সংবাদদাতা:
কক্সবাজার জেলার রামুর গর্জনিয়া-কচ্ছপিয়া দুই ইউনিয়নের একঝাঁক তরুণ প্রজন্ম নিয়ে গঠিত হয়েছে ব্লাড ফাইটিং ইউনিট।

সংগঠনটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক ও সেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করবে। করবেনা কারো লেজুড়বৃত্তি।

ব্লাড ফাইটিং ইউনিট শুধু ব্লাড সংগ্রহ করার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে না, কাজ করবে কয়েকটি ধাপে।

তৎমধ্যে রয়েছে গর্জনিয়া-কচ্ছপিয়া থেকে আগাত অসহায় রোগীকে সহযোগিতা করা, বিভিন্ন স্কুল,কলেজ এবং মাদ্রাসা পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীরা অর্থের অভাবে লেখাপড়া চালিয়ে নিতে অসুবিধা ভোগান্তিরদের পাশে থেকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া, গরিব অসহায়দের পাশে থাকা এবং বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠান।

প্রসঙ্গত,গর্জনিয়া-কচ্ছপিয়া ইউনিয়নে অনেকের লালিত স্বপ্নছিল একটি ব্লাড ইউনিট গঠন করে এলাকার রোগীদের পাশে থাকা যাতে রক্তের জন্য ছুটাছুটি করতে না হয়।সাম্প্রতি এমন একসময়ে একদল তরুণেরা যাদের মেধা,পরিশ্রম,সেচ্ছাশ্রমকে বিসর্জন দেওয়ার মাধ্যমে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিগত ২৩ই সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং তারিখে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত সংলগ্ন বিজিবি উর্মি ক্যাপে একটি সু-পরামর্শের ভিত্তিতে ব্লাড ইউনিট গঠন করার লক্ষে প্রাথমিক আলোচনায় বসেন। আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন ট্যুরিজম কেয়ার এর পরিচালক মিজানুল হক মিজান, বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর সদস্য মো.শাহা নেওয়াজ, সিবিআইউ কম্পিউটার ইন্জিনিয়ার বিভাগের ছাত্র কফিল উদ্দীন ফারুক,কক্সবাজার সরকারি কলেজের ছাত্র মিরাজ উদ্দীন, রহিম উল্লাহ,তাহসিন মোহাম্মদ ইসমাইল,মুহিব উল্লাহ মুহিব,সিটি কলেজের মেধাবী ছাত্র মো.ফাহিম, আরাফাত হোছাইন বাপ্পি, আওয়াল,শিহাব উদ্দীন,কক্সবাজার হাশেমিয়া কামিল মাদ্রাসার ছাত্র মো.কাওসার,চাকরিজীবী আবছার সহ আরো অনেকেই।

প্রাথমিক আলোচনা সভা শেষে মুহিব উল্লাহ মুহিবের সহায়তায় কক্সবাজার সিটি কলেজের ছাত্র শিহাব উদ্দীন গর্জনিয়া-কচ্ছপিয়া ব্লাড ইউনিট থেকে প্রথম ব্লাড ডোনেশন করেন।গর্জনিয়া ইউনিয়নে অবস্থিত থিমছড়ি শিয়া পাড়া নজির আহম্মদের মানসিক ভারসাম্য ছেলেকে।

যারা ব্লাড ইউনিট গঠন করার লক্ষে বারবার সুপরামর্শ,আলোচনা সভা,পরিশ্রম, মেধাকে কাজে লাগা তাদের নাম না বললে নয় তারা হলেন মিজানুল হক মিজান,মো.পুলিশ সদস্য শাহা নেওয়াজ,আরেক পুলিশ সদস্য মো.ইসমাল,কফিল উদ্দীন ফারুক এবং আরো অনেকই।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •