মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

আইনজীবীরা হচ্ছেন আদালতের অপরিহার্য অংশ। একটি বাইসাইকেলের যেমন দু’টি চাকা রয়েছে, আদালতেরও তেমনি দু’টি চাকা রয়েছে। একটি চললেই আরেকটি চলে। একটি চাকা কখনো একা একা চলতে পারেনা। আর আদালত ও আইনজীবীর মধ্যে সম্পর্ক হলো বাইসাইকেলের দু’টি চাকার মতোই। আইনজীবীরা আইন ও বিধি বিধান আদালতের সামনে তুলে ধরে আদালতকে সহযোগিতা করে। একজন আইনজীবী শুধু পেশা হিসাবে বেচে নিয়ে কখনো আইন পেশায় আসেনা। পেশার পাশাপাশি নিজেকে একজন মানবাধিকার কর্মী ও আইনের শাসনের বাহক হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করে। তাই যেকোন আইনজীবীর স্মৃতিকে স্থায়ীভাবে ধরে রাখা এবং তার কর্মময় জীবনকে মূল্যায়ন করা সকলের দায়িত্ব ও কর্তব্য। এতে নবীনেরা অনুপ্রাণিত হবে এবং প্রবীণেরা মূল্যায়িত হবে। নতুন প্রজন্ম জানবে, শিখবে এবং প্রেরণা ও প্রত্যয়ে সমৃদ্ধ হবে।

কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির প্রয়াত সাবেক সভাপতি এডভোকেট আমজাদ হোসেন, এডভোকেট নুরুল কবির ও এডভোকেট ফাহিমা আক্তারের পরিবারের সদস্যদের কাছে পৃথকভাবে প্রদত্ত জীবনী স্মরক প্রদানকালে কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ খোন্দকার হাসান মোঃ ফিরোজ একথা বলেন। তিনি বলেন-একজন আইনজীবী হচ্ছে, সমাজের দর্পন। তাই তাদের জীবনীকে স্থায়ীভাবে ধরে রাখতে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। টেকসই ও মজবুতভাবে বাঁধাই করা ও মনোরম, নান্দনিক ডিজাইনে মাল্টিকালার প্রিন্টে ছাপানো এবং জেলা ও দায়রা জজ খোন্দকার হাসান মোঃ ফিরোজের স্বাক্ষরে প্রদত্ত এই পৃথক পৃথক জীবনী স্মারকে মরহুম আইনজীবী ত্রয়ের বর্ণাঢ্য জীবনী সাজানো রয়েছে শ্রুতিমধুর ও কাব্যিক ভাষায়। মরহুম আইনজীবীদের পরিবারের সদস্যদের এরকম জীবনী স্মারক প্রদান কক্সবাজার জেলা জজ আদালত ও কক্সবাজার আইনজীবী সমিতির ইতিহাসে সর্বপ্রথম। কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ খোন্দকার হাসান মোঃ ফিরোজের কার্যালয়ে মঙ্গলবার ৬ আগস্ট বিকেলে জেলা ও দায়রা জজ খোন্দকার হাসান মোঃ ফিরোজের কাছ থেকে মরহুম এডভোকেট আমজাদ হোসেনের পক্ষে এ জীবনী স্মারক গ্রহন করেন-মরহুমের সহধর্মিণী ফিরোজা আমজাদ, জ্যৈষ্ঠ সন্তান এডভোকেট হোসেন রাফাত ফিরোজ, কনিষ্ঠ সন্তান শিক্ষানবিস এডভোকেট হোসেন সাজিদ জয় ও মরহুমের স্বজন এডভোকেট রবিউল হাসান টিটু এবং মরহুমা এডভোকেট ফাহিমা আক্তারের পক্ষে তার স্বামী বদিউল আলম ও কন্যা সিদরাতুল মুনতাহা তন্নী। জীবনী স্মারক গ্রহন করে মরহুম আইনজীবীদের উপস্থিত স্বজনেরা জেলা ও দায়রা জজ খোন্দকার হাসান মোঃ ফিরোজের এ স্মৃতিময় মহতী উদ্যোগের জন্য আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে মরহুম আইনজীবীদের পরিবারের সদস্যদের সাথে জেলা ও দায়রা জজ খোন্দকার হাসান মোঃ ফিরোজ, অন্যান্য বিচারকবৃন্দ ও উপস্থিত আইনজীবীরা কুশল বিনিময় করেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে কক্সবাজারের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আলহাজ্ব মোহাম্মদ তৌফিক আজিজ, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ আবু তাহের, যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ-১ সৈয়দ মুহাম্মদ ফখরুল আবেদীন, সিনিয়র সহকারী জজ (সদর) আলাউল আকবর, কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট আ.জ.ম মঈন উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট ইকবালুর রশিদ আমিন সোহেল, জিপি ও আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট মোহাম্মদ ইসহাক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও এপিপি এডভোকেট জিয়া উদ্দিন আহমেদ, এপিপি এডভোকেট সাঈদ হোসেন, কক্সবাজার জেলা জজ আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তা এস.এম আব্বাস উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •