cbn  

মরহুমের ১ম জানাজার ছবি

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

রামু উপজেলার দক্ষিণ মিঠাছড়ি নিবাসী, বর্তমানে কক্সবাজার পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর তারাবনিয়ার ছরা কবরস্থান রোড নিবাসী আলহাজ্ব রফিকুল আলম চৌধুরী’র দু’দফা জানাজা শেষে দক্ষিণ মিঠাছড়ি ফকিরামুরা পারিবারিক কবরস্থানে আলহাজ্ব রফিকুল আলম চৌধুরীকে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়েছে। তার আগে শুক্রবার ২৬ জুলাই জুমার নামাজের পর দক্ষিণ মিঠাছড়ি ফকিরামুরা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা মাঠে দ্বিতীয় দফায় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। মুষলধারে বৃষ্টিতে হাজার হাজার মুসল্লীর উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় দফা জানাজায় ইমামতি করেন, মরহুম আলহাজ্ব রফিকুল আলম চৌধুরী’র ভ্রাতুষ্পুত্র মাওলানা মোহাম্মদ সাজু উদ্দিন। জানাজার আগে মরহুমের কর্মময় জীবনের স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন-ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মওলানা মোহাম্মদ হোছাইন, মরহুমের ভ্রাতুষ্পুত্র অধ্যাপক দেলোয়ার আলম চৌধুরী ও মরহুমের দ্বিতীয় পুত্র রাফাত মোহাম্মদ আয়াদ। বক্তারা বলেন-কোনদিন কোন পদে অধিষ্ঠিত না থেকেও যে, সমাজ ও রাষ্ট্রের কল্যানে এবং মহান আল্লাহতায়লার সন্তুষ্টির জন্য নিরবে-নিভৃতেই জনকল্যাণমূলক কাজ করা যায়, তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হচ্ছে-মরহুম আলহাজ্ব রফিকুল আলম চৌধুরী। তিনি নিঃসন্দেহে একজন অনুকরণীয় ও অনুসরণীয় ব্যক্তি ছিলেন। এরআগে আলহাজ্ব রফিকুল আলম চৌধুরীর প্রথম নামাজে জানাজা কক্সবাজার শহরের দক্ষিণ তাবনিয়ারছরা কবরস্থান মাঠে শুক্রবার ২৬ জুলাই সকাল ১১ টায় সম্পন্ন হয়। প্রথম জানাজায় ইমামতি করেন-বিশিষ্ট আলেমেদ্বীন, দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের বাসিন্দা ও হাজীপাড়া জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মোহাম্মদ আবু তাহের। উভয় জানাজায় রাজনীতিবিদ, সরকারি কর্মকর্তা, সামরিক কর্মকর্তা, শিক্ষক, আইনজীবী সহ বিভিন্ন পেশার প্রচুর মুসল্লী অংশ নেন।
প্রসঙ্গত, আলহাজ্ব রফিকুল আলম চৌধুরী (৮৪) বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই চট্টগ্রাম ন্যাশনাল হাসপাতালে বেলা সোয়া ২ টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লহি–রাজেউন)। মৃত্যুকালে আলহাজ্ব রফিকুল আলম চৌধুরী ২ পুত্র ও ১ কন্যা সন্তান রেখে যান। তার প্রথম সন্তানের নাম ডাঃ শাফকাত মোহাম্মদ রিয়াদ (ইংল্যান্ড প্রবাসী), দ্বিতীয় সন্তান রাফাত মোহাম্মদ আয়াদ, একমাত্র কন্যা ডাঃ নিহাদ রওনক খুকুমণি ও একমাত্র জামাতা ডাঃ এম. এ মুশফিকুর রহমান। মরহুম আলহাজ্ব রফিকুল আলম চৌধুরী হচ্ছেন-কক্সবাজার থেকে নির্বাচিত সাবেক এমএলএ ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য মরহুম জাফর আলম চৌধুরী ও মরহুমা হাসিনা বেগম চৌধুরীর চতুর্থ পুত্র। মরহুম রফিকুল আলম চৌধুরী কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের ২ বারের নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য দিদারুল আলম চৌধুরী ও দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের ৫ বারের নির্বাচিত সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম মনিরুল আলম চৌধুরীর বড় ভাই ও মরহুম এডভোকেট এখলাসুল কবির চৌধুরী ও মরহুমা নুরুন্নাহার কবিরের জামাতা এবং বাংলাদেশ সরকারের সাবেক সচিব মাফরুহা সুলতানার বড় ভগ্নিপতি। বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের ডেপুটি এটর্নি জেনারেল হিসাবে সদ্য নিয়োগ পাওয়া ব্যারিস্টার নওরোজ মোহাম্মদ রাসেল চৌধুরীর চাচা। তিনি দক্ষিণ মিঠাছড়ি নিজের পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও দক্ষিণ মিঠাছড়ি ফকিরামুরা ইসলামিয়া মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি ছিলেন। তিনি আরো বিভিন্ন শিক্ষা, সামাজিক ও ধর্মিয় প্রতিষ্ঠানের সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •