আলমগীর মাহমুদ

ওমর ফারুক হত্যার পর রোয়াইঙ্গাদের সমাবেশ।বিদেশ থেকে ভিডিও বার্তা। একজন বৃটিশ কর্মচারীর ভবিষ্যৎবাণীই আমার কল্পনায় কড়া নাড়াচ্ছে।

সেই বৃটিশ কর্মচারী Francis Buchanan চট্টগ্রাম ও ত্রিপুরায় খাদ্য উৎপাদন ব্যবস্থা সম্পর্কে তথ্যসংগ্রহের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন ১৭৯৮ সালে।

রাজদায়িত্ব পালনে তিনি আমাদের এতদঞ্চল ভ্রমন করেন।ভ্রমন কালে তাঁর ব্যক্তিগত দিনপঞ্জিতে অত্র এলাকার ভৌগোলিক, সামাজিক,রাস্তাঘাট, জনপদ,বসতি যেখানেই উনার পা পড়েছে সবের বিষদ বর্ণনা লিপি করেন।

এই ডায়েরি পরে লন্ডন থেকে বই আকারে প্রকাশিত হয়।যাহ আজ বিরল এক তথ্যভান্ডার।সাথে কালের রাজসাক্ষীও।

সোনার পাড়া এলাকা উনার বর্ণনায় “সোনা পালং” হিসেবে উঠে এসেছে।হয়ত আজকের সোনার পাড়ার গায়েও আমাদের ঐতিহ্যবাহী, জন্মপরিচয়ে জড়িয়ে থাকা পালং এর মতই পালং ছিল।

সেই সময়ে বৃটিশের অধীন ছিল দেশ।আরাকানী রিফুইজি সমস্যায় তখনও জর্জরিত ছিল অত্র এলাকা।তাদের সমস্যা সমাধান চিন্তায় বুকানন নিজদায়িত্ব পালনের সাথে বৃটিশ সাম্রাজ্যের হিত চিন্তায় নিজ মতামত তুলে ধরেন।

তখন হয়ত সে চিন্তা ঠিক ছিল যেহেতু দুই দেশই তাদের অধীন। সব ভূমি মালীক তারা।আমার তোমার বলে কিছু ছিল না। সবই ছিল তাদের।

আরাকানী উদ্বাস্তুদের প্রতি চট্টগ্রামের স্থানীয় হিন্দু, মুসলমানদের বিরূপ মনোভাব ফ্রান্সিস বুকানন লক্ষ্য করেন।তার মতানুযায়ী…

আরাকানী উদ্বাস্তুদের নিজস্ব কর্মচারী দ্বারা অর্থাৎ আরাকান অধিবাসীদের দ্বারা পরিচালিত করা প্রয়োজন এবং সম্ভব হলে উদ্বাস্তুদের বসবাসের জন্য একটি ভিন্ন জেলা প্রতিষ্ঠা করা যেতে পারে।
75
ফ্রান্সিস বুকানন এ ক্ষেত্রে বারপালং ও নাফনদীর তীরবর্তী অঞ্চলে(উখিয়া, টেকনাফ অঞ্চল,বর্তমানে যেখানে রোয়াইঙ্গারা) এই জেলা গঠনের পক্ষে মত প্রকাশ করেন।
অবশ্য এক্ষেত্রে উদ্বাস্তুদের স্থায়ী বসবাসের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তার জন্য সামরিক বাহিনী মোতায়েনের উপর ও তিনি সর্বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন।১

বুকাননের এমন চিন্তা এত বছর পর আর্শ্রিত রোয়াইঙ্গাদের বুকে বাপ দাদার দিন্যা আরকানের খতিয়ানী ভূমি বিক্রি ঠিকবে না বলে ওয়ারিশী চিন্তার ফানুস ঢুকিয়ে দিল কে!!

আলো বঞ্চিত রোয়াইঙ্গাদের ঘোড়ার উল্টোপিঠে বসিয়ে “ন যাইয়ুম” ! “ন যাইয়ুম” তালিয়া বাজানো র বল যোগাচ্ছে কারা!

রোয়াইঙ্গাদের বুঝতে হবে অস্ত্র ব্যবসায়ীরা প্রেমিক নয়,ফিলিস্তিন,,,, কাস্মীরের জন্মদাতা।

মৃত্যু তাদের কাঁদায় না। তারা যে “love”নয় ‘লাভে’ বিশ্বাসী!!

দোহাইঃ—
1/ Francis Buchanan’s Journey Through Chittagong and Tippera,1798,India office Manuscripts, ADD 19286SCH-6575

লেখক :-বিভাগীয় প্রধান। সমাজবিজ্ঞান বিভাগ। উখিয়া কলেজ। কক্সবাজার।
[email protected]

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •