শহর দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ভুয়া ও নকল লাইসেন্সধারী টমটম

ধরা পড়লো জরিপ আলী সিন্ডিকেট

শাহেদ মিজান, সিবিএন:
কক্সবাজার শহরের সবচেয়ে বড় যন্ত্রণা ব্যাটরি চালিত টমটমগুলো। টমটমের কারণে সৃষ্ট যানজটে প্রতিনিয়ত নাকাল ও হয়রানি হচ্ছে শহরবাসী। ট্রাফিক পুলিশ এবং পৌরসভা নানা প্রচেষ্টা চালালেও কোনোভাবেই টমটমের দৌরাত্ম্য কমানো যাচ্ছে না। পৌরসভার হিসেবে, লাইসেন্সধারী টমটম রয়েছে পাঁচ হাজার। পৌরসভার দাবি মতে, পাঁচ হাজার টমটম শহরের ধারণ ক্ষমতার বাইরে নয়। তবে দৃশ্যত শহরে চলাচল করছে পাঁচ হাজারের আরো অধিক টমটম- এমনটি বলে থাকেন খোদ সংশ্লিষ্টরা। এটা সত্যও। তার নেপথ্যে রয়েছে বেশ সংখ্যক ভুয়া ও এক নাম্বারের একাধিক নাম্বার প্লেটধারী অবৈধ টমটম। টমটমের এই লাইসেন্স জালিয়াতিতে জড়িত রয়েছে শহরের একাধিক সিন্ডিকেট। এই জালিয়াত সিন্ডিকেটের ভুয়া নাম্বার প্লেটধারী তিনটি টমটম আটক করেছে পৌরসভা। এই সিন্ডিকেটের হোতা হলেন, বিগত পৌরসভার নির্বাচনের কাউন্সিলর প্রার্থী জরিপ আলী।

পৌরসভা সূত্রে জানা গেছে, গত ১৭ জুলাই শহরে চলাচলরত অবস্থায় ভুয়া নাম্বারধারী তিনটি টমটম আটক করেছে পৌরসভার লাইসেন্স তদারক কর্তৃপক্ষ। আর ওই নাম্বার প্লেট জালিয়াতির হোতা হলেন বিগত পৌরসভার নির্বাচনের কাউন্সিলর প্রার্থী ও শহরের ঝাউতলার বাসিন্দা ইউছুপ আলীর পুত্র জরিপ আলী। তিনি ওই টমটমগুলো মালিক নয়, তবে ভুয়া লাইসেন্স নাম্বার প্লেটগুলোর মালিক তিনি। তিনি শহরের ঝাউতলা ও ৬নং ঘাটের অবস্থিত দুইটি টমটমের গ্যারেজের মালিক। সে সুবাদে গড়ে তুলেছেন লাইসেন্স জালিয়াতির সিন্ডিকেট। অনুসন্ধান করে এমনটি তথ্য পেয়েছেন পৌরসভার টমটম লাইসেন্স তদারক কর্তৃপক্ষ। এই জালিয়াতির বিষয়ে নড়েচড়ে বসেছে পৌর কর্তৃপক্ষ। খোদ মেয়র এই ঘটনায় চরম ক্ষুব্ধ হয়েছেন। জালিয়াত চক্রকে চিহ্নিত ও তাদের জালিয়াতির বিরুদ্ধে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কক্সবাজার পৌরসভার টমটম লাইসেন্স ইন্সপেক্টর প্রমোদ পাল জানান, গোপন সূত্রে নিশ্চিত হয়ে গত ১৭ জুলাই ভুয়া নাম্বার প্লেটধারী তিনটি টমটম আটক করা হয়। ওই নাম্বার প্লেটগুলো পৌরসভা কর্র্তৃক ইস্যু করা নাম্বারপ্লেটগুলোর থেকে রং ও ডিজাইনে বিস্তর ফারাক রয়েছে। তাই সহজেই এই অবৈধ নাম্বার প্লেটধারী টমটমগুলো চিহ্নিত করে আটক করা সম্ভব হয়েছে বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, এই টমটমগুলো ধরার পর ছাড়িয়ে নিতে পৌরসভায় আসেন জরিপ আলী। তিনি পৌরসভা ভবনে ঢুকে দুঃসাহসিকভাবে টমটমগুলো ছেড়ে দিতে কর্মকর্তাদের চাপ দেন। এই নিয়ে তিনি হেলাল উদ্দীন নামে এক কর্মকর্তাকে নাজেহালও করেন। পৌর ভবনে ঢুকে আটক ভুয়া নাম্বার প্লেটদারী টমটম ছাড়িয়ে নিতে তার এই চাপ প্রয়োগ আমাদের বিস্মিত করেছে। মেয়র আসার খবর পেয়ে কৌশলে সটকে পড়ে জরিপ আলী। পরে আমরা নিশ্চিত হয়েছি টমটমগুলো মালিক জরিপ আলী নয়। তবে ভুয়া নাম্বার প্লেটগুলোর মালিক তিনি। তার গ্যারেজে চার্জ দেয়ার সূত্র ধরেই প্রতিদিন মোটা টাকার বিনিময়ে তিনি ভুলা লাইসেন্স নাম্বার প্লেটগুলো ভাড়া দিতেন। এই ঘটনায় ব্যবস্থা নিতে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিন কার্যদিবসের মধ্যেই তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য কমিটিকে নির্দেশ দিয়েছেন মেয়র।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, কক্সবাজার শহরে দৃশ্যত অবৈধ টমটম চলাচল বন্ধ রয়েছে কিন্তু কার্যত বন্ধ হয়নি। লাইসেন্স নিয়ে কঠোরতা বাড়ার পর গজিয়ে উঠে লাইসেন্স জালিয়াতির ভয়ংকর একাধিক সিন্ডিকেট। এই সিন্ডিকেটগুলো নানাভাবে ভুয়া ও একই নাম্বারের একাধিক প্লেট তৈরি করে লাগিয়ে দিয়েছে অবৈধ টমটমের গায়ে। এভাবে কক্সবাজার শহরের হাজারোধিক অবৈধ টমটম পৌরসভা ও ট্রাফিক পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে চষে বেড়াচ্ছে নির্দ্বিধায়। শহরের ৬নং এলাকা, ঝাউতলা গাড়ির মাঠ, বিজিবি ক্যাম্প, বাসটার্মিনাল ও আলিরজাঁহাল কেন্দ্রিক অন্তত ১০ সিন্ডিকেট টমটম লাইসেন্স জালিয়াতির সাথে জড়িত রয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্রের দাবির। ধরা পড়া জরিপ আলী সিন্ডিকেট এর অন্যতম শীর্ষ সিন্ডিকেট। এই সিন্ডিকেটটি ভুয়া ও এক নাম্বারের একাধিক প্লেট বানিয়ে অধৈব ব্যবসার করার অভিযোগ রয়েছে। এই সিন্ডিকেটের অন্তত অর্ধশত ভুয়া লাইসেন্স লাইসেন্সধারী টমটম রয়েছে বলে একাধিক সূত্র দাবি করেছেন। অন্যান্য সিন্ডিকেটওগুলো একইভাবে টমটম জালিয়াতির করে যাচ্ছে।

তথ্য মতে, একটি নাম্বারের প্লেটধারী চারটি পর্যন্ত টমটম শহরে চলাচল করছে। তবে তারা অত্যন্ত কৌশলের সাথে চলাচল করছে। চারটির মধ্যে একটি কলাতলী, একটি মূল শহরে, একটি মূল শহরের বাইরে এবং আরেকটি বাসটার্মিনাল থেকে লিংকরোড পর্যন্ত চলাচল করে থাকে। এসব ভুয়া নাম্বার প্লেটগুলো অবিকল পৌরসভার ইস্যুকৃত নাম্বার প্লেটগুলোর মতো হওয়ায় কোনোভাবে তা ট্রাফিক পুলিশের নজরে আসতে পারে না।

কক্সবাজার পৌরসভার প্রধান লাইসেন্স ইন্সপেক্টর নূরুল হক বলেন, ‘ভুয়া ও একাধিক নকল নাম্বারধারী প্লেটগুলো অবিকল পৌরসভার ইস্যুকৃত লাইসেন্স নাম্বার প্লেটগুলোর মতো বলে ধারণা করা হচ্ছে। সে কারণে স্বাভাবিক দৃষ্টিতে তা ট্রাফিক পুলিশের নজরে আসে না। তবে অধিক টমটমের চলাচলের কারণে বিষয়টি নানাভাবে আমাদের সন্দেহ হয়। এই রকম তিনটি টমটম আটক করতে সক্ষম হয়েছি। এই ক্লু ধরে অন্যান্য ভুয়া ও নকল লাইসেন্সধারী টমটমগুলো ধরতে অভিযান জোরদার করা হচ্ছে।’

কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, ‘পৌরসভা কর্র্তৃক যে সংখ্যক লাইসেন্স ইস্যু করা হয়েছে তাতে শহরের ধারণ ক্ষমতার বাইরে যাওয়ার কথা নয়। তারপরও টমটমের দৌরাত্ম্যে রয়েছে। এতে ভুয়া ও নকল লাইসেন্সের বিষয়টি উড়িয়ে দেয়া যায় না। আমরা তদন্ত শুরু করেছি। ধরা পড়লে কঠোর শাস্তি আওতার আনা হবে।’

সর্বশেষ সংবাদ

সড়ক পরিবহন সচিব নজরুল ইসলাম ২ দিনের কক্সবাজারে

হিজড়া আদরীর অধিকার দেবে কে?

পর্যটন ব্যবসায়ী বাহারছরার শহীদ আর নেই, মাগরিবের পর জানাজা

রোহিঙ্গা নারী পাচারে ঢাকা কেন্দ্রিক ৬ জনের সিন্ডিকেট সক্রিয় : সেমিনারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট

যে কোন বিষয়ে মানুষের মাঝে আসক্তি তৈরি হয় কেন?

ইলিয়াস কাঞ্চন বাস-ট্রাক শ্রমিকদের টার্গেট কেন?

আবরার হত্যা: বুয়েট থেকে চিরতরে বহিষ্কার ২৬ ছাত্র

আলীকদমে একমাসে ২৬ জন ডেঙ্গু রোগি শনাক্ত

১৫ টি দেশের ২শ’ নৃত্যশিল্পী নিয়ে বসছে নৃত্য উৎসব, উদ্বোধন করবেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

রামু সেনা নিবাসের প্রধানকে শুভেচ্ছা জানালেন ভারপ্রাপ্ত ডিসি আফসারুল আফসার

দেশে প্রথম শীর্ষ অস্ত্রের কারিগর আত্মসমর্পণ করছে শনিবার

পেকুয়ায় নবম শ্রেণীর ছাত্রীর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার

মোহাম্মদিয়া পাড়া কেন্দ্রিয় জামে মসজিদের নতুন ভবন নির্মান কাজ উদ্বোধন

৭ লাখ মেট্রিকটন উদ্বৃত্ত, তবু কেন লবণের সংকট?

রামু সেনা নিবাসে সশস্ত্র বাহিনী দিবস পালন ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠান

কক্সবাজার শহরে আজম খান স্মরণে কনসার্টে মাতলো হাজারো দর্শক

গ্রীণলাইন বাস থেকে ১০ হাজার ইয়াবাসহ ড্রাইভার ও হেলপার আটক

৭৬ জলদস্যু আত্মসমর্পনকারী সেভহোমে , অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন

চাকমারকুলে চলছে অবৈধ বালি উত্তোলনের রমরমা ব্যবসা

ভারপ্রাপ্ত ডিসির হস্তক্ষেপে রক্ষা পেল চকরিয়ার বিশাল পাহাড়