প্রেস বিজ্ঞপ্তি:
কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী’র উদ্যোগে ও আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা আই.এল.ও এর সহযোগিতায় ৩ সেপ্টেম্বর স্থানীয় হোটেল সম্মেলন কক্ষে কক্সবাজারে কর্মরত, ট্যুর অপারেটর সংগঠনের প্রতিনিধিদের নিয়ে কক্সবাজার জেলার মাস্টার প্লান বিনির্মাণে পর্যটন শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট স্থানীয় প্রাইভেট সেক্টরে সম্পৃক্তকরণ বিষয়ে প্রাথমিক পর্যায়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী’র সভাপতি আবু মোরশেদ চৌধুরী’র সভাপতিত্বে ও সঞ্চালনায় নিজ নিজ সংগঠনের পক্ষে মতামত ব্যক্ত করেন-ট্যুর অপারেটরস ওনার এসোসিয়েশন অব কক্সবাজার (টুয়াক) এর সভাপতি এম. রেজাউল করিম রেজা, সাধারণ সম্পাদক এস.এম কামরুজ্জমান ওবাইদুল, ট্যুর অপারেটরস এসোসিয়েশন কক্সবাজার (টুয়াক) এর ফাউন্ডার চেয়ারম্যান এম এ হাসিব বাদল, সাবেক টুয়াক সভাপতি এস.এম কিবরিয়া খাঁন, সাধারণ সম্পাদক আসাফ উদ্দৌলা (আশেক)।

মতবিনিময় সভায় বর্তমান পর্যটন নীতিমালার সংশোধন ট্যুর অপারেটরদের ভূমিকা, ইনবাউন্ট/আউটবাউন্ট, কক্সবাজার ভিত্তিক পর্যটন সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রীয় ওয়েবসাইট, ট্যুর অপারেটরদের প্রশিক্ষণ, স্থানীয় পর্যটন আকর্ষণীয় স্থানের জনগনের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধির উদ্যোগ নিবন্ধনসহ নীতিমালায় অন্তর্ভূক্তিকরনের প্রস্তাব দেয়া হয়। পাশাপাশি পর্যটন শিল্পের সাথে সরাসরি সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তাদের আয়কররেয়াদসহ প্রণোদনার প্রস্তাব উত্তাপিত হয়। কক্সবাজারে অবস্থিত পর্যটন আকর্ষণ গুলো আরো পর্যটন বান্ধব,যাথায়াত নিরাপত্তা বিষয়ে গুরুত্বারূপ করা হয়। কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী’র কর্তৃক গৃহিত উদ্যোগকে সময় উপযোগী বলে সকলে মতামত ব্যক্ত করেন।

কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী’র সভাপতি বলেন চলতি মাসে কক্সবাজারে হোটেল মালিক গ্রুপ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, পর্যটন সংশ্লিষ্ট পরিবহন সেক্টর, স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত পন্যের উদ্যোক্তাদের সাথে মতবিনিময়ের মাধ্যমে মতামত গ্রহণের পর চুড়ান্ত প্রস্তাবণা কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী’র মাধ্যমে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে বিবেচনার জন্য প্রেরণ করা হবে। তিনি আরো বলেন প্রতিদিন গুগলে ২০হাজরেরও অধিক লোক কক্সবাজারের পর্যটন সম্পর্কে জানতে চাই কিন্তু কোন ধরনের পর্যটন প্যাকেজ না পেয়ে হতাশ হন। মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী’র পরিচালক শহিদুল ইসলাম রাসেল, মোহাম্মদ আবু হানিফ, আজমল হুদা।

সমাপনী বক্তব্যে আই.এল.ও প্রতিনিধি গুনজন বলেন বাংলাদেশে প্রথম সেক্টর ভিত্তিক মতামত গ্রহণের মাধ্যমে একটি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে উপস্থাপিত হতে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন এই বিষয়ে স্থানীয় উদ্যোক্তাদের সুনির্দিষ্ট মতামত গুরুত্বপূর্ণ এবং আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আই.এল.ও)’র পক্ষ থেকে এই সেক্টরে সার্বিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •