এম বশির উল্লাহ, মহেশখালী:

কক্সবাজারের মহেশখালী বনবিভাগের আওতাধীন শাপলাপুর বনবিটের অধীনস্থ বাগান থেকে সংঘবদ্ধ কাঠ চোররা ৭৬টি গর্জন গাছ কেটে নিয়ে গেছে। এঘটনাটি ঘটেছে গত ২৭ সেপ্টেম্বর রাতে বারিয়াছড়িস্থ এনামুল হক চৌধুরীর বাড়ীর পশ্চিমে ।

জানা যায়, শাপলাপুর বন বিটের অধীনস্থ বারিয়াছড়ি এনামুল হক চৌধুরীর বাড়ির পশ্চিমে রয়েছে গর্জন বাগান সহ বিভিন্ন প্রজাতির বাগান। এলাকার সংঘবদ্ধ কাঠচোররা বন বিভাগের সাথে আঁতাত করে গত ২৭ সেপ্টেম্বর মাঝারি সাইজের ৭৬টি গর্জন গাছ কেটে নিয়ে গেছে ।

অনেকে দাবী করে বলেন, এলাকার একটি চক্র ঐ জায়গাটি দখল করার কৌশল হিসেবে এ গাছ গুলো কেটে কক্সবাজারে এক কাঠ ব্যাবসায়ীর কাছে বিক্রি করে দিয়েছে । এঘটনার জন্য শাপলাপুর বন বিট অফিসার শামসুল হক সরকার আর বন কর্মীদের মধ্যে একে অপরকে দায়ী করছেন।

শাপলাপুর বনবিট অফিসার শামসুল হক সরকার থেকে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার অজান্তে বনকর্মীদের যোগসাজসে এ কাঠ চুরির ঘটনাটি ঘঠেছে বলে আমার ধারণা।  মহেশখালী রেঞ্জ কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবগত করার পর গর্জন বাগানটি পরিদর্শন করেছেন। এছাড়া কাঠ চোরদের বিরুদ্বে আইনী ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তিনি উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে যাচ্ছেন।

অপরদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বনকর্মী জানান, বিট অফিসারের কারণে এ অঞ্চলের সেগুন, গর্জন সহ বিভিন্ন প্রজাতির বাগান রক্ষা করা সম্ভব হচ্ছেনা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •