মোস্তফা কামালঃ
চকরিয়া উপজেলার খুটাখালীতে এক নিরীহ পরিবারের বসত ভিটে জোরপূর্বক দখলে নিতে সংঘবদ্ধ দখলবাজরা হামলা দিয়ে পরিবারের সবাইকে মারধে আহত করার পর উল্টো মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে।
এ অবস্থায় ওই পরিবারটি অসহায় হয়ে পড়েছে। দখলবাজদের নির্যাতনের শিকার ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগে জানা যায়, ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড পূর্বপাড়ার বাসিন্দা মোঃ মোস্তফার স্ত্রী জরিনা খাতুনের নামীয় ও ভোগদখলীয় জমি থেকে ৩ কড়া (১ শতক) জমি ক্রয় করেন একই এলাকার হাজী ফজলুর রহমানের পুত্র হাফেজ আহমদ। হাফেজ আহমদ তার ক্রয় কৃত ওই জমিতে বনজ ও ফলজ বিভিন্ন চারা রোপণ করে ঘেরাবেড়া দিয়ে দীর্ঘ বছর গত ২০০৬ সাল থেকে শান্তি পূর্ণভাবে ভোগদখলে রয়েছেন। কিন্তু ইতি পূর্বে হঠাৎ ওই জায়গার প্রতি লুলুপ পড়ে একই এলাকার ছৈয়দ ওমর প্রকাশ কালামিয়ার পুত্র দখলবাজ মোঃ রাশেদ গং দের। ঘটনার দিন ১৫ জুন দুপুরে অভিযুক্ত রাশেদের নেতৃত্বে ৮/১০ জন দখলবাজ ওই জায়গা জোরপূর্বক দখলে নিতে অস্ত্রশস্ত্রয় সজ্জিত হয়ে অতির্কীত অবস্থায় জায়গার উপর হামলা দিয়ে জায়গার ঘেরাবেড়া ভাংচুর করে। এসময় জায়গার মালিক হাফেজ আহমদ সহ তার পরিবারের লোকজন বাধা দিলে সন্ত্রাসীরা তাদেরকেও পিটিয়ে ও কুপিয়ে রক্তাক্ত করে। এসময় স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা দ্রুত পালিয়ে যায়।
অভিযোগ উঠেছে হামলাকারীরা নিজেদের দোষ শিকার করে ঘটনার বিষয়টি স্থানীয় শালিসী বৈঠকের মাধ্যমে আপোষ মিমাংসার কথা বলে উল্টো আহতদের বিরুদ্ধে চকরিয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে। এঘটনায় স্থানীয় গ্রাম্য শালিসকারক ও সাধারণ মানুষের মাঝে ক্ষুব আর হতাশা দেখা দিয়েছে। এতে নিরুপায় হয়ে ভুক্তভোগী হাফেজ আহমদের পুত্র বধু কমরুন্নাহার বাদী হয়ে অভিযুক্ত ৭ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ৪/৫ জনকে আসামী করে চকরিয়া থানায় মামলা নং জি আর ৩৪৭/১৯ দায়ের করেন। এতে আসামী করা হয়, ছৈয়দ ওমর প্রকাশ কালা মিয়ার ছেলে মোঃ রাশেদ (২৫), তার ভাই মোজাম্মেল হক (২৮), মোঃ শফির পুত্র শহীদুল ইসলাম মুন্না (২০), আলী আকবর ফকিরের পুত্র আবুল কালাম (৪০) তার ভাই ছৈয়দ ওমর প্রকাশ কালা মিয়া (৫০) তার পুত্র মোস্তাক অাহমদ (৩০) ও মোঃ শফির স্ত্রী ছেনোয়ারা বেগম (৩৫) কে। এদিকে বাদীর দায়ের কৃত মামলা তুলে নেওয়ার জন্য আসামী পক্ষ নানা ভাবে হুমকি ধমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভুগী পরিবারের লোকজন। মামলার বাদীর স্বামী মোঃ সেলিম মোর্শেদ অভিযোগ করে জানান, দখলবাজরা আমাদের জমি জোরপূর্বক দখলে নিতে ব্যর্থ হয়ে উল্টো আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে যাচ্ছে। শুধু তাই নয় মামলার প্রধান আসামী রাশেদ ইতি পূর্বে তার ফার্মেসী দোকানে চুরির নাটক সাজিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে থানায় হয়রানি মূলক আরো একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।
এঘটনায় জানতে চাইলে চকরিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) এ কে এম সফিকুল আলম চৌধুরী বলেন, খুটাখালীতে হামলার ঘটনায় মামলার আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চলছে।
এঘটনায় ভুক্তভোগী পরিবার থানা পুলিশ সহ সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •