মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

বিশাল আয়োজন করে মহা ধুমধামে খাওয়ানো হলো কক্সবাজার-৪ আসনের ২ বারের নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি ও একই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য শাহীন আক্তার চৌধুরী’র একমাত্র কন্যা সামিয়া রহমান সানি’র বিবাহোত্তর সম্বর্ধনাতে। শুক্রবার ৬ সেপ্টেম্বর টেকনাফ পৌরসভার চৌধুরী পাড়ার ঐতিহ্যবাহী ‘কোম্পানি বাড়িতে’ এ রাজ সম্বর্ধনার আয়োজন করা হয়। এ রাজকীয় আয়োজনে ১০ হাজার থেকে ১২ হাজার পর্যন্ত দাওয়াতি ও ভিআইপি’কে এবং ৪০ হাজার থেকে ৪২ হাজার মানুষ নিজ এলাকার সর্বস্থরের মানুষের জন্য এই মেজবানের আয়োজন করা হয়। মেজবানে ৬৮ টি গরু ও মহিষ, ২৩৫ টি ছাগল জবাই করে এমপি দম্পতি কন্যার এই বিশাল আয়োজন করা হয়। মেজবানে ঢাকা, চট্টগ্রাম, নেত্রকোনা, বান্দরবান সহ বিভিন্ন জেলা থেকে আমন্ত্রিতরা অংশ নিয়েছেন। টেকনাফের ঐতিহ্যবাহী কোম্পানি বাড়ির পার্শ্বে প্রায় কোয়ার্টার কিলোমিটার জুড়ে সুসজ্জিত প্যান্ডেল ও রান্নাবান্নার ব্যবস্থা, অতিথিদের অভ্যর্থনার ব্যবস্থা পৃথক খাওয়ার প্যান্ডেল এবং ওয়াশ রুমের ব্যবস্থা করা হয়। মেজবানে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার বয়, বাবুর্চি, ভলান্টিয়ার, ওয়াশবয় দায়িত্ব পালন করেছে। বর-কণের জন্য করা হয়েছে আলিশান রাজকীয় স্টেইজ। রয়েছে গাড়ি পার্কিং। প্রতি বেইচে প্রায় ৫ হাজার মানুষের খাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯ টায় শুরু করে বিকেল সাড়ে ৪ টা পর্যন্ত এই খাওয়াদাওয়া চলে। সমসাময়িক কালে আয়োজিত এটি কক্সবাজারের সবচেয়ে বড় মেজবান বলে দাওয়াতে অংশ নেয়া লোকজন সিবিএন-কে জানিয়েছেন। দাওয়াতে অংশ নেয়া জাতি সংঘের একটি সংস্থার উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ইফতেখার উদ্দিন বায়েজিদ সিবিএন-কে জানান, অত্যন্ত সুশৃঙ্খল ও স্বাচ্ছন্দ পরিবেশে খাওয়া দাওয়া চলছে। সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদি ও তাঁর সহধর্মিণী বর্তমান এমপি শাহীন আক্তার চৌধুরী সবাইকে অভ্যর্থনা জানাচ্ছেন। তাঁদের সাথে থেকে দেখভাল করছেন-আবদুর রহমান বদি’র চাচা ও টেকনাফ পৌরসভার মেয়র হাজী মোহাম্মদ ইসলাম, শাহীন আক্তার চৌধুরী এমপি’র চাচা ও উখিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী, কক্সবাজার জেলা পরিষদের সদস্য হুমায়ুন কবির চৌধুরী, এমপি দম্পতির পুত্র শাওন আরমান প্রমুখ। ইফতেখার উদ্দিন বায়েজিদ আরো জানান, হাজার হাজার মানুষ খাওয়া দাওয়া করে বেশ সন্তোষ প্রকাশ করছেন। মেজবানে কোন ধরনের ভীড় নেই। মেহমানেরা আসা মাত্র খেয়ে ফেলতে পেরেছেন। কক্সবাজার-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি সিবিএন-কে জানান-পাত্র নেত্রকোনা জেলার জয়নগরের ঐতিহ্যবাহী বুনিয়াদি পরিবারের মনোয়ারা ম্যানশনের মরহুম সুরত আলি ও বেগম মনোয়ারা আক্তারের পুত্র ব্যারিস্টার রানা তাজউদ্দীন। এমপি দম্পতি কন্যা সামিয়া রহমান সানি’র সাথে ব্যারিস্টার রানা তাজউদ্দীনের প্রায় ৯ মাস আগে ঢাকায় কাবিন-আকদ সম্পন্ন হয় বলে কক্সবাজার-৪ আসন থেকে ২ বারের নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি সিবিএন-কে জানান। সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদি ও একই আসনের বর্তমান এমপি শাহীন আক্তার চৌধুরী’র জ্যেষ্ঠ সন্তান সামিয়া রহমান সানি বর্তমানে ঢাকাস্থ লন্ডন ইউনিভার্সিটি এন্ড কলেজে অনার্সে চতুর্থ সেমিস্টারে অধ্যায়নরত। তাদের একমাত্র পুত্র মেধাবী শাওন আরমান ঢাকা মাইলস্টোন কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র। সামিয়া রহমান সানি টেকনাফ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম এজাহার মিয়া কোম্পানি ও উখিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম নুরুল ইসলাম চৌধুরী ঠান্ডা মিয়ার নাতী। সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদি বলেন, লোকজনকে আপ্যায়ন করা ও খাওয়ানো আমার মরহুম পিতা এজাহার মিয়া কোম্পানি সহ আমার পরিবারের ঐতিহ্যগত অভ্যাস ও রেওয়াজ। আমরা মানুষকে খাওয়াতে পারলেই তৃপ্ত ও সন্তুষ্ট হই। আমি মনে করি, এ অঞ্চলের মানুষের আমার পরিবারের উপর হক রয়েছে। তাই এ অঞ্চলের একজন মানুষও নাখেয়ে থাকলে আমি খুব বেশী দুঃখ পায়। এ এলাকার মাটি ও মানুষের সাথে আমার রক্ত মিশে গেছে। আবদুর রহমান বদি আরো বলেন, মেহমান আসা কমে যাওয়ায় অর্ধেক প্যান্ডেল শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪ টার পর গুটিয়ে ফেলা হলেও প্রচুর রান্নাকরা খাবার থাকায় এরেজম্যান্টের কিছু অংশ এখনো রেখে দেয়া হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত যত মেহমান খেতে আসবে তাদের সকলকেই খাওয়ানো হবে ইনশাল্লাহ। সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদি ও তাঁর সহধর্মিণী বর্তমান এমপি শাহীন আক্তার চৌধুরী সানি ও রানা দম্পত্তির জন্য তাঁরা সকলের কাছে দোয়া ও আশীর্বাদ চেয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •