয়।

মসজিদের সভাপতি ও কচ্ছপিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু মোঃ ইসমাঈল নোমান বলেন, হাটি হাটি পা পা করে রূপনগর গ্রামের এ মসজিদটি প্রায় পঁয়তাল্লিশ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়। আজ প্রথম জুমার নামাজ শুরু হওয়ায় মহল্লাবাসীর স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। তবে সকলের প্রচেষ্টায় এটি করা সম্ভব হয়েছে। তিনি হাজী নুর আহমদ সহ এলাকার মুরব্বীদের মসজিদ নির্মাণে সহযোগীতা ও রক্ষণাবেক্ষনায় যারা অবদান রেখেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তাদের জন্য দোয়া কামনা করেন। এসময় তিনি এলাকাবাসীর আন্তরিকতায় আগামীতে কবরস্থান, হাফেজ খানা ও এতিমখানা চালু করার ঘোষণা দেন।

অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ ইকবাল, নাইক্ষ্যংছড়ি মদিনাতুল উলুম মডেল ইনঃ আলিম মাদরাসার আরবী প্রভাষক মৌলানা আবু বক্কর ছিদ্দিক, মসজিদ পরিচলানা কমিটির সেক্রেটারী আলহাজ্ব আবু তাহের কোম্পানী, এলাকার প্রবীণ মুরব্বী হাজী নুর আহমদ, সহ- সভপতি আব্দুল, কায়েম, নুরুল কবির, এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

প্রথম খুৎবা ও আলোচনা করেন, অত্র মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা নুরুল আমিন। নামাজে ইমামতি করেন বিশিষ্ট আলেমেদ্বীন হযরত মাওলানা আব্দুর রহিম। জুমার নামায শেষে মুসল্লিদের মাঝে মিষ্টি বিতরন করা হয়।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •