মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু:
নাইক্ষ্যংছড়ির পার্শ্ববর্তী রামুর কচ্ছপিয়া বন বিট কর্মকর্তা শেখ মিজানুর রহমান সোমবার ( ৫ আগষ্ট) রাতে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে অজ্ঞাত নামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কক্সবাজারের রামু থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছেন। জানা যায় রামুর বাকঁখালী রেঞ্জাধীন কচ্ছপিয়া মৌলভীর কাটা বিট অফিস কম্পাউন্ডে বিভিন্ন সময়ে জব্দকৃত মূল্যবান বনজ দ্রব্য রক্ষিত থাকে। প্রায় সময় একজন চিহ্নিত ব্যক্তির নেতৃত্বে উক্ত রক্ষিত বনজ দ্রব্যাদি চুরি করার ও আমি এবং আমার স্টাফদের শারীরিক ভাবে ক্ষতির চেষ্টা চালিয়ে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৪ আগষ্ট গভীর রাতে অজ্ঞাত নামা ব্যক্তিরা অফিসের বিদুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়ে আমি আসার পথে পথ গতিরোধ করে হামলার পরিকল্পনা করে। অজ্ঞাত নামা সন্ত্রাসীদের হামলার এ পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়। কারণ এসময় বন প্রহরীদের দ্রুত কর্মতৎপরতার কারণে এবং গর্জনিয়া ফাঁড়ী থেকে পুলিশ আসায় আমি ও আমার স্টাফদের ক্ষতি সাধণ করতে পারে নাই অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা। তাই বিট অফিসের কম্পাউন্ডে রক্ষিত মূল্যবান বনজ দ্রব্য চুরি এবং আমিও স্টাফদের ক্ষতি সাধন করতে পারেনি। তারা যেকোন সময় রাতের আধারে ববা গোপনে হামলা করতে পারে বিধায় জানমালের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতেছি তাই ভবিষ্যতের জন্য বিষায়াদি থানায় সাধারণ ডায়েরী যোগে অবহিত করি। যার নং ২৩৫, ২০১৯ ইং। উল্লেখ্য গত সপ্তাহে বনের জমি হইতে উচ্ছেদ করা দালান ঘর হেডম্যান নামধারী মনজুর আলম কর্তৃক মোটা অংকের টাকায় পুন-নির্মাণ করায় দুই বন জাগিদার এ বিষয়ে তর্কাতর্কির এক পর্যায়ে মারামারির ঘটনা ঘটে এতে মনজুরের হাতে থাকা লম্বা টর্চলাইট দিয়ে বন জাগিদার শফিক আহাম্মদ ব্যাদিয়া ও তার ছেলে আবু তাহের আহত হন। এসময় মনজুর আহত হয়। এবিষয়ে বন অফিসের কর্মকর্তা,বন প্রহরীদের সাথে মনোমালিন্য হলে প্রকাশে মনজুর ও তার ভাই শাহ আলম দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়। এলাকাবাসীর মতে গত ৪ আগষ্ট রাতে বিদুৎ এর লাইন তারাই বিচ্ছিন্ন করে বন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপর দল বল নিয়ে হামলার পরিকল্পনা করতে পারে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাকঁখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা আতা এলাহী বলেন মনজুর কোন তালিকাভুক্ত হেডম্যান নয়। তার অপকর্মের বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •