বাংলা ট্রিবিউন :

রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় দিনের বেলা মোবাইল সংযোগ পুরোদমে চালু থাকলেও রাতে শুধু টু-জি নেটওয়ার্ক চালু থাকবে। এর মাধ্যমে শুধু কথা বলা (ভয়েস কল) যাবে। প্রতিদিন বিকাল ৫টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত ১৩ ঘণ্টা থ্রি-জি, ফোর-জি চালু থাকবে না।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় (উখিয়া ও টেকনাফ থানা) এখন থেকে প্রতিদিন বিকাল ৫টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত টু-জি নেটওয়ার্ক চালু থাকবে। এতে করে ওই এলাকার মানুষ শুধু ভয়েস কল করতে পারবেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছি। তারা ৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন দেবে। ওই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে সিম সংযোগ বন্ধ করে দেওয়া হবে।’ এছাড়া এর সঙ্গে করা জড়িতদের চিহ্নিত করা হবে বলেও জানান তিনি। মন্ত্রী আরও জানান, অবৈধ সিমের কথা বলা হচ্ছে। বর্তমান আইন অনুসারে একজন সর্বোচ্চ ১৫টি সিম নিতে পারেন। ওই এলাকায় সিম নেওয়া হয়েছে মানে কারও না কারও ফিংগার প্রিন্টও আছে। ফলে কারা সিম নিয়েছে, কারও মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের হাতে সিম গেছে কিনা, তা কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতে খুঁজে বের করা হবে বলে জানান তিনি।
বিটিআরসির জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক (মিডিয়া উইং) জাকির হোসেন খান বলেন, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত রোহিঙ্গা এলাকায় মোবাইল নেটওয়ার্কের বিষয়ে এই সিদ্ধান্ত বলবৎ থাকবে। তিনি জানান, নতুন নিয়ম থাকলেও বর্ডার এলাকার মোবাইল টাওয়ারে টিএ (টাইমিং অ্যাডভান্স) ভ্যালু বজার রাখারও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বিটিআরসি থেকে এ নির্দেশনা এরই মধ্যে দেশের সব মোবাইল ফোন অপারেটরকে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।
প্রসঙ্গত, কক্সবাজারের শরণার্থী শিবিরে থাকা রোহিঙ্গাদের মোবাইল সুবিধা বন্ধে জরুরি ব্যবস্থা নিতে রবিবার (১ সেপ্টেম্বর) টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিকে নির্দেশ দেয় ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •