সব ধরনের মতামত প্রকাশের নিরাপত্তা আছে?

তানভিরুল মিরাজ রিপন

দুনিয়ার সব সোশ্যাল মিডিয়াগুলো আমাদের তথ্য রিজার্ভ করে।শুধু যে সোশ্যাল মিডিয়া বলবো না ই-কমার্স সাইটগুলোও এখন দক্ষ তথ্য নিতে। রাইড শেয়ার,ফুড ডেলিভারি কোম্পানি,নানা কিসিমের মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিগুলো এখন তথ্য সংরক্ষণে রাখে। সে তথ্য তারা বিক্রি করে ব্যবসা সফল উদ্যোক্তা হয়। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় মার্ক জাকারবার্গ । বিচার মুখোমুখি হয়েছিলেন,জরিমানাও গুনতে হয়েছিল। আদৌ জনমন সর্বর্ধ্বো জনগনকে ফেইসবুক থেকে সরিয়ে আনতে পারেনি। টুইটরও একই কান্ড ঘটিয়েছিলো। টুইটরের প্রধান কর্মকর্তা জ্যাক ডরিসকে সমন জারি করেছিলো তথ্য ফাঁস করার অভিযোগে, গুগল প্রধান সুন্দর পিচাইর বিরুদ্ধেও সমন জারি করেছিলো মার্কিন প্রতিনিধি সভার একটি কমিটি। এইতো কিছুদিন আগে ভারতের এক রেপ গানশিল্পী, খালিস্তানের স্বাধীনতা আন্দোলন কর্মী হার্ড কৌর মন্তব্য জানিয়ে টুইটরে একটি ভিডিয়ো আপলোড করেন,ভিডিয়োতে ভারতের প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে মন্তব্য করা হয়। মন্তব্য সবসময় বিরোধীদের জন্য বিষ্ফোরক। টুইটর একটি সামাজিক যোগাযোগের, মন্তব্য জানানোর প্লট। খালিস্থান স্বাধীনতা আন্দোলন করছে,কাশ্মীরও স্বাধীনতা আন্দোলন করছে।পাকিস্তানের বেলুচিস্তানও করছে স্বাধীনতা আন্দোলন। স্বাধীনতা মানুষের মানুষিক অধিকার। মানুষ সবসময় স্বাধীন থাকতে চায়। ফেইসবুক বর্ণবিদ্বেষী, জাতিবিদ্বেষী,ধর্ম বিদ্বেষী,যৌনতা ছড়ানোর মতো সকল কন্টেন্টের বিরুদ্ধে সবসময় সরব। কিন্তু যখনই আমেরিকা স্বার্থ পরিপন্থি কোনো মন্তব্য হলে সেটি ফেইসবুকে দেখতেও পাওয়া যাবে না।প্রকাশ্যে অপ্রকাশ্যে বিশ্বের নানান দেশে বাংলাদেশের বর্তমান সরকারের মতো একটি সুসজ্জিত বাকস্বাধীনতা দেওয়া আছে। যেটি নিরব থাকাকে সমর্থন করে।ওসব কথা না হয় বাদ দিলাম, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সরকার ইশতেহার মতে কি করছে না করছে জনগন তা দেখছে, আমাদের তা গুছিয়ে প্রকাশ করা কাজ। সেটি শুধু আমাদের না প্রত্যেক সচেতন নাগরিকের প্রকাশ করা কাজ। আওয়ামিলীগ সরকার বিরোধী দলের নেতা-নেত্রীদের ফোনে আড়ি পাতা,তাদের ব্যক্তিগত তথ্য ঘাটাঘাটি করা এগুলো কোনো মতে ন্যায় বহির্ভূত নয়। এরপরও রাষ্ট্র ন্যায় বহির্ভূত কাজের স্পষ্টতা দিয়েছেন, তা মাত্র বিরোধী মতের জন্য। আওয়ামী সরকারের শাসন চলাকালীন সময়ে যতজন ভিন্ন মতের মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। তা বিএনপির শাসনামলকে হার মানাচ্ছে বলবো না। তবে আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে তা কমিয়ে আনার কথা। কিন্তু তা নিয়ে সরকার এখন উগ্রবাদী শক্তির সাথে আপোষ করে রাজনৈতিক ফায়দা লুটছে৷ আওয়ামীলীগ সরকারের কাছে সবসয়ম আশা করে সেক্যুলার চিন্তা ভাবনা নিরপেক্ষ ন্যায় বিচার। কিন্তু তা আছে?

বলিউডের বিখ্যাত সংগীতশিল্পী ও সংগীত পরিচালক আরমান মালিক ভারতের সংখ্যালঘু জাতের (মানুষ) ৷ সে মুসলমান। যেখানে ভারত সরকারের প্রাক্তন মন্ত্রী চিদম্বর মন্তব্য করে ঠাঁই পাচ্ছেন না,শেষাবধি গ্রেফতার হতে হলো।সেখানে আরমান মালিক অথবা সালমান খান,শাহরুখ খান, আমির খান প্রমুখ ব্যক্তিবর্গের কি নিরাপত্তা আছে আমি জানিনা। সংখ্যালঘুরা যত বড় মাপের কেউ হোক না কেনো সংখ্যাগরিষ্টের কাছে তারা মুসলমান। ভারতে মুসলমান হওয়া যেমন পাপ। বাংলাদেশে হিন্দু হয়ে জন্ম হওয়াটা পাপ। শুধু হিন্দু কেনো,অন্যান্য ধর্মাবলম্বীরা কেউ কোনো স্থানে নিরাপদ না। উন্নয়নের রাজনীতির চেয়ে ভোটে জেতার রাজনীতি বেশি চলছে। অথচ বাংলাদেশে সবসয়ম দরকার সেক্যুলারিজম, সেক্যুলারিজম মানে তো ধর্মহীনতা নয়।

ব্রাজিলের আমাজন বনে অগ্নিকান্ড ঘটেছে। দিনদিন রতি মহারতিরা পরিবেশের বিপর্যয় ঘটিয়ে যাচ্ছে।৮৩% অগ্নিকাণ্ডের পরিমান এবার বেড়েছে। ব্রাজিলের প্রধানমন্ত্রী অভিযোগ করেছেন সরাসরি এনজিও গুলোর দিকে।তিনি বলেছেন ‘এনজিও গুলোকে বরাদ্দ কম দেওয়াতে তারা রাগে ফুঁসছে।এই অমানবিক কাজটি তারাই ঘটিয়েছে। ’ ব্রাজিলের প্রধানমন্ত্রী জাইর বনসোলরোর মন্তব্যকে একেবারে রাজনৈতিক বক্তব্য বলে বিবেচনাহীনও মনে করছি না।যে এনজিওগুলো মানব কল্যানে কাজ করার কথা,সে এনজিও গুলো এতো বিলাস জীবন যাপনে অনুদানের টাকা গুলো খরচ করে মানব কল্যানে তাঁরা কতটুকু খরচ করে তা নিয়ে প্রশ্ন রীতিমত উঠছেই। সুতরাং মোটেও ব্রাজিল প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতা ফেলনা নয়। এনজিও গুলো রোহিঙ্গা সমস্যা ঘটানোর জন্য মায়ানমারকে আর্থিকভাবে সাহায্যও করেছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে। ফিরে আসি প্রসঙ্গে, আমাজনের অগ্নিকাণ্ড নিয়ে টুইটরে তেমন কেউ সরব নয়। বনমানুষদের অধিকার সবসময় পুঁজিপতিদের শিল্পের তলে। পুঁজিপতিদের স্বর্নযুগ চলাকালীন সময়ে কেউ কারো অধিকার নিয়ে কথা না বলে নিজে কিভাবে খুব সহজে পুঁজিপতি বনে যাবে তা নিয়ে মশগুল।যেমনটা “ পাশের বাড়ির ছেলে হবে ক্ষুদিরাম,আমার ছেলে হবে মস্তবড় সরকারি অফিসার”। বেশ কয়েকজন ভারতীয় মস্তবড় মাপের মানুষ আদিবাসীদের আগুন দেওয়া নিয়ে মন্তব্য করেছেন। খুবই ভালো, কিন্তু কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে তারা একেবারে নিরব। আবার তারাই খালিস্থান নিয়েও নিরব। আবার যে মুসলিমরা কাশ্মীর নিয়ে সরব তারা আবার ইয়েমেন নিয়ে নিরব। একেবারে মুখ খোলতে নারাজ। ঠিকই বাংলাদেশে ফিলিস্তিনের জন্য মায়া করে ইসরায়েলের পণ্য বয়কট করেছে, এখনো আমরা পণ্য গুলো ব্যবহার করি। কিন্তু সৌদি আরবের অত্যাচর মোড়লপনার বিরুদ্ধে কোনো মুসলমান বলছেন না৷ ভারতের মতো আমাদের দেশেও ভূ-সমস্যা রয়েছে।যখন আমি চাকমা রাজা দেবাশীষ রায়ের সাথে বসলাম, আমিও তার বিবৃতি শুনে অবাক হয়েছি।কতো নারী নির্যাতন হয়,কতো শিশু অধিকারহীনতায় ভোগছেন।কিন্তু রাষ্ট্র তা নিয়ে ন্যায় নিষ্ঠতার ধার ধারছেন না। মুসলমানিত্ব শুধু জাগে না নারী ধর্ষণে,শিশু বলাৎকারের সময়। ন্যায় নিষ্ঠতা শুধু জাগে বিরোধী দলের মত দমনে। নিজেদের দলের ভেতরে পোষা দুর্নীতিবাজ,খুনীদের বিরুদ্ধে কারো ন্যায় নিষ্ঠতা কাজ করে না। জাতিগত হানাহানিও কম নাই৷ মন্দির ভাঙা,প্যাগোড়া ভাঙা এগুলো নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার স্যাপার। এসব নিয়েও কেউ সরব থাকেনা। লালন শাঁই বলেই গেলেন, “ বাড়ির পাশে আরশিনগর, সেথা এক পড়শী বসত করে,একদিনও না দেখিলাম তারে। ” আমাদের প্রথমে বিবেচনায় রাখতে হবে কতটা রাষ্ট্র দ্বারা পরিচালিত অত্যাচার, অন্যায়ের প্রতিবাদ করা। বাড়ির পাশের পড়শীর খবরাখবর নেওয়া।

এভাবে শান্তি কায়েম হবে? আমরা একবারও মানুষের জন্য ভাবছি? ধর্মগত পরিচয় আমাদের প্রত্যেকের আছে।যে ধর্ম ছেড়েছে,যে ঈশ্বরকে না বিশ্বাস করছে। তাকে কি ঈশ্বর ছেড়ে দিয়েছে? তাহলে আমরা কার বিরুদ্ধে লড়ছি? কাকে সুযোগ দিচ্ছি? পৃথিবীর শান্তির জন্য মানুষের মত,পথ,ভাবনা,চিন্তা সর্বোপরি মানুষিক দেহকে আগে ভাবতে হবে। ভাবলে পৃথিবীর কোনো কালে অশান্তির হবে না। যেমন জাতির পিতা তার “ কারাগারের রোজনামচা ” বইয়ে লিখেছেন, ‘ যে অত্যাচার করে টিকে থাকতে চায়,তার মেরুদণ্ড খুব দুর্বল আঘাত করলে ভেঙে যাবে। ’

সর্বশেষ সংবাদ

পেকুয়ায় অস্ত্র-গুলিসহ ডাকাত আলমের মরদেহ উদ্ধার

ভাইয়ের মারধরে মৃত্যুশয্যায় স্বামী পরিত্যক্তা বোন

চকরিয়ায় নূরানী মেধা বৃত্তিতে ৬শতাধিক শিক্ষার্থীর অংশ গ্রহণ

কক্সবাজারে চারদিনের আয়কর মেলা সমাপ্ত

সৌদিআরব প্রবাসী কক্সবাজার জেলা বিএনপি’র কমিটি পুনর্গঠন

রাঙ্গামাটিতে জেএসএসের দুই পক্ষের গোলাগুলিতে নিহত ৩

শোভন-রাব্বানী ও ৫ এমপিসহ ১০৫ জনের সম্পদের অনুসন্ধানে দুদক

বৌদ্ধ ধর্মীয় ট্রাস্টের তহবিল সাড়ে ৭ কোটি থেকে ৫০ কোটি করা হবে : রাষ্ট্রপতি

অতিরিক্ত সচিব সাইফুল্লাহ মকবুল মোরশেদের তুরস্ক যাত্রা

মালয়েশিয়ায় সাবেক এমপি কাজলের জন্মদিন পালন

নতুন অফিস ব্লাড ডোনার’স সোসাইটির ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন

চকরিয়া কাকারার শিশু ইয়াছিন ও রাকিব ম্যাজিস্ট্রেটের হেফাজতে

আমিরাত প্রবাসীরা পাচ্ছে বাংলাদেশের এনআইডি

ফেনী জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ডিবির ওসি রনজিত কুমার বড়ুয়া

চট্টগ্রামে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ হত্যা,ডাকাতি মামলার আসামি নিহত

শনিবার কালারমারছরা প্রাইমারি মাঠেই হচ্ছে জলদস্যুদের আত্মসমর্পণ

পেঁয়াজের মূল্য ইস্যুতে ২৫০০ ‘অসাধু ব্যবসায়ীর’ বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা

আইন কমিশনের চেয়ারম্যান খাইরুল হক ৩ দিনের সফরে কক্সবাজারে

লিবিয়ায় বিমান হামলায় ৫ বাংলাদেশি নিহত

টেকনাফের সদর, বাহারছড়া ও হ্নীলা আ. লীগের সম্মেলন ও কাউন্সিল বাতিল