রামু প্রতিনিধি:

রামুতে আবারে সাংবাদিক কাশেমের বৃদ্ধ পিতা উপর নগ্ন হামলা চালিযে মারাত্মক জখম করেছে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা। এসময় অল্পের জন্য প্রানে রক্ষা পায় সাংবাদিক কাশেম। ২১আগস্ট সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় রামুর  উত্তর ফতেখাঁরকুল তেচ্ছিপুল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হামলায় আহত কাশেমের পিতা বর্তমানে রামু হাসপাতালে সিকিৎসাধীন রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও সাংবাদিক কাশেম জানান, ঘটনার দিন সন্ধ্যায় নিজ বাড়ি থেকে বের হয়ে চৌমুহনী স্টেশনে যাওয়ার উদ্দেশ্যে তেচ্ছিপুল স্টেশনে পৌছলে র্পুব পরিকল্পিতভাবে উৎপেতে থাকা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী কলিম উল্লাহর নেতৃত্বে আমির হোছন, ছলিম উল্লাহ ও তৌহিদুল হাসান জুয়েল তাদের গতিরোধ করে। এ সময় কাশেম প্রানপনে দৌড়ে নিজেকে রক্ষা করতে পারলেও তার বৃদ্ধ পিতাকে একা পেয়ে সন্ত্রাসীরা লোহার রড় ও হাতুড়ি দিয়ে বেদড়ক পিঠিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে। পরে স্থানীয়রা এসে আহত কাশেমের পিতা মালেকুজ্জামানকে উদ্ধার করে রামু হাসপাতালে ভর্তি করান। সাংবাদিক কাশেম আরো জানান, মুলত সন্ত্রাসীদের প্রধান লক্ষ উদ্দেশ্য আমাকে হত্যা করা। তারা আমাকে ধরতে র্ব্যথ হয়ে আমার বৃদ্ধ পিতার উপর  নগ্ন হামলা করল।

এদিকে  সন্ত্রাসী কলিম উল্লাহ ও তার সাঙ্গ পাঙ্গদের প্রতিনিয়ত হুমকিতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে সাংবাদিক আবুল কাশেমের পরিবার।স্থানীয়রা জানান, সন্ত্রাসীদের বিরোদ্ধে প্রশাসন আইনগত ব্যবস্থা না নিলে যে কোন মুহুর্তে বড় ধরনের প্রাননাশের ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান। উল্লেখ্য গত ১আগস্ট সন্ধ্যায় বসত ভিটা দখলে নিতে কলিম উল্লাহ গংরা সাংবাদিক আবুল কাশেমের পরিবারে উপর হামলা চালিয়ে তার পিতা মালেকুজ্জামান(৬৫),তার বৃদ্ধ মা, বোনইসমত আরা, মুর্শিদা বেগম ও  ভাই নুরুল হাসেমকে এলোপাতাড়ি আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে। এসময় সন্ত্রাসীরা বাড়িতে  এবং বাড়ির ভেতর দামি দামি আসভাবপত্রেও  ভাংচুর চালায়।

এ ঘটনায় কাশেমের মা নুরুন্নাহার বাদী হয়ে কলিম উল্লাহ গংদের বিরুদ্ধে রামু থানায় মামলা দায়ের করে বলে জানান সাংবাদিক আবুল কাশেম।

এব্যাপারে রামু থানার এস আই মিল্টন জানান, ঘটনার ব্যাপারে তাকে সাংবাদিক কাশেম মোবাইল ফোনে জানিয়েছিল, তিনি তাকে থানায় অভিযোগ দিতে বলেছেন বলে জানান। এব্যাপারে অভিযুক্তদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নাই।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •