নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

কক্সবাজার বাঁচাতে রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসন করুন। তা নাহলে পুরো কক্সবাজার গিলে খাবে। স্থানীয় বাসিন্দারা মহাসংকটে পড়বে। এজন্য দলমত নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধ প্লাটফর্ম চাই। আর বসে থাকলে হবেনা। দাবী বাস্তবায়নে সবাইকে মাঠে নামতে হবে। রোহিঙ্গা থেকে বাঁচতে হবে। কক্সবাজার বাঁচাতে হবে।
কক্সবাজারের সমসাময়িক সমস্যা নিয়ে কক্সবাজার সম্পদ রক্ষা আন্দোলনের আলোচনা সভা ও চা-চক্রে বক্তারা এমন মন্তব্য করেন।
মঙ্গলবার (২৭ আগস্ট) সন্ধ্যায় শহরের শৈবালের রেস্তোরাঁয় সভায় বক্তারা বলেন, ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গাদের সমাবেশ আমাদের জন্য অশনি সংকেত। প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্থ করতে বিদেশিরা চক্রান্ত করছে। তাতে স্থানীয় কিছু সুবিধাবাদি চক্রও জড়িত।
কক্সবাজার সম্পদ রক্ষা আন্দোলনের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তারা আরো বলেন, কক্সবাজারের এলও অফিসে লাগামহীন যে দুর্ঘটনা অনিয়ম চলছে তার লাগাম টানতে হবে।
সংগঠনের সদস্য সচিব জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক মুফিজুর রহমানের স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে শুরু হওয়া সভায় বক্তব্য রাখেন- বীর মুক্তিযোদ্ধা কামাল হোসেন চৌধুরী, একেএম মনসুর উল হক, কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সভাপতি ও দৈনিক সৈকতের সম্পাদক মাহবুবর রহমান, সিনিয়র সাংবাদিক মমতাজ উদ্দিন বাহারী, দৈনিক দৈনন্দিন পত্রিকার প্রধান সম্পাদক আওয়ামী লীগ নেতা রাশেদুল ইসলাম, দৈনিক সমুদ্র কণ্ঠের সম্পাদক ও প্রকাশক অধ্যাপক মঈনুল হাসান পলাশ, আওয়ামী লীগ নেতা মোস্তাক আহমদ শামীম, কমরেড গিয়াস উদ্দিন, অধ্যাপক আবুল মনসুর, জাপা নেতা মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, ব্যবসায়ী নেতা হাসান তালুকদার, সাংবাদিক ইমাম খাইর, মোহাম্মদ নেজাম, যুব সংগঠক মোঃ ইলিয়াছ মিয়া।
আলোচনা ও চা-চক্রে উপস্থিত ছিলেন -এডভোকেট মোঃ সালাহ উদ্দিন, সাংবাদিক গোলাম আজম খাঁন, ইব্রাহিম খলিল উল্লাহ মামুন, এইচ এম নজরুল ইসলাম, আতিকুর রহমান মানিক, মম আহমদ, নাসির উদ্দিন বিপু, মোহাম্মদ হাসান, তৌহিদুল ইসলাম (তোহা), এসএম কিবরিয়া খান, মাসুম চৌধুরী, আসাফ উদ দৌলা আশেক, শহীদুল্লাহ নাঈম, সোজা উদ্দিন, এইচএম তারেক আজিজ, মোঃ রায়হান, মোহাম্মদ আরিফ, দোলন ধর প্রমুখ।
সভার সমাপনি বক্তব্যে কক্সবাজার সম্পদ রক্ষা আন্দোলনের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী বলেন, দেশের সম্পদ লুটেপুটে খাওয়ার জন্য আমরা মুক্তিযুদ্ধ করিনি। সনদ নিতেও যুদ্ধে যাইনি। পরাধীনতা থেকে মুক্ত হয়ে দেশকে সমৃদ্ধ করতে জীবনবাজি রেখে পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিলাম।
দুঃখের বিষয়, আজ কি হচ্ছে? কক্সবাজারে যোগ্য নেতৃত্ব নেই। সবখানে দুর্নীতি। যাকে পদে বসানো হয়, সেই দুর্নীতিতে পকেট ভারি করে।
তিনি বলেন, মানুষ কি চায়? তা নিয়ে আমরা কাজ করব। কক্সবাজারকে বাঁচাতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে নামতে হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •