ঈদ পার্বনের ছুটিতেও যাদের দায়িত্ব পালনে ব্যস্ত থাকতে হয় অবিরাম

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

ঈদে আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব, পাড়া প্রতিবেশী, স্বজনদের সাথে কুশল বিনিময়, পরস্পর খোঁজখবর নেয়া, আনন্দ উপভোগ করা একটা রেওয়াজ। শত শত বছর ধরে এ রেওয়াজ, ঐতিহ্য ও সভ্যতা চর্চা চলে আসছে এদেশে। এজন্য যেকোন ঈদ-পার্বনের আগে ও পরে মিলিয়ে কমপক্ষে ৩ দিন সরকারি ছুটি ঘোঘনা করা হয়। ঈদ, জাতীয় দিবস, সাপ্তাহিক ছুটি কিংবা সরকার ঘোষিত অন্যান্য ছুটি গুলোতে আনন্দ, বিনোদন, কুশল বিনিময় তো দূরের কথা, অনেকে এই ছুটিই ভোগ করতে পারেনা। তাদের মধ্যে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, হাসপাতালের জরুরি বিভাগ, আবহাওয়া দপ্তর, বিজিবি কর্তৃক সীমান্ত পাহারা ও হাসপাতালের ভর্তি থাকা রোগীর দায়িত্বশীল ডাক্তার, নার্স সহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্যদের ছুটি কোনভাবেই হয়না। এটাই স্বাভাবিকভাবে এদেশে চলে আসছে নিয়মিত। এ বছর ঈদুল আযাহার ছুটিতে এ প্রক্রিয়াটির ব্যাপকতা ও পরিসর বৃদ্ধি পেয়েছে। তার অন্যতম কারণ হলো, দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়া ডেঙ্গু রোগের ভয়াবহতা। এ ভয়াবহতায় ঈদুল আযাহার ছুটি বাতিল করা হয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ, স্থানীয় সরকার বিভাগ ও দেশের সকল পৌরসভার সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীর সকল প্রকার সরকারি ছুটি। উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অনুমতি ছাড়া কর্মস্থল ত্যাগে কঠোরভাবে নিষেধ করা হয়েছে। ডেঙ্গুরোগ মাটি করে দিয়েছে, এদের ঈদুল আযাহার সব ধরনের প্রিয়জনদের সাথে সময় কাটানো, বিনোদন ও আনন্দ উপভোগ। লোকবল সংকটের কারণে দেশের সরকারি হাসপাতাল গুলোর চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দৈনিক ২/৩ দফায়ও ডিউটি করতে হচ্ছে। সংসার ও পরিবারকে সময় দেয়া তো দূরের কথা, শ্রম দিতে দিতে ঘুম, খাওয়া-দাওয়াও নিয়মিত করতে পারছেননা তারা। রীতিমতো হাঁপিয়ে উঠছেন, হাসপাতালে দায়িত্বপালনরত সকলে। সামলাতে হচ্ছে, ডেঙ্গুজ্বর ও অন্যান্য রোগে আক্রান্ত সকল রোগীদের। অনবরত সেবা ও চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন তারা। কক্সবাজার স্বাস্থ্য বিভাগও এর ব্যতিক্রম নয়। কক্সবাজার স্বাস্থ্য বিভাগের কর্ণধার সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আবদুল মতিন সোমবার ১২ আগস্ট কোনরকমে ঈদুল আযাহার নামাজ আদায় করেছেন কক্সবাজার কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে। এর পরপরই নেমে পড়েছেন, যথারীতি কক্সবাজার স্বাস্থ্য বিভাগের বিভিন্ন গুরুদায়িত্ব পালনে। কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আবদুল মতিন কক্সবাজার জেলা সদর থেকে প্রায় ৭০ কিঃ মিঃ দূরে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরদিন মঙ্গলবার ১৩ আগস্ট সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে হাজির হন (পরিদর্শনরত উপরের ছবি)। হাসপাতাল পরিদর্শন, হাসপাতালের সার্বিক ব্যবস্থাপনার খোঁজ খবর নেন এবং সেখানকার দায়িত্বশীলদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেন। পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আবদুল মতিন ছুটে যান, চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। এ ভাবেই কেটেছে সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আবদুল মতিনের সরকারি ছুটির দু’দিন সোমবার ও মঙ্গলবার। স্যালুট, আপনাদের, যাঁরা প্রিয়জনদের সাথে ঈদুল আজহা উদযাপন নাকরে, দেশের রোগাক্রান্ত মানুষের হাসি ফুটানোর জন্য কাজ করে যাচ্ছেন অবিরাম। (তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করেছেন-রফিকুল ইসলাম, প্রধান সহকারী, কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিস)।

ছবি : পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮ টায় সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আবদুল মতিন পরিদর্শন করছেন।

সর্বশেষ সংবাদ

নতুন প্রজম্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে হবে : ডিসি কামাল হোসেন

নরেন্দ্র মোদী গঙ্গা দেখতে গিয়ে হোঁচট খেয়ে পড়ে গেলেন (ভিডিও)

‘অনুপ্রবেশকারী স্বাধীনতা বিরোধীরা আওয়ামী লীগের ক্ষতি করবে’

রামুতে উৎসবমুখর পরিবেশে নবাগত ১১জন চিকিৎসক বরণ

চকরিয়ায় শহীদ বুদ্ধিজীবি হত্যা দিবস পালিত

কোটবাজার হকার্স সমবায় সমিতির নব নির্বাচিতদের অভিষেক সম্পন্ন

বুদ্ধিজীবী দিবসে শিল্পকলার আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

‘কক্সবাজারের বধ্যভূমি সংরক্ষণের দাবি’

‘দেশকে পরাধীন ও মেধাশূন্য করার চক্রান্ত এখনো অব্যাহত আছে’

রামুতে অগ্নিকান্ডে ৯ বসত বাড়ি পুড়ে ছাই, ৫০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

লোহাগাড়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় যুবক আহত

প্রকাশিত সংবাদ প্রসঙ্গে খরুলিয়ার আমিনুল হকে প্রতিবাদ

কক্সবাজারে অনলাইন ক্যাসিনো কাণ্ডে এবার চিকিৎসক গ্রেপ্তার

খরুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা সম্পন্ন

চকরিয়ায় প্রশাসনের উদ্যোগে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত

কক্সবাজারে বিজয়ের সাংস্কৃতিক উৎসব ২৬-২৮ ডিসেম্বর

উখিয়ায় নিহত মাহবুব হত্যা মামলার আসামি ১৪ দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি, পরিবারের উৎকন্ঠা

টেকনাফে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের বিজয় দিবসের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত

গর্জনিয়ায় ব্লাড ক্যান্সার আক্রান্ত স্কুলছাত্রের সার্বিক খোঁজ-খবর রাখছে পুলিশ

কক্সবাজার শিক্ষা প্রকৌশলের পূর্ণাঙ্গ ঠিকাদার সমিতি গঠিত