বিদেশ ডেস্ক:

ভারতের সর্বোচ্চ আদালত জানিয়েছে, এ বছর অক্টোবরে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের বিষয়টির বৈধতা পর্যালোচনা করবে সে দেশের সর্বোচ্চ আদালত। ওই পদক্ষেপকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে করা পিটিশনের প্রেক্ষিতে পাঁচ বিচারপতিবিশিষ্ট একটি সাংবিধানিক বেঞ্চে শুনানি হবে। বুধবার (২৮ আগস্ট) প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ’র নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ এসব কথা জানিয়েছে। এর মধ্য দিয়ে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপের ঘোষণার বৈধতা নিয়ে সিদ্ধান্ত আপাতত ঝুলে রইলো সুপ্রিম কোর্টে।

গত ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের ঘোষণার মধ্য দিয়ে কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসনের অধিকার কেড়ে নেওয়া হয়। জম্মু-কাশ্মিরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করতে পার্লামেন্টে পাস হয় একটি বিলও। আর গত ৯ আগস্ট রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে আইনে পরিণত হয় তা। এই পদক্ষেপকে কেন্দ্র করে কাশ্মিরজুড়ে মোতায়েন করা হয়েছে বিপুলসংখ্যক অতিরিক্ত সেনা। ইন্টারনেট-মোবাইল পরিষেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে সেখানকার বিপুলসংখ্যক স্বাধীনতাপন্থী ও ভারতপন্থী রাজনৈতিক নেতাকে।

জম্মু ও কাশ্মিরের অন্যতম রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল কনফারেন্সসহ অনেকেই সরকারের এই পদক্ষেপকে অসাংবিধানিক ও বেআইনি বলে দাবি করেছে। কেন্দ্রীয় সরকারের এমন সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে একাধিক পিটিশন দায়ের হয়। বুধবার (২৮ আগস্ট) এস এ বোবদে এবং বিচারপতি এস এ নাজিরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে এর শুনানি ছিল। শুনানি শেষে জম্মু ও কাশ্মির সংক্রান্ত সমস্ত আবেদন খতিয়ে দেখার জন্য ৫ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চের কাছে সেগুলো পাঠিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। বিচারপতিরা বলেন, ‘আমরা বিষয়টি পাঁচ বিচারকের সাংবিধানিক বেঞ্চের কাছে প্রেরণ করেছি’।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •