cbn  

মোঃ নাজিম উদ্দিন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:
দক্ষিণ চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় তাৎক্ষণিক পুলিশ পৌঁছায় মধ্য রাতে পাবলিকের গণপিটুনি থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন মোহাম্মদ রাশেদ (৩৫) নামের এক চালক। (২৩ জুলাই) মঙ্গলবার রাত ১টার দিকে উপজেলার কেরানীহাট এলাকায় এঘটনা ঘটে।
জানা যায়, পিকআপের চালক রাশেদ কিছু পণ্য নিয়ে চট্টগ্রাম শহর থেকে যাচ্ছিলেন লোহাগাড়ার দিকে। রাত ১টার দিকে গাড়িটি কেরানীহাট এলাকায় পৌঁছলে মহাসড়কের আইলেনের সাথে ধাক্কা লাগে। এতে গাড়ির পেছনে থাকা শিশু সাব্বির চিৎকার করে কান্না করলে লোকজন জড়ো হয়ে যায়। তখন ছেলে ধরা সন্দেহে গাড়ির চালককে মারার জন্য উদ্ধত হন লোকজন। খবর পেয়ে কয়েক মিনিটের মধ্যে ঘটনাস্থলে পুলিশের একটি ফোর্স পৌঁছে যান। সাতকানিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মশিউর রহমান গাড়ির চালক ও শিশুটিকে উদ্ধার করে ট্রাফিক বক্সে নিয়ে রাখেন। এসআই মশিউর রহমান বলেন, কিছু পণ্য নিয়ে পিকআপটি শাহ আমানত সেতু এলাকায় পার্কিংয়ে দাঁড়ানো অবস্থায় ছিলেন। এসময় সাব্বির হোসেন (৭) নামের শিশুটি গাড়ির পেছনে উঠে ঘুমিয়ে পড়ে। পরে চালক গাড়িটিতে থাকা পণ্যগুলো নিয়ে লোহাগাড়ার দিকে যাওয়ার পথে মধ্য রাতে কেরানীহাট পৌঁছলে সড়কের আইলেনের সাথে ধাক্কা লাগলে ঘুমানো থাকা শিশুটি চিৎকার দিয়ে কান্না করতে থাকে। মুহুর্তের মধ্যে লোকজন জড়ো হয়ে চালককে ছেলে ধরা সন্দেহে মারার জন্য উদ্ধত হন। খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক আমি পুলিশ নিয়ে পৌঁছে গাড়ির চালককে উদ্ধার করে ছেলেটির কাছ থেকে জবানবন্দি নিলে চালক নির্দোষ প্রমাণ হয়। পরে শিশুটির মা জেসমিন আকতারকে ডেকে এনে তার হাতে তুলে দেওয়া হয়। এতে গাড়ির চালক গণপিটুনির হাত থেকে রক্ষা পেল। শিশুটি তার মায়ের সাথে চট্টগ্রাম শহরের বাকলিয়া এলাকায় থাকে। তার পিতার নাম মৃত আহমদ হোসেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •