মাসে বন্ধ ৪৬ গার্মেন্টস, বেকার হয়েছে সাড়ে ২৫ হাজার শ্রমিক

ডেস্ক নিউজ:

ব্যবসা সংকট ও অনৈতিক প্রতিযোগিতার কারণে শ্রমিকদের বেতনভাতা, মজুরি এবং অফিসের ব্যয় বহন না করতে পেরে গত সাড়ে ৬ মাসে ৪৬টি তৈরি পোশাক কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) ৪৬টি কারখানা বন্ধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র সভাপতি ড. রুবানা হক। তিনি বলেন, ‘চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ছয় মাসে ৪৬টি গার্মেন্টস বন্ধ হয়েছে। তাতে ২৫ হাজার ৪৫৩ শ্রমিক ও কর্মকর্তা চাকরি হারিয়েছেন। আর ব্যবসায়ীরা ব্যবসা হারিয়েছেন।’

রুবানা হক বলেন, ‘বিদেশি পণ্য রফতানির ক্ষেত্রে পোশাক কারখানাগুলো এখন দর কষাকষি করতে পারছে না। কিন্তু কেউ সাহস করে বলতে পারছে না। কিছু কারখানা ওভার ইনভেস্টমেন্ট (অতিরিক্ত বিনিয়োগ) করে আসছে। ফলে এখন এই খাতে চরম দুরবস্থা চলছে। আর তাতে আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই এখন পর্যন্ত ৪৬টি কারখানা বন্ধ হয়েছে।’ গার্মেন্টস মালিকরা বলছেন, দেশে পোশাক কারখানা বন্ধ হওয়ার ঘটনা নতুন নয়। প্রতি মাসেই কোনো না কোনো কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়ার মতো ঘটনা ঘটছে।

তাদের মতে, চলতি বছরের রমজান মাসের সময় ২০-২৫টি গার্মেন্টস বন্ধ হয়েছে। এরপর ঈদুল আজহার পরের মাসেই বন্ধ হয়েছে ১৫ থেকে ২০টি কারখানা। সব মিলে ৪৬টি গার্মেন্টস বন্ধ হয়েছে। নতুন করে আরও বেশকিছু গার্মেন্টস বন্ধের পথে। এসব কারখানায় ছাঁটাই চলছে। শুধু তাই নয়, বর্তমানে কারখানা বন্ধের ক্ষেত্রে নতুন ধারা তৈরি হয়েছে। আগে পুরো কারখানা বন্ধ করলেও এখন দেখা যাচ্ছে ১৫ লাইনের ফ্যাক্টরির ক্ষেত্রে দুই বা তিন লাইন বন্ধ করে দিচ্ছে। এতে দুই থেকে তিনশ শ্রমিক বেকার হয়ে যাচ্ছে বলে মনে করেন তারা।

বন্ধ হওয়া গার্মেন্টসগুলোর মধ্যে রয়েছে—মালিবাগের লুমেন ড্রেস লিমিটেড ও লুফা ফ্যাশন লিমিটেড, বাড্ডার সুমন ফ্যাশন গার্মেন্টস লি, শান্তিনগরের অ্যাপোচ গার্মেন্টস লিমিটেড,আশুলিয়ার মোভিভো অ্যাপারেলস লিমিটেড, ও ফোর এস পার্ক স্টাইল লিমিটেড, রামপুরার জেনস ফ্যাশন লিমিটেড, মধ্য বাড্ডার স্টার গার্মেন্টস প্রাইভেট লি, টঙ্গীর জারা ডেনিম লিমিটেড, ফলটেক্স কম্পোজিট, এহসান সোয়েটার ও মার্ক মুড, বনানীর তিতাস গার্মেন্টস ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড, গাজীপুরের ওসান ট্রাউন ও ওয়াসিফ নিটওয়্যার, জিরানীর ঝুমা ফ্যাশন, বোর্ড বাজারের স্পেস গার্মেন্টস ইন্ড্রাস্ট্রি এবং উত্তর বাড্ডার এভার ফ্যাশন লিমিটেড ইত্যাদি।

বিজিএমইএ’র সিনিয়র সহ-সভাপতি ফয়সাল সামাদ বলেন, ‘সামগ্রিকভাবে পোশাক খাতে ব্যবসার অবস্থা ভালো নেই। ক্রয় আদেশ (অর্ডার) কমে যাচ্ছে। কিছু নতুন প্রতিযোগী দেশও তৈরি হয়েছে। মিয়ানমার, ভারত, পাকিস্তান ও ভিয়েতনামে অর্ডার বাড়ছে। এতে আমাদের দেশে অর্ডার কমে যাচ্ছে। এসব কারণেই অনেক কারখানা ব্যবসায় টিকে থাকতে পারছে না। ফলে বাধ্য হয়ে তারা কারখানা বন্ধ করছেন।’ এ বিষয়ে এফবিসিসিআইয়ের সহ-সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘যেসব কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে তারা অনেকেই কমপ্লায়েন্ট নয়। নতুন করে কমপ্লায়েন্ট করতে গিয়ে তারা হিমশিম খাচ্ছেন। আবার ক্রেতারাও অর্ডার কমিয়ে দিয়েছে।’

সর্বশেষ সংবাদ

পোকখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে ক্রীড়া ও সাহিত্য সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা উদ্বোধন

খুটাখালীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আবছার হেলালীর ৩য় মৃত্যুবার্ষিকী

ধনী থেকে ১৯ বছর আগে মরে যায় গরীবেরা!

নিখোঁজের দেড় বছর পর বাড়ি ফিরলেন সেই সাবেক র‍্যাব কর্মকর্তা

সিবিআইইউতে আন্তজার্তিক মাতৃভাষা ও মহান শহীদ দিবস পালিত

প্রতি সপ্তাহে খুলতে হবে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অভিযোগ বক্স

করোনার বিস্তার ঠেকানোর পথ সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে!

ব্যাংক বন্ধ হলে আগের মতোই এক লাখ টাকার বেশি পাবে না গ্রাহক

টেকনাফে মায়ের লাশ বাড়ীতে রেখে পরীক্ষার হলে মেয়ে

১৬ বছরের অবৈধ দখল এক ঘন্টায় উদ্ধার করলেন উপজেলা প্রশাসন

রাঙামাটিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ’র কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা

চার হাজার ইয়াবাসহ নারী আটক

মহান একুশ পালন করলো জুভেনাইল ভয়েস ক্লাব

শহীদ মিনারে হোপ ফাউন্ডেশনের পুষ্পমাল্য অর্পণ

সাংবাদিক এফ এম সুমনের বাড়ি থেকে লক্ষাধিক টাকার মালামাল চুরি

আমিরাতে করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশিসহ আক্রান্ত ১১

ইসলামী ব্যাংক রেসিডেন্সিয়াল মাদরাসায় মহান একুশ পালন

এবার আমিরাতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বাংলাদেশি নাগরিক

করোনাভাইরাসে শ’য়ে শ’য়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা, মোট ২৩৬০

ছোটমহেশখালী যুবদলের ওয়ার্ড প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত