আতিকুর রহমান মানিক:
সারা দেশের মত কক্সবাজারেও শুরু হয়েছে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৯। সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচীকে সামনে রেখে ১৮ জুলাই (বৃহস্পতিবার) এর বর্নাঢ্য উদ্বোধন করা হয়েছে। জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে সকাল ১০ টায় আয়োজিত জনাকীর্ণ এ অনুষ্ঠানে সভাপতি ছিলেন ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আশরাফুল আফসার ও প্রধান অতিথি ছিলেন কানিজ ফাতেমা মোস্তাক এম পি। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এস এম খালেকুজ্জামান । জেলা প্রশাসন ও জেলা মৎস্য অধিদপ্তর যৌথভাবে উক্ত অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্যে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বলেন, প্রতিবছর বাংলাদেশে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ পালিত হয়ে আসছে। এর ধারাবাহিকতায় চলতি বছরও “মাছ চাষে গড়বো দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ” এই প্রতিপাদ্যে দেশব্যাপী জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ পালিত হচ্ছে। তবে এ বছর নতুন সংযোজন হিসাবে জেলা মৎস্য ভবন প্রাঙ্গনে ১৯, ২০ ও ২১ জুলাই মৎস্য মেলার আয়োজন করা হবে বলেও জানান তিনি। উদ্বোধনী বক্তব্যে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বলেন, প্রতিবছর কক্সবাজার জেলায় মাছের চাহিদা প্রায় ৫২ হাজার টন। এর বিপরীতে এখন এখন উৎপাদন হচ্ছে প্রায় আড়াই লাখ টন। এর মধ্যে বঙ্গোপসাগর থেকে উৎপন্ন হচ্ছে দেড় লাখ টন মাছ।

সরকার মৎস্য চাষ বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহন করেছে। তাই সেক্টরে সাফল্য আরো বাড়াতে হবে বলে জানান বক্তারা।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট শাজাহান আলী, কানিজ ফাতিমা মোস্তাক এম পি, সামুদ্রিক মৎস্য ও প্রযুক্তি কেন্দ্র কক্সবাজার’র মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডঃ মোঃ জুলফিকার আলী ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কায়সারুল হক জুয়েল প্রমূখ।

এতে বক্তারা আরো বলেন, সারাদেশের মত কক্সবাজারেও (১৭ থেকে ২৩ জুলাই) সপ্তাহব্যাপী জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ শুরু হয়েছে। এ উপলক্ষে গৃহীত সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মৎস্য সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান, আলোচনা সভা ও বর্ণাঢ্য সড়ক র‍্যালী, বিভিন্ন জনাকীর্ণ স্হানে মাইকিং ও ব্যাপক প্রচারণা, মৎস্যচাষ ও মৎস্য উন্নয়ন বিষয়ক উদ্ধুদ্ধকরন সভা, মোবাইল কোর্ট পরিচালনা, মৎস্য সেক্টরে বর্তমান সরকারের অগ্রগতি বিষয়ক সভা/ প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন, পোনা মাছ অবমুক্তকরন এবং সফল মৎস্য চাষীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরন ইত্যাদি। এ ছাড়াও মাছ চাষে জনগনকে সম্পৃক্তকরনের লক্ষ্যে জেলার বিভিন্ন জনাকীর্ণ স্হানে মৎস্যচাষে উদ্ধুদ্ধকরন বিষয়ক ভিডিও ও প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হবে। মৎস্য আইন প্রয়োগে এ সময় জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, কোষ্ট গার্ড ও মৎস্য অধিদপ্তরের যৌথ উদ্যোগে বিভিন্ন স্হানে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হবে। মূল্যায়ন, সফল মৎস্য কর্মীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ ও আগামী ২৩ জুলাই সমাপনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৯ সমাপ্ত হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বর থেকে এক বর্ণাঢ্য সড়ক র‍্যালী শুরু হয়ে মোটেল শৈবাল প্রাঙ্গনে এসে শেষ হয়। এরপর সংলগ্ন সাগরিকা লেকে কার্প জাতীয় মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়। মৎস্য অধিদপ্তরীয় কর্মকর্তা-কর্মচারীগন, জেলে-মৎস্যজীবি, চিংড়ি চাষী-উদ্যোক্তা, হ্যাচারী মালিক-টেকনিশিয়ান, কনসালটেন্ট, ফিশিং বোট মালিক-শ্রমিক, বরফকল শ্রমিক ও মৎস্য ব্যবসায়ীসহ জেলার মৎস্য সেক্টরের সাথে জড়িত বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার বিপুল সংখ্যক জনগন এবং বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রিক মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকরা উক্ত উদ্ধোধনী অনুষ্ঠান ও র‍্যালীতে অংশগ্রহন করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •