স্পোর্টস ডেস্ক:
নেইমারের দলবদল নাটকটা যেন মেগা সিরিয়াল হয়ে গিয়েছিল। কোনোভাবেই এর শেষ হচ্ছিল না। কখনও শোনা যাচ্ছিল একরকম, আবার কখনও অন্য। শেষ খবর, দলবদলের এই খেলায় ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টারকে কেউই টানতে পারেনি। কিভাবে পারবে? পিএসজি যে হাঁকিয়ে বসেছিল ৩০০ মিলিয়ন ইউরো!

২০১৭ সালে নেইমারকে রেকর্ড ২২২ মিলিয়ন ইউরোতে কিনেছিল প্যারিস সেন্ট জার্মেই (পিএসজি)। এরপর থেকে অনেক জল গড়িয়েছে। নেইমার প্রকাশ্যেই পিএসজি ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন। বার্সেলোনায় ফিরতে শেষ চেষ্টা হিসেবে নিজে ২০ মিলিয়ন ইউরোও দিতে চেয়েছিলন। কিন্তু পিএসজি যে তাকে আকাশছোঁয়া মূল্যে আটকে রেখেছে। তাই কোনোই সুরাহা হয়নি।

নেইমারকে নিয়ে কত কথাই হলো। আজ এই ক্লাব, তো কাল আরেক ক্লাব। শেষ লড়াইটা ছিল মূলত লা লিগার দুই বড় ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ আর বার্সেলোনার মধ্যে।

রিয়াল ১০০ মিলিয়ন নগদের সঙ্গে আরও তিন তারকা গ্যারেথ বেল, হামেশ রদ্রিগেজ এবং গোলরক্ষক কেইলর নাভাসকে দিতে চেয়েছিল। কিন্তু এত বড় প্রস্তাবেও রাজি হয়নি পিএসজি।

আরেক দল বার্সেলোনা যেন পিছুই ছাড়ছিল না। নেইমারকে দলে পেতে কম তদবির করেনি তারা। শেষ চেষ্টা করতে বেশ বড়সড় প্রস্তাবই দিয়েছিল বার্সা। ১১৮ মিলিয়ন ইউরোর সঙ্গে তিন তিনজন খেলোয়াড় দিতে চেয়েছিল। কিন্তু পিএসজির মন গলানো যায়নি।

১১৮ মিলিয়ন ইউরোর সঙ্গে ইভান রাকিতিচ আর জন-ক্লেয়ার তবিদোকে পুরোপুরি দেয়ার প্রস্তাব করেছিল বার্সা। আর উসমান ডেম্বেলেকে দিতে চেয়েছিল এক বছরের জন্য ধারে। কিন্তু পিএসজি অনড়। তারা চেয়েছিল ডিফেন্সিভ তারকা নেলসন সেমেদোকে। যা দিতে রাজি হয়নি বার্সেলোনা।

এত নাটকের পর আরও এক মৌসুম পিএসজিতেই থাকতে হচ্ছে নেইমারকে। পিএসজির মালিক নাসের আল খেলাইফি ব্রাজিলিয়ান তারকার দলবদল ইস্যু নিয়ে বলেন, নেইমার নিজে বার্সেলোনায় যেতে চেয়েছিলন, তবে সেটা মোটেই সহজ ছিল না।

খেলাইফি সাফ জানিয়ে দেন, কেনা দামেও নয়; নেইমারকে নিতে হলে আরও বেশি দিতে হবে। খেলাইফি বলেন, ‘নেইমার যেতে পারে। তবে সেটা অবশ্যই বড় প্রস্তাব হতে হবে, ৩০০ মিলিয়ন ইউরোর।’

এত টাকা দিয়ে কেনার মতো সামর্থ্য বা চিন্তা আপাতত কোনো ক্লাবেরেই নেই। বার্সেলোনা খুব করে চাইলেও টাকার কাছে হেরে গেছে। তাই নেইমারের ইচ্ছেটাও আর পূরণ হয়নি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •