প্রতিটি অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকে তাড়ানো হবে: অমিত শাহ

বিদেশ ডেস্ক:

আসামের চূড়ান্ত নাগরিক তালিকায় নাম না থাকা ১৯ লক্ষাধিক মানুষের প্রত্যেককে দেশছাড়া করার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। রবিবার আসামের গুয়াহাটিতে এক অনুষ্ঠানে তিনি এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। তার ভাষায়, ‘প্রতিটি অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকে তাড়িয়ে দেওয়া হবে।’

অমিত শাহ বলেন, ‘জাতীয় নাগরিকপঞ্জি নিয়ে অনেকে অনেক রকম প্রশ্ন তুলেছেন। আমি স্পষ্টভাবে বলতে চাই, ভারত সরকার, একজন অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকেও এদেশে থাকতে দেবে না। এটা আমাদের প্রতিশ্রুতি।’

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর এই প্রথমবারের মতো আসাম সফরে গেলেন অমিত শাহ। ১৯৫৮ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে আসামকে সবচেয়ে উপদ্রুত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার।

২০১৯ সালের ৩১ আগস্ট প্রকাশিত আসামের চূড়ান্ত নাগরিক তালিকা (এনআরসি) থেকে বাদ পড়েছেন রাজ্যের ১৯ লাখ ৬ হাজার ৬৫৭ জন মানুষ। তবে এ তালিকা নিয়ে খুশি নয় ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। আসামের রাজ্য সরকারেও ক্ষমতায় রয়েছে দলটি। বিজেপি ও তার মিত্রদের প্রত্যাশা ছিল, এ তালিকাকে হাতিয়ার করে আরও অধিক সংখ্যক মুসলিমের নাগরিকত্ব বাতিল করে তাদের রাষ্ট্রহীন মানুষে পরিণত করা হবে। ফলে তালিকায় আরও বেশি সংখ্যক মুসলিমের নাম বাদ না পড়ায় ক্ষোভ বিরাজ করছে বিজেপি ও তার মিত্রদের মধ্যে।

চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের পর আসামের অর্থমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা হিমন্ত বিশ্ব শর্মা বলেছেন, এনআরসি নিয়ে বিজেপি সন্তুষ্ট নয়। আরও বেশি সংখ্যক অবৈধ অভিবাসীর (মুসলিম) নাম তালিকা থেকে বাদ পড়ার কথা। রাজ্য থেকে সব বিদেশিকে তাড়িয়ে দিতে বিজেপি কাজ করে যাবে।

২০১৮ বিধানসভা নির্বাচন এবং ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির ইশতেহারে অন্যতম ইস্যু ছিল নাগরিক তালিকা চূড়ান্ত করা। এ বছরের গোড়ার দিকে কথিত অনুপ্রবেশকারীদের (বাংলাভাষী মুসলিম) ‘উইপোকা’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন বিজেপি নেতা ও ভারতের বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তিনি বলেন, অনুপ্রবেশকারীরা বাংলার মাটিতে উইপোকার মতো। বিজেপি সরকার তাদের এক এক করে তুলে বঙ্গোপসাগরে ছুড়ে ফেলবে।

অমিত শাহ তার বক্তব্যে অবৈধ মুসলিম অভিবাসী বলতে তাদের বাংলাদেশি হিসেবে ইঙ্গিত করেন। এর আগে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরেও মুসলমান অভিবাসীদের উইপোকা হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন অমিত শাহ। সে সময় দলীয় এক সমাবেশে তিনি বলেন, ভারতে থাকা ‘অবৈধ বাংলাদেশিদের’ শনাক্ত করে তাদের এক এক করে তাড়িয়ে দেওয়া হবে। একই বছরের আগস্টে কলকাতায় বিজেপির এক সমাবেশে তিনি বলেন, বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের তাড়াতেই ভারতে নাগরিক তালিকা প্রণয়ন করা হচ্ছে। এটি হচ্ছে বেছে বেছে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের তাড়িয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধিতায় এটি বন্ধ হবে না। সূত্র: এনডিটিভি।

সর্বশেষ সংবাদ

২য় বার বিপিএম পদক পাওয়ায় এসপি মাসুদ হোসেনকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সংবর্ধনা

কক্সবাজার আসলেন ভূমিমন্ত্রী, ‘অ্যাকশন’ দেখার অপেক্ষায় ভুক্তভোগীরা

রামুতে সত্যপ্রিয় মহাথের’র অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া’র সম্প্রীতি মেলা উদ্বোধন

বাঁচতে চায় ক্যান্সার আক্রান্ত তিন সন্তানের মা ‘জাহানারা’

ঈদগাঁও বাজার কমিটির নির্বাচনে প্রার্থীদের মুক্ত সংলাপ

ঈদগাঁহে ‘৯০ ব্যাচের বহিস্কৃতরা কথিত মিলনমেলা ষড়যন্ত্রে মত্ত’র অভিযোগ

কক্সবাজার ইউনাইটেড স্টুডেন্ট’স ক্লাব শহর কমিটি অনুমোদন

কক্সবাজার সিটি প্রেসক্লাবের সাধারণ সভা ২৯ ফেব্রুয়ারী

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বেপরোয়া দালাল

একুশের দিনে কাপড়ের তৈরী শহীদ বেদিতে শ্রদ্ধা নিবেদন

ঘুষ দৌরাত্ম্য অভিযুক্ত ৩ সার্ভেয়ার চাকুরী থেকে বরখাস্ত হচ্ছেন রোববার

ব্রাকের ম্যালেরিয়া রোগ নির্মূল প্রকল্পের নামে অর্থ অপচয়ের অভিযোগ

ভাষার জন্য সংগ্রাম করে জীবন দিয়েছেন এমন নজীর পৃথিবীর কোথাও নেই

চকরিয়ায় উগ্রবাদ ও সহিংসতা নিরসনে প্রশিক্ষণ

অসাম্পদায়িক বাংলাদেশ গড়াই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লক্ষ্য

চকরিয়ায় বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু

ডুলাহাজারায় শালিসি বৈঠকে হামলা: মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে দু’সহোদর

সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার সমিতির আজীবন সম্মাননাপত্র বিতরণ ও শোকরানা সভা

শেখ হাসিনা ছাত্রী নিবাসে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানে দীর্ঘসূত্রিতা!

লবণের ন্যায্যমূল্য নিয়ে সরকার বড়ই উদাসীন, ভূমিকাও রহস্যজনক- শাহজাহান চৌধুরী