নিজস্ব প্রতিবেদক:
চট্টগ্রাম রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ ওয়ারেন্ট তামিলকারী এএসআই হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন কক্সবাজার সদর মডেল থানার চৌকস পুলিশ কর্মকর্তা রাশেদ খানঁ। গত আগষ্ট (২০১৯) মাসের পারফর্মেন্স বিবেচনায় সদর থানার এএসআই রাশেদ খানঁ শ্রেষ্ঠ ওয়ারেন্ট তামিলকারী এসআই নির্বাচিত হন।
গত আগষ্ট (২০১৯) মাসে তিনি জেলায় সর্বোচ্চ ৮৯ টি গ্রেপ্তারী পরোয়ানাভুক্ত আসামী, এন,ই,আর ৪৩টি ও স্থানীয়ও বিভিন্ন জেলা থেকে আসা সন্ধেহজনক (বিরোল) ৩৭জনসহ গ্রেপ্তার করায় তাকে শ্রেষ্ঠ এএসআই হিসেবে সম্মাননাস্বরুপ ক্রেষ্ট, সার্টিফিকেট ও নগদ অর্থ প্রদান করা হয়। ১৯ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক বিপিএমবার পিপিএম এর কার্যালয়ে মাসিক কল্যাণ ও আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়। উক্ত সভায় এএসআই রাশেদ খানঁকে এ সম্মানা প্রদান করা হয়।
এসময় চট্টগ্রাম রেঞ্জের সম্মানিত ডিআইজি মোহাম্মদ ফয়েজ আহম্মদ, কক্সবাজারের সম্মানিত পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসাইন সহ উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সম্মাননা পাওয়ার পর এএসআই রাশেদ খানঁ বলেন, আজকের এ সফলতার পেছনে যারা উৎসাহ উদ্দীপনা, এবং অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন তিনি কক্সবাজারের সুযোগ্য পুলিশ সুপার সম্মানিত এবিএম মাসুদ হোসাইন বিপিএম, কক্সবাজার সদর সার্কেল মোঃ আদিবুল ইসলাম, সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ফরিদ উদ্দীন খন্দকার ও ওসি তদন্ত মোঃ খায়েরুজ্জামান স্যারদের দিক নির্দেশনাকে বাস্তবায়ন করে সফলতার দ্বার উন্মোচন করেছি। আন্তরিকতা, সৎ ইচ্ছা , পরিশ্রম , কল্যাণমুখী চিন্তা চেতনাকে বাস্তবে প্রয়োগ করলে কাজের গতি ও সফলতাকে উপভোগ করা যায়। দেশ সেবার মনমানসিকতা নিয়ে বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করেছি। ইনশাআল্লাহ প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তা হিসেবে যে থানায় নিয়োজিত থাকি না কেনো মাদক, সন্ত্রাসমুক্ত , অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার, আইনশৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক, পরোয়ানাভুক্ত আসামী গ্রেপ্তার এবং সর্বোপরি নিরাপত্তার চাদরে আচ্ছাদিত করতে আমার শারীকিক, ও মানসিক শ্রম অব্যাহত থাকবে। সেই সাথে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি আমার সফলতার পেছনে শ্রম দিয়ে সহযোগিতা করা স্থানীয় ব্যাক্তিবর্গরা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •