সংবাদ বিজ্ঞপ্তিঃ

কক্সবাজার শহরের অন্যতম দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল আরক্বম তাহফিজুল কুরআন মাদরাসার হুসনে সাউত প্রতিযোগিতা (সিজন-১) ও অভিভাবক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
৭ ও ৮ আগস্ট শহরের লারপাড়াস্থ প্রতিষ্ঠানের ২য় শাখায় প্রতিযোগিতার ১ম রাউন্ডে পুরুষ ও বালিকা বিভাগের প্রায় একশত প্রতিযোগি অংশগ্রহণ করে।
এতে পুরুষ বিভাগ থেকে ২য় রাউন্ডের জন্য নির্বাচিত হয়- ওমর ফারুক, মুহাঃ ফাহাদ, মুহাঃ যায়েদ, মুহাঃ ইসমাইল, মাহমুদুল আলম, আবরারুল হক, রাকিবুল হাসান নাইম, মুহাঃ আতাউল্লাহ, রবিউল হাসান নকিব, মুহাঃ রিশাত, তানজিল পারভেজ, আরহাম জামিল, মুহাঃ জুবাইর, জাবের হোসাইন রাফি, আব্দুর রহমান, আব্দুল্লাহ রাফি, আবিদ শরিফ, মুহাঃ হাসান, মুহাঃ তাহিম, রাফিউল আলম রাফি, জুলকারনান তাজকির ও তকি উদ্দিন।
বালিকা বিভাগ থেকে নির্বাচিত হয়েছে- নাজনিন নিশাত ওয়াহিদা, আয়েশা নেজাম ছমা, সুমাইয়া, হামনা বিনতে ইউনুছ, নুসাইফা সুলতানা নাইমা, আনিকা, নাজওয়া ও ফাতিমাতুজজুহরা। প্রতিযোগিতায় প্রধান বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন নরসিংদী তরতীলুল কোরআন একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক হাফেজ মাওলানা কারি শামসুল ইসলাম।
৮ আগস্ট সকালে অভিভাবক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন দারুল আরক্বমের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ ইউনুছ ফরাজি।
তিনি বলেন, দারুল আরকম তাহফিজুল কুরআন মাদরাসা শিক্ষা বিস্তারের পাশাপাশি সাহিত্য-সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডেও এগিয়ে। খুব অল্প সময়ে প্রতিষ্ঠানটি পুরো জেলায় সুনাম ছড়িয়েছে। অনেক ছাত্র ইতিমধ্যে হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠতাবের স্বাক্ষর রেখেছে। ছিনিয়ে এনেছে কক্সবাজারের সুনাম।
এতে তিনি অভিভাবকদের মধ্যে মিটিং কার্ড বিতরণপূর্বক সন্তানের ভবিষ্যৎ উন্নয়নের লক্ষ্যে দিকনির্দেশনামূলক আলোচনা করেন।
অনুষ্ঠানে আগামী ১৯ আগস্ট পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানের ঈদুল আযহার ছুটি ঘোষণা করেন হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ ইউনুছ ফরাজি। এতে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •