ডেস্ক নিউজ:
বাংলাদেশের খুব ঘনিষ্ঠ একটি এনজিও সংস্থা রোহিঙ্গাদের অস্ত্র (দা-কুড়াল) দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘বিভিন্ন এনজিও প্রতিষ্ঠান ইন্দন দিচ্ছে বলে আমার কাছে খবর আছে। এ বিষয়গুলো আমরা খতিয়ে দেখছি। যারা রোহিঙ্গাদের এসব কাজে সহযোগিতা করছে তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে, শাস্তি নিশ্চিত করা হবে।’

সিলেটে শুক্রবার (৩০ আগস্ট) সন্ধ্যায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মন্ত্রীর সহধর্মিণী সেলিনা মোমেন আয়োজিত আলোচনা সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ অভিযোগ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি প্রশ্ন রাখেন, ‘রোহিঙ্গাদের ন্যাশনাল আইডি নেই; অথচ তারা কীভাবে এতগুলো সেলফোন ব্যবহার করছে? যার মাধ্যমে গত কয়েকদিন আগে বিশাল শোডাউন করল।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ‘রোহিঙ্গারা শুধু বাংলাদেশের সমস্যা নয়, সারা বিশ্বের সমস্যা। এ সমস্যা দীর্ঘস্থায়ী হলে কারও লাভ হবে না, সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। তাই এ বিষয়ে বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর সোচ্চার ভূমিকা আশা করছি।’

আব্দুল মোমেন বলেন, ‘মিয়ানমার নিশ্চিত করেছে, রোহিঙ্গারা ফিরে গেলে নিশ্চিন্তে বসবাস করতে পারবে। তাদের কেউ অত্যাচার করবে না। কিন্তু তারা এ কথা রোহিঙ্গাদের বিশ্বাস করাতে ব্যর্থ হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা তাদের (মিয়ানমার) বলেছি, আরাকানের পরিবেশের বিষয়ে বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জনের জন্য রোহিঙ্গা নেতাদের কয়েকজনকে সেখানে নিয়ে যাও, যাতে তারা পুনরায় এসে বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের বোঝাতে সক্ষম হয়। কিন্তু তারা সেটা করেনি।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •