ঈদগাঁও সংবাদদাতা:

ঈদগাঁয়ের ইসলামাবাদের শাহ ফকিরা বাজারে অবৈধ দোকান উচ্ছেদের পরপরই আবারো অবৈধভাবে দোকান নির্মাণের হিড়িক পড়েছে। রাতের অন্ধকারে একটি সংঘবদ্ধচক্র উচ্ছেদকৃত দোকান গুলো পুনঃ নির্মাণ সম্পন্ন করেছে গতকাল। এই নিয়ে সচেতন মহলে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। প্রাপ্ত তথ্যে প্রকাশ, সম্প্রতি ইসলামাবাদের শাহ ফকিরা বাজার এলাকায় একটি প্রভাবশালী সঙ্গবদ্ধ চক্র কর্তৃক সরকারি এক নম্বর খতিয়ানভুক্ত জমিতে অবৈধভাবে বেশ কিছু দোকানপাট নির্মাণ করা হয়।মমতাজুল উলুম আলিম মাদ্রাসার মসজিদ সংলগ্ন মহাসড়কের পূর্ব পার্শ্বে অবৈধ উপায়ে এ দোকানগুলো নির্মাণ করা হয়েছিল। খবর পেয়ে কক্সবাজার সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহরিয়ার মুক্তার এর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে উক্ত দোকানপাটগুলো বুধবার বিকেলে উচ্ছেদ করা হয়। একই সময়ে ফকিরা বাজারে অস্থায়ীভাবে স্থাপিত কোরবানির পশুর হাট বন্ধ করে দেয়া হয়। উপজেলা প্রশাসনের অনুমতি না থাকায় পশুর এ হাট বন্ধ করা হয় বলে জানান ভ্রাম্যমান আদালতের নেতৃত্বদানকারী সহকারী কমিশনার ভূমি শাহরিয়ার মুক্তার।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, অভিযানের দিন মাগরিবের পর থেকে রাতের অন্ধকারে আবারো দোকান নির্মাণ করেছে প্রভাবশালী ওই মহলটি। অভিযানে যে বেশ কয়েকটি দোকান উচ্ছেদ করা হয়েছিল উক্ত স্থানে আবারো দোকান উত্তোলন করা হয়। পুলিশ প্রশাসনের নাকের ডগায় এভাবে কোটি কোটি টাকা মূল্যের সরকারি জমিতে দোকানপাট ও স্থাপনা গড়ে তোলায় সচেতন মহলে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। এক মেম্বারের নেতৃত্বে ও শাহ ফকিরা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদকসহ তাদের সিন্ডিকেটের ২০/২২ জনের সমন্বয়ে এসব অবৈধ দোকান পাট নির্মাণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকে জানিয়েছেন, প্রভাবশালী ওই মহলটি স্থানীয় বন বিভাগকে ম্যানেজ করে পাহাড় কাটা, মাটিকাটা, বালি বাণিজ্য, বনভূমি দখলসহ বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত রয়েছে।
সরেজমিন এলাকায় গিয়ে তাদের নানা অপতৎপরতার কথা জানা গেছে স্থানীয়দের কাছে। মহলটি অতীব প্রভাবশালী বিধায় কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছে না।

এ ব্যাপারে ঈদগাঁও ইউনিয়ন ভূমি অফিসের কর্মকর্তা খালেদা বেগম এর নিকট জানতে চাইলে তিনি অভিযানের সত্যতা স্বীকার করে বলেন সরকারি খাস খতিয়ানভুক্ত জমিতে দোকান গুলো নির্মাণ করায় গ্রাম্য আদালতের মাধ্যমে সেগুলো উচ্ছেদ করা হয়েছে। তবে অভিযানের পরপরই দোকান গুলো পুনঃনির্মাণের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে এনে অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •