আবুল কালাম, চট্টগ্রাম :

নগরীর আকবরশাহ্ থানাধীন সিডিএ ০১নং রোডের মাথায় মীর সিএনজি ফিলিং স্টেশনের সামনে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উপর বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে তিন জন রোহিঙ্গা কে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় তাহাদের কাছ থেকে ৩টি বাংলাদেশী পাসপোর্ট ও মোবাইল উদ্ধার করেন।

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যার দিকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার কৃতরা হলো মো: ইউসুফ (২৩) মো: মুসা (২০) মো: আজিজ প্রকাশ আয়াজ(২১)।

পুলিশ সূত্রে জানা যায় উদ্ধারকৃত পাসপোর্টে প্রদত্ত ঠিকানার সহিত তাহাদের মৌখিক প্রদত্ত ঠিকানায় কিছুটা গরমিল পরিলক্ষিত হইলে তাহাদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে স্বীকার করে যে, তাহারা মায়ানমারের নাগরিক এবং তাহারা পিতা মাতা ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা সহ মায়ানমারে সৃষ্ট ঘটনার প্রেক্ষিতে ২০১৭ সালের বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে ও উল্লেখিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বসবাস করিয়া আসছে। তাহাদের নাম-ঠিকানা যথাক্রমে ১। মোঃ ইউসুফ(২৩), ২। মোঃ মুসা (২০) উভয় পিতা-আলী আহমেদ, উভয় মাতা-লায়লা বেগম, উভয় সাং-দুমবাই, অংচি, জেলা-মংডু, দেশ-মায়ানমার, বর্তমানে-থাইংখালী, হাকিমপাড়া, ক্যাম্প-১৪, বøক-বি-২, থানা-উখিয়া, জেলা-কক্সবাজার, ৩। মোহাম্মদ আজিজ প্রঃ আইয়াজ(২১), পিতা-জমির হোসেন, মাতা-রশিদা বেগম, সাং-চালিপাড়া (মিয়া ডং), জেলা-মংডু, দেশ-মায়ানমার, বর্তমানে-থাইংখালী, হাকিমপাড়া, ক্যাম্প-১৪, বøক-এফ-৬, থানা-উখিয়া জেলা-কক্সবাজার বলে জানান।
আসামীরা আরো জানায় যে, পলাতক ও অজ্ঞাতনামা আসামীদের সহযোগীতায় ফেনী এবং নোয়াখালী জেলা সহ দেশের অজ্ঞাতনামা দালালদের মাধ্যমে পাসপোর্টে বর্নিত ভুয়া নাম ঠিকানা ব্যবহার করিয়া নোয়াখালী জেলা হইতে বাংলাদেশী পার্সপোট সংগ্রহ করে। পার্সপোর্টের বিনিময়ে তাহারা দালালদের বিভিন্ন অংকের বাংলাদেশী টাকা পরিশোধ করে। বর্নিত পার্সপোর্ট ব্যবহার করিয়া তাহারা ঢাকায় তুর্কি দুতাবাসে গিয়া ভিসার আবেদন করার জন্য অদ্য উল্লেখিত সময় চট্টগ্রামের আকবরশাহ থানা এলাকা অতিক্রম করিতেছিল। আসামীরা প্রতারনা পূর্বক বাংলাদেশী পার্সপোর্ট সংগ্রহ করায় তৎক্ষনাত তাহাদের গ্রেফতার করা হয় এবং প্রাপ্ত পার্সপোর্ট ও অবৈধভাবে সংগৃহীত মোবাইল সেট সাক্ষীদের উপস্থিতিতে জব্দ তালিকা মূলে জব্দ করা হয়।এ ব্যপারে তাদের বিরুদ্ধে আকবরশাহ্ থানায় মামলা করা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •