কলেজ আমার কাছে দ্বিতীয় পরিবার

 

আনাস মাহমুদ

এই তো সেদিন ২০১২ সালের শেষে দিকে এইচ,এস,সি তে ভর্তি হয়েছিলাম।এইচ,এস,সি শেষ করে অর্নাস টা প্রিয় কলেজে করতে বাধ্য করল সবার ভালোবাসায়।
অর্নাস ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ছিলাম আজ চূড়ান্ত ভাইভার মাধ্যমে অর্নাস জীবনের পরিসমাপ্তি ঘটল।ইচ্ছে আছে মাস্টার্সটা প্রিয় কলেজে সম্পন্ন করবো।কিন্তু আজ যে বেদনাটুকু অনুভব করলাম তা বোধয় এই দীর্ঘ পথচলায় কখনও অনুভব করি নিই।
কেমন জানি মনে হলো কি যেন মহামূল্যবান কিছু জীবন থেকে হারিয়ে যাচ্ছে।সত্যি বলতে সেটায় হচ্ছে। যদিও মাস্টার্স করবো একই কলেজে সেই সুবাদে আরও বছর দুয়েক প্রিয় প্রতিষ্টানের ছাত্রত্বটা থাকবে কিন্তু আমরা জানি মাস্টার্স মানে কেমন জানি হয় ক্যাম্পাসের দুরন্তপনার অভাবে থাকা এক নিঃস্ব একা ছাত্র।
ক্যাম্পাসের মায়া কখনও ভুলে থাকা সম্ভব হবে আমার পক্ষে।সেই বটগাছের নিচে বসে আড্ডায় মশগুল হওয়া, শহিদ মিনারে পাদদেশে স্মৃতিময় সময়টুকু কখনও ভুলে থাকা সম্ভবপর না।
আনাস বলে সকল স্যারদের আদর করে ডাক দেওয়া,ছোট ভাইদের সম্মান তাদের প্রতি আদর,ভালোবাসা বার বার ডাক দিবে ফিরে আসো ক্যাম্পাসে আনাস তুমি সময়ে,অসময়ে।
সত্যি বলছি কলেজ আমার কাছে সবসময় দ্বিতীয় পরিবারের মত,সেই ভাবেই সময়টুকু ব্যয় করেছি।কখনও স্যারদের অবাধ্য হতে চেষ্টা করি নাই সবসময় তাদের আনুগত্য একজন আনাস হয়ে থাকার চেষ্টা করেছি।একজন দায়িত্ববান ছাত্র হিসেবে ক্যাম্পাসে যতটুকু পারি দায়িত্ববান হতে চেষ্টা করেছি।
আজ অনার্সের শেষটা ঠিক যেমনটা চেয়েছিলাম তার চেয়েও মুগ্ধকর ছিলো। প্রিয় প্রাঙ্গনের সকল মুহূর্তগুলো ব্যাগ ভর্তি করে নিয়েছি, নিয়েছি সকল মায়া। মনে হচ্ছে এই বুঝি আমি ভর্তি হয়েছিলাম! দেখতে দেখতে ৭ টা বছর পার হয়ে গেলো। বড়দের স্নেহ আর বন্ধুদের ভালোবাসা আর ছোটদের মায়াতে বেশ পার হলো জীবনের, ৭ টা বছর।
শেষ যখন ভাইবা দিতে যাচ্ছি,মনে হচ্ছিলো পুরো ক্যাম্পাসের বর্ণনা আজ বলেই দিই। জানি এটাতেই শেষ নয় আরো সময় পরে আছে। চাইবো সবসময় যেনো প্রিয় মানুষগুলোর কাছে ঠিক বর্তমানের স্থানটা নিয়ে বেঁচে থাকি।
প্রিয় তসলিমা মেমের বাবা আনাস এদিকে এসো,প্রিয় আকতার স্যারের বাবা কেমন আছো,প্রিয় গোপাল স্যারের আনাস কি খবর তোমার সহ সকল স্যারদের আদর মিস করবো ভীষণ।
যতটুকু সম্ভব চেষ্টা করবো ক্যাম্পাসে বার বার ছুটে আসতে।
কারণ ক্যাম্পাসের মায়া বার বার ডাক দিবে ফিরে আসতে।
প্রিয় ভাই,বোনদের বলবো তোমরা কলেজ কে সবসময় নিজের পরিবারের মত ভালোবাসবে সকল শিক্ষক,শিক্ষিকাদের নিজের মা,বাবা মনে করবে।
দায়িত্ববান ছাত্রছাত্রী হওয়ার চেষ্টা করবে।
শেষ বেলায় সবার কাছে মিনতি করছি, চলার পথে যদি কোনো ভুল, ভ্রান্তি হয়ে থাকে দয়া করে ক্ষমার দৃষ্টিকোণ থেকে বিবেচনা করবেন।
সবার জন্য দোয়া ও ভালোবাসা।

লেখক: আনাস মাহমুদ। অনার্স ফাইনাল ফলাফল প্রত্যাশী, অর্থনীতি বিভাগ,কক্সবাজার সিটি কলেজ। 

সর্বশেষ সংবাদ

কাজ দিয়েই বেঁচে থাকতে চাই : তাহসান

বাংলাদেশ থেকে প্রতিনিধিদল যাচ্ছে শুনানি পর্যবেক্ষণে

বৌদ্ধ সুরক্ষা পরিষদ উখিয়া উপজেলার আহবায়ক পরিষদ গঠিত

মাছধরার ট্রলার থেকে ১ লাখ ইয়াবাসহ দুইজন আটক

ইরাকে বিক্ষোভ: বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত ২০

মহাসাগরে বিপদ : দ্রুত ফুরিয়ে যাচ্ছে অক্সিজেন বাড়ছে তাপমাত্রা

বাজারঘাটার সরওয়ার আলম চৌধুরীর ১ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ 

সরকারি চাকুরেদের অফিস অনুপস্থিতিতে বেতন কর্তন

জমে উঠেছে শীতের ফুটপাত

চিরিঙ্গা বাশঘাটা ব্যবসায়ীদের উদ্যোগে বিশাল সীরাতুন্নবী (সা:) মাহফিল অনুষ্ঠিত

শিক্ষার্থীদের জ্ঞান-বিজ্ঞান নির্ভর সুদক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করতে হবে : এমপি জাফর আলম

চট্টগ্রামস্থ চকরিয়া সমিতির নির্বাচনে ৩য় বার সভাপতি লায়ন কমর উদ্দিন

কক্সবাজার সাহিত্য একাডেমীর ৪৬২তম সাহিত্য সভা অনুষ্ঠিত

টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বন্দুকযুদ্ধে হতাহত ৩

শুভ জন্মদিন সাউদ

জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় শীতার্ত শিশুদের মাঝে স্বপ্নজালের শীতবস্ত্র বিতরণ

সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় ইকোনমিক জোন গড়ে তোলা হবে : সাংসদ নদভী

গর্জনিয়ায় হিন্দু সম্প্রদায়ের ফুটবল টুর্ণামেন্ট

টেকনাফ বাহারছাড়ায় মহিলা মেম্বারের মাথা ফেটে দিলো কমিউনিটি পুলিশ সভাপতি

মানবপাচার মামলায় জামিন পাওয়া শিশুটি আলাউদ্দিন নয়