cbn  

আলমগীর মানিক, রাঙামাটি:

রাঙামাটির মানিকছড়ি থেকে আমজাদ এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছেন পুলিশ। বুধবার দুপুরে একটি ভাড়াটিয়া বাসা থেকে লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশ।

পুলিশ জানান, মাদকাশক্ত ও নিয়মিত মদ সেবনকারি আমজাদ (২৮) নামের এক যুবক রাতে মদ খেয়ে মানিকছড়িস্থ একটি ভাড়াটিয়া বাসায় ঘুম গিয়েছিল। সকালে ঘুম থেকে উঠতে দেরি হলে তার স্ত্রী তাকে ডাকতে শুরু করে বেশ কিছুক্ষণ ডাক দেওয়ার পর সারা শব্দ না পেয়ে কান্নাকাটি শুরু করে। পরে প্রতিবেশীরা এসে দেখে আসলেই সে মারা গেছে। তখনই মানিকছড়ি পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ খবর পেয়ে এসে দেখে ভাল লোকের মতই শুয়ে আছে। পুলিশ তেমন কোন আলামত পায়নি। তার পরও ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেন।

এদিকে এই মৃত্যুর ব্যাপারে নিহতের মা-বোন ও স্ত্রী-শ্বাশুরী পাল্টাপাল্টি বক্তব্য প্রদান করে।

নিহতের মা ও বোন দাবী করে যে আমজাদের স্ত্রী ও শ্বাশুরী মিলে তাকে হত্যা করেছে।

অন্যদিকে নিহতের স্ত্রী রুবি (২০) দাবী করে তার স্বামী আমজাদকে তার মামা কাদের, মামী জোছনা ও ছোট বোনের স্বামী আল-আমীন হত্যা করেছে।

নিহতের স্বজনেরা জানান,আমজাদ নিয়মিত মদ খেতেন। এছাড়াও তার চুরি করার অভ্যাস ছিল। প্রায় সময় সে আতœীয়স্বজন ও প্রতিবেশীদের বাসাবাড়িতে চুরি করতেন। নিহত আমজাদ প্রতিদিন মদ খেয়ে রাতে বাসায় ফিরতেন। অনেক সময় বাসায়ও আসতেন না। সে মদ পান করে রাতে বাসায় এসে শুয়ে পড়ে ওই ঘুমের ঘরেই সে মারা যায়।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ইউপি সদস্য লিটন বলেন, সে নিয়মিত মদ খেত। তবে আমাদের জানামতে তার কোন শক্র নাই। আর সে এলাকায় একজন ছোটখাটো চোর ছিল।

মানিকছড়ি পুলিশ ফাঁড়ির আইসি মো.রহমান খাঁন বলেন,আতœহত্যার কোন নমুনা পাওয়া যায়নি। ধারনা করা হচ্ছে সে মদ পান করে মারা গেছে। তবে বিষয়টি পুলিশকে জানিয়েছে মর্মে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তে জন্য মর্গে পাঠিয়েছেন। ময়না তদন্ত শেষে পরিবারকে লাশ বুঝিয়ে দেওয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •