নিজস্ব প্রতিবেদক:
কক্সবাজারে হোপ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে দুইদিন ব্যাপী আন্তর্জাতিক মানের মিডওয়াইফ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। শনিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টায় হোটেল লংবীচে দেশের প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত এই সম্মেলন শুরু হয়।

সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাসচিব ড. নাসিমা সুলতানা। বিশেষ হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির, ডিজিএমএন এর পরিচালক (প্রশাসক) শিরিন দিলহুর, ওজিএসবি’র প্রেসিডেন্ট প্রফেসর সামিনা চৌধুরী, বিএনএমসি’র রেজিস্ট্রার সুরাইয়া বেগম, ইউএনএফপিএ’র বাংলাদেশ প্রতিনিধি অসা টরকিলসন,।

এছাড়াও সরকারি, দেশি বিদেশি বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি, কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন হোপ ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট ডা. ইফতিখার মাহমুদ মিনার। সম্মেলনে সার্বিক পরিচালনায় রয়েছেন হোপ ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ডিরেক্টর কেএম জাহিদুজ্জামান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন হোপ হসপিটালের প্রধান মেডিকেল কর্মকর্তা নৃন্ময় বিশ্বাস। এতে অংশ নিয়েছেন সারাদেশের চার শতাধিক মিডওয়াইফ। বিভিন্ন দেশ থেকে এসেছেন খ্যাতনামা প্রশিক্ষকেরা।

সম্মেলনের প্রধান অতিথি ড. নাসিমা সুলতানা বলেন, গর্ভজনিত মাতৃমৃত্যু ও শিশু মৃত্যুর হার রোধে মিডওয়াইফদের অবদান অত্যন্ত বেশি। একজন প্রশিক্ষিত মিডওয়াইয়ের সঠিক পর্যবেক্ষণ ও পরিচর্যায় নিরাপদ মাতৃত্ব নিশ্চিত হতে পারে। তাই প্রশিক্ষিত মিডওয়াইফদের প্রশিক্ষণ শেষে গ্রামে-গঞ্জে চলে যেতে। সেখানে গিয়ে উন্নত সেবা বঞ্চিত প্রত্যন্ত গ্রামের গর্ভবতীদের সেবায় মনোনিবেশ করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, একজন মিডওয়াইফরা হচ্ছেন একজন গর্ভবতীর ভরসার শেষ ঠিকানা। মিডওয়াইফের আশ্বাসেই একজন গর্ভবতী অর্ধেক সুস্থ্য বোধ করে। এতে তার স্বাভাবিক সন্তান প্রসব প্রক্রিয়া প্রসন্ন হয়। তাই মিডওয়াইফদের সেভাবে সর্বোচ্চ আন্তরিকতা সহকারে সেবা দিতে হবে। তাহলে মাতৃমৃত্যু এবং সিজার ডেলিভারি তুলনামূলকভাবে হ্রাস পাবে- যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে অবদান রাখবে।

হোপ ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট ডা. ইফতিখার মাহমুদ মিনার বলেন, মাতৃমৃত্যু রোধ করতে আমাদের প্রচেষ্টা থেমে নেই। এর অংশ হিসেবে সারা দেশের প্রশিক্ষিত ধাত্রীদের আরো যোগ্য ও সচেতন করে তুলতে দেশের প্রথম মিডওয়াইফ সম্মেলন আয়োজন করা হয়েছে। এই সম্মেলনে বিশ্বের বহুদেশ থেকে আসা খ্যাতনামা মিডওয়াইফরা প্রশিক্ষণ দেবেন। এই সম্মেলনের লক্ষ্য হলো প্রশিক্ষিত ধাত্রীদের আরো দক্ষ করে গ্রামাঞ্চলে পৌঁছে দেয়া। এই সম্পর্কে সচেতনতা তৈরিতে সম্মেলনে বেশ প্রণোদনা দেয়া হবে। আমার বিশ্বাস আমাদের এই উদ্যোগ সফল হবে। এর মাধ্যমে সারাদেশের গ্রামা-গঞ্জে সেবা দিতে তৈরি হবে আমাদের ধাত্রীরা। আমরা তাদের কাছ থেকে সেটাই প্রত্যাশা করবো।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •